রাজশাহীতে ৩৩৩-এ কল করলেই পৌঁছে যাবে খাবার

আপডেট: জুন ২৪, ২০২১, ২:০৫ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক :


রাজশাহীতে চলছে কঠোর লকডাউন। এই পরিস্থিতে চরমভাবে সংকটে আছে খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ। তাই এই পরিস্থিতিতে যারা খাদ্যসংকটে ভুগছেন তারা ৩৩৩ নম্বরে কল করলে খাবার বা নগদ টাকা পৌঁচ্ছে দিবে স্থানীয় প্রশাসন।
বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে লকডাউনের সার্বিক পরিস্থিতি দেখতে এসে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল। তিনি বলেন, বর্তমানে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে ত্রাণ সামগ্রী অব্যাহত রয়েছে। এর বাইরেও নগর আওয়ামী লীগ ও সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে ত্রাণ সামগ্রী দিয়ে সহযোগিতা করছে। এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। কোনো মানুষ খাদ্যর অভাবে সংকটে থাকবে না বলে জানান রাজশাহী জেলা প্রশাসক। এ সময় তিনি সকলকে স্বাস্থাবিধি মেনে বিনা প্রয়োজনে বাইরে না যাওয়ার অনুরোধ জানান। জেলা প্রশাসক বলেন, প্রথম দিকে যে লকডাউন ছিলো তা অত্যন্ত ভালো ছিলো এখনো সেই চেষ্টাই আছে।
এ সময় তিনি লকডাউন বাস্তবায়নে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। এদিকে করোনা পরিস্থিতি ঠিক রাখতে নগরীর সকল গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে মোড়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কঠোর নজরদারি রাখছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ রাস্তায় বের হতে পারছে না। আরও এক সপ্তাহ বাড়ানো হয়েছে সর্বাত্মক লকডাউন। চলবে আগামী ৩০ জুন রাত ১২টা পর্যন্ত। বুধবার রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল সংবাদ সম্মেলন করে লকডাউন বাড়ানোর ঘোষণা দেন। বিকেল সাড়ে ৩টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে জেলা প্রশাসক জানান, সিটি মেয়রসহ প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দপ্তরের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের জরুরি বৈঠক করা হয়েছে। সেই বৈঠকে রাজশাহীর করোনা পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে লকডাউন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। একই সঙ্গে সিটি করপোরেশন এলাকায় লকডাউনের পাশাপাশি উপজেলা এলাকায় বিধিনিষেধ বাড়ানোরও সিদ্ধান্ত হয় যেন মানুষ অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া এলাকার বাইরে যেতে না পারে। জেলা প্রশাসক বলেন, লকডাউনে সকল ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, শপিংমহল, মার্কেট, দোকান, রেস্টুরেন্ট বন্ধ থাকবে। তবে ওষুধ, কাঁচাবাজার, চিকিৎসা সেবা লকডাউনের আওতামুক্ত থাকবে। এছাড়াও লকডাউনের সময় বাস, ট্রেনসহ কোনো প্রকার যানবাহন রাজশাহী নগরে প্রবেশ করতে পারবে না এবং রাজশাহী মহানগর হতে বাইরে যেতে পারবে না। তবে আমসহ কৃষি ও খাদ্য সামগ্রীবাহী পরিবাহন চলাচল করবো। জনসমাবেশ হয় এমন সব ধরনের সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান বন্ধ থাকবে।
উল্লেখ্য, গত ইদের পর থেকে রাজশাহীতে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু বাড়তে থাকলে গত ১১ জুন সিটি করপোরেশন এলাকায় এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এর পর গত ১৬ জুন সেটি আরেক সপ্তাহ বাড়িয়ে ২৪ জুন মধ্য রাত পর্যন্ত করা হয়। আজ আরেক দফা বাড়িয়ে আগামী ৩০ জুন মধ্য রাত পর্যন্ত করা হলো।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ