রাজশাহীর আকাশেও সুপারমুন

আপডেট: নভেম্বর ১৫, ২০১৬, ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক



রাজশাহীতেও সুপারমুন দেখতে আকাশ পানে চেয়েছিল শত শত চোখ। কেউবা নৌকা ভাড়া করে পদ্মার গভীরে, কেউ বা বাড়ির ছাদে দাঁড়িয়ে, কেউ বা ফাঁকা জায়গা পেয়ে তাকিয়েছিল আকাশপানে। কারণ এই চাঁদ দেখা গেল ৬৮ বছর পর। এর আগে দেখা গিয়েছিল ১৯৪৮ সালে। আবার দেখা যাবে ১৮ বছর পর ২০৩৪ সারে ২৫ নভেম্বর।
সুপারমুনের অর্থ পৃথিবীর সবচেয়ে নিকটে চাঁদকে দেখতে পাওয়া। অন্য স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে বড় হিসেবে দেখতে পাওয়া। চাঁদের এই শোভা দেখতে রাজশাহীর ঔৎসুক জনতাও ভিড় জমায় পদ্মার পাড়ে। স্ট্যাটাসে স্ট্যাটাসে ভরে উঠে ফেসবুক। আলোচনা চলে সুপার মুন নিয়ে। অনেকে সুপার মুনের ছবি আপলোড করে ফেসবুকে।
চাঁদ দেখতে পদ্মার পাড়ে এসেছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ইশতিয়াক। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে ভালোভাবে দেখা গেলেও বাংলাদেশ থেকে সুপারমুন দেখতে পাওয়ার কথা। সেইজন্য পদ্মার পাড়ে এসেছি। এমনিতেই আকাশ, চাঁদ দেখতে আমার ভালো। চাঁদের সৌন্দর্যই অন্যরকম অনুভূতি তৈরি করে। সেইখানে সবচেয়ে বড়, সবচেয়ে নিকটবর্তী দূরত্ব থেকে চাঁদকে দেখার সৌভাগ্যই আলাদা। সেইজন্যই এসেছি।
বাড়ির ছাদ থেকে সুপার মুন দেখেছেন দুই যমজ ভাই সাইয়ান ও সাদমান। তারা বলেন, চাঁদকে অন্য সময়ের চেয়ে অনেক সুন্দর মনে হলো। লাল কখনো ধূসর। অদ্ভুত সুন্দর। ভীষণ ভালো লেগেছে চাঁদটাকে দেখতে।