রাজশাহীর তিন উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে, বাড়ছে ভোটার উপস্থিতি

আপডেট: মে ২১, ২০২৪, ২:২৫ অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক :


ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে রাজশাহীর বাগমারা, দুর্গাপুর ও পুঠিয়া উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে। মঙ্গলবার (২১ মে) সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

সকালে ভোট শুরুর পর ভোটারদের উপস্থিতি কম হলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটারদের উপস্থিতি বাড়ছে। তবে বিভিন্ন কেন্দ্রে পুরুষ ভোটারের চেয়ে নারী ভোটারের উপস্থিতি তুলনামূলকভাবে বেশি লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

এদিকে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন নির্বাচন কমিশন। ভোটগ্রহণ শুরুর পর এখন পর্যন্ত বড় ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। তবে রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার দুটি কেন্দ্র ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

ভোট দেওয়াকে কেন্দ্র করে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। উপজেলার নয়াপাড়া গোপালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে চেয়ারম্যান প্রার্থী শরীফ ও মজিদ সরদারের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে গোপালপুরে অন্তত ৯ জন এবং পানানগর কেন্দ্রে এক জন আহত হয়েছেন। তবে তারা কে কার সমর্থক তা প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এদিকে মঙ্গলবার (২১ মে) ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে রাজশাহীর পুঠিয়া, দুর্গাপুর এবং বাগমারা এই তিনটি উপজেলায় মোট ২৯টি ইউনিয়ন ও ৪টি পৌরসভায় মোট ২৩ জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ের দেওয়া তথ্য মতে, দ্বিতীয় ধাপে মঙ্গলবার (২১ মে) রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ উপজেলায় মোট ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৭৮টি, ভোট কক্ষ ৫১৩টি এবং মোট ভোটার ১ লাখ ৮১ হাজার ৯৯৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯১ হাজার ৮৬২ জন ও নারী ভোটার ৯০ হাজার ১৩৬ জন।

দুর্গাপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ২ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ উপজেলায় মোট ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৬৭টি, ভোট কক্ষ ৪৭২টি। মোট ভোটার ১ লাখ ৫৯ হাজার ৯৩২ জন। দুর্গাপুরে মোট ভোটারের মধ্যে ৮০ হাজার ৫১ জন পুরুষ ও ৭৯ হাজার ৮৮১ জন নারী ভোটার।

অন্যদিকে রাজশাহীর বাগমারা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৩ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১ জন প্রার্থী থাকায় পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম শহীদকে গত ৩০ এপ্রিল বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বেসরকারিভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়।

রাজশাহীর এই উপজেলায় মোট ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১২২টি। আর ভোট কক্ষ ৭৪৭টি। মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১০ হাজার ৯ শত ৭১ জন। এই উপজেলার মোট ভোটারের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫৬ হাজার ৫৮২জন ও নারী ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৫৪ হাজার ৩৮৯ জন।

রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও রিটার্নিং কর্মকর্তা কল্যাণ চৌধুরী জানান, মঙ্গলবার দ্বিতীয় ধাপে ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নির্ধারিত সময়ে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া কোথাও থেকে এখনো পর্যন্ত বড় কোন সহিংসতার খবর পাওয়া যায়নি। সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চলছে বলেও এ সময় উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি আরও জানান, বৃষ্টির কারণে সকালের দিকে ভোটার উপস্থিতি কিছুটা কম হলেও সময়ের সাথে সাথে ভোটার উপস্থিতি বাড়ছে। রাজশাহীর তিন উপজেলায় সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে ১ হাজার ৫০০ জন পুলিশ সদস্য, ১০ প্লাটুন বিজিবি, ৩ হাজার ৭৪০ জন আনসার সদস্য, ৩৩ জন ভ্রাম্যমাণ ম্যাজিস্ট্রেট, র‌্যাবের ৬টি টিম দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে র‌্যাব ও পুলিশের টহল টিম দায়িত্ব পালন করছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ