রাজশাহীর মানুষের কল্যাণে রাজনীতি করি : লিটন

আপডেট: জুলাই ২৮, ২০১৭, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


সেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বক্তব্য দেন নগর আ’লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন-সোনার দেশ

স্বেচ্ছাসেবকলীগের ২৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানে আ’লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও নগর সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, রাজশাহীর মানুষের কল্যাণের জন্য রাজনীতি করি। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নবান্ধব সরকার। আ’লীগ দেশের মানুষের স্বার্থ দেখে। আমাদের রাজনীতিই হচ্ছে উন্নয়নের জন্য। আমরা ক্ষমতায় আসি সাধারণ মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের উদ্যোগে আয়োজিত প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
সাবেক মেয়র লিটন বলেন, বিএনপির আমলের উন্নয়ন আর আ’লীগের উন্নয়নের পাথর্ক্য এখন জনগণকেই করতে হবে। বিএনপি ক্ষমতায় আসলেই লুটপাট করেন দেশের মানুষ তা বুঝে গেছে। রাজশাহীতে স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা আ’লীগের সঙ্গে রাজপথে থেকে আন্দোলন সংগ্রামে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে। সাংগঠনিকভাবে স্বেচ্ছাসেবক লীগের সুনাম রয়েছে।
রাজশাহীর মানুষের উন্নয়নে আ’লীগ সরকার কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, কেউ খাবে আর কেউ খাবে না, ওই নীতি আমাদের জন্য নয়। আমরা সবার জন্যই সমান সুযোগ সৃষ্টি করেছি। নীতি যদি ঠিক থাকে আর যদি সঠিক পদক্ষেপ নেয়া যায়, তবে দেশের উন্নয়ন সম্ভব। আমি সেটি করে দেখিয়েছি।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, নগর আ’লীগের উপপ্রচার সম্পাদক মীর ইসতিয়াক আহমেদ লিমন, স্বেচ্ছাসেবকলীগের সহসভাপতি আশিষ তরুদ্র অর্পণ, শহিদুল ইসলাম বিপুল, সোহেল জুবেরী ও শাহাদত হোসেন বাদশাসহ থানা ও ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতাকর্মীরা। এরআগে মহানগর আ’লীগের দলীয় কার্যালয়ের সামনে বঙ্গবন্ধুসহ জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ ও শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এরপর কার্যালয়ে এসে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
লিটন বলেন, রাজশাহীর মানুষ নিজেদের উন্নয়ন চাই না, ক্ষতি চাই তা আসন্ন নির্বাচনের মাধ্যমে প্রমাণ করবে। শান্তি ও শিক্ষা নগরী রাজশাহীকে কর্মময় এবং অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধশালী করার জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে। রাজশাহীকে উন্নত ও অর্থনীতিকে শক্তিশালী করেছি। রাজশাহীর মানুষকে অবহেলার চোখে দেখার কোন সুযোগ নেই। মনে রাখতে হবে মর্যাদা নিয় সবাই বাঁচতে চাই। এজন্য সবাইকে কাজের প্রতি গুরুত্ব দিতে হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ