রাজশাহী অঞ্চলে বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া ভোট শান্তিপূর্ণ আহত ৯, আটক ২৪

আপডেট: মে ২১, ২০২৪, ১১:০০ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


ষষ্ঠ উপজেলা নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে রাজশাহী বিভাগের ১৯টি উপজেলায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। দুয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা বাদে এই নির্বাচনও শান্তিপূর্ণ হয়েছে। দুর্গাপুরে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এছাড়াও ভোট প্রদানে বাধা দেওয়ার অভিযোগে ২৪ জনকে আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

মঙ্গলবার (২১ মে) সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। সকালে ভোট শুরুর পর ভোটারদের উপস্থিতি কম হলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটারদের উপস্থিতি বেড়েছে। তবে বিভিন্ন কেন্দ্রে পুরুষ ভোটারের চেয়ে নারী ভোটারের উপস্থিতি তুলনামূলকভাবে বেশি ছিল।

এদিকে পুঠিয়া উপজেলার বেলপুকুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বানেশ্বর ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র পরিদর্শন করেন বিভাগীয় কমিশনার ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর। ভোটের পরিবেশ দেখে তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

বিভাগীয় কমিশনার বলেন, শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে দ্বিতীয় ধাপে ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে। কোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি ছাড়াই সকাল থেকে দুর্গাপুর, পুঠিয়া ও বাগমারা উপজেলার মোট ২৬৭টি ভোটকেন্দ্রে একযোগে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। বৃষ্টির কারণে সকালের দিকে ভোটার উপস্থিতি কিছুটা কম হলেও সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটার উপস্থিতি বাড়তে শুরু করেছে।

তিনি বলেন, দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া কোথাও থেকে এখনো পর্যন্ত বড় কোনো সহিংসতার খবর পাইনি। কারণ সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠানের সব প্রস্তুতি ছিল উল্লেখ করার মতোই। তাই স্বাচ্ছন্দ্যে ও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দিয়েছেন ভোটাররা। অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনে আমরা অঙ্গীকারবদ্ধ।
এছাড়াও রাজশাহী জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ বাগমারা উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শন করেন।

এদিকে, ভোটগ্রহণ শুরুর আগে নওপাড়া ইউনিয়নের গোপালপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের বাইরে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। দুই পক্ষের হামলায় পানানগর দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে একজনসহ মোট ৯ জন আহত হয়।

আহত ব্যক্তিরা হলেন গোপালপুর গ্রামের আজের, আজাদ, শহিদুল, শুকচান, মিঠু, আব্দুর রাজ্জাক ও সান্টু এবং পানানগর গ্রামের শিহাব। আহতদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও দুর্গাপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

এছাড়াও ভোট প্রদানে বাধা ও সংঘর্ষের ঘটনায় ২৪ জনকে আটক করেছে বিজিবি ও র‌্যাব। রাজশাহী জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পুঠিয়া সার্কেল) রাজিবুল ইসলাম বলেন, নির্বাচনী সহিংসতায় আটককৃতদের পুলিশ হেফাজতে থানায় রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত মামলা হয়নি। মামলা হলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মঙ্গলবার (২১ মে) সকালে বেশ কয়েকটি কেন্দ্র ঘুরে দেখা যায়, বানেশ্বর ইসলামিয়া স্কুল ও কলেজ কেন্দ্রে সকাল ৯টা পর্যন্ত ভোট দিয়েছেন ৩ জন ভোটার। বেলপুকুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এক ঘণ্টায় ১৪ জন। সকাল ১০টা পর্যন্ত পুঠিয়া উপজেলার ভোটকেন্দ্রগুলোর চিত্র ছিল এমনই। দুর্গাপুর, বাগমারা উপজেলাতেও কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কম। তবে বেলা বাড়ার সাথে সাথে বাড়তে থাকে ভোটারের উপস্থিতি।

রাজশাহীর বাগমারা, দুর্গাপুর ও পুঠিয়া উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে। এর মধ্যে বাগমারায় চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন করে প্রার্থী আছেন। আর পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হয়েছেন শহিদুল ইসলাম শহিদ।

এছাড়াও পুঠিয়া উপজেলায় শুধু চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী আছেন এবং দুর্গাপুরে চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে দুইজন করে প্রার্থী আছেন। তবে পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী তিনজন।

তিনটি উপজেলায় মোট ভোটর ৬ লাখ ৫২ হাজার ৯০৮ জন। তিনটি উপজেলায় মোট ভোট কেন্দ্র ২৬৭টি। এর মধ্যে বাগমারা উপজেলায় ১২২টি, পুঠিয়ায় ৭৮ ও দুর্গাপুরে ৬৭টি ভোট কেন্দ্র আছে।
রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও রিটার্নিং কর্মকর্তা কল্যাণ চৌধুরী জানান, মঙ্গলবার দ্বিতীয় ধাপে ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নির্ধারিত সময়ে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া কোথাও থেকে এখনো পর্যন্ত বড় কোন সহিংসতার খবর পাওয়া যায়নি। সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চলছে বলেও এ সময় উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি আরও জানান, বৃষ্টির কারণে সকালের দিকে ভোটার উপস্থিতি কিছুটা কম হলেও সময়ের সাথে সাথে ভোটার উপস্থিতি বাড়ছে। রাজশাহীর তিন উপজেলায় সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে ১ হাজার ৫০০ জন পুলিশ সদস্য, ১০ প্লাটুন বিজিবি, ৩ হাজার ৭৪০ জন আনসার সদস্য, ৩৩ জন ভ্রাম্যমাণ ম্যাজিস্ট্রেট, র‌্যাবের ৬টি টিম দায়িত্ব পালন করেছে। এছাড়া আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে র‌্যাব ও পুলিশের টহল টিম দায়িত্ব পালনে ছিল।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Exit mobile version