রাজশাহী ওয়াসার সারফেস ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট প্রকল্পের কাজ পুরোদমে চলছে। কাজের অগ্রগতি ২০ ভাগ

আপডেট: জুন ১৩, ২০২৪, ১১:৩০ অপরাহ্ণ

এ.কে তোতা, গোদাগাড়ী (রাজশাহী):


রাজশাহী ওয়াসার ভূ-উপরিস্থ নিরাপদ খাবার পানি সরবারহ প্রকল্পের কাজের অগ্রগতি ২০ ভাগ হয়েছে। চিনের অর্থায়নে রাজশাহী সারফেস ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট প্রকল্পটির কাজ শুরু হয় ২০২৩ সালের জুলাই মাসে। আগামী ২০২৭ সালের মধ্যে প্রকল্পর কাজ সম্পর্ণ হলে রাজশাহী মহানগরে প্রতিদিন দুই কোটি লিটার খাবার পানি সরবারহ করা হবে।রাজশাহী ওয়াসার তত্বাবাধয়নে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে চিনা ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান হুনান কনস্ট্রাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রুপ কোম্পানি।

এই কোম্পানীর প্রকল্প পরিচালক হু জিংগুও বলেন, গোদাগাড়ী পৌর এলাকার জোতগোসাইদাস এলাকায় পদ্মা নদী থেকে পানি উত্তোলন করে শোধনাগারের মাধ্যমে পাইপ লাইনে পানি নিয়ে যাওয়া হবে রাজশাহী মহানগরে। গত এক বছরে চাইনিজ প্রেফারেনশিয়াল এক্সপোর্ট বায়ারের ক্রেডিট লোনের দ্বারা অর্থায়ন করা, প্রস্তাবিত SWTP-তে একটি ইনটেক নির্মাণ, প্রচলিত ট্রিটমেন্ট প্লান্ট, ট্রিটড ওয়াটার ট্রান্সমিশন মেইন, বুস্টার পাম্প স্টেশন এবং ৫৩-কিলোমিটার প্রধান পাইপলাইন এবং ৪৮-কিলোমিটার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিতরণ পাইপলাইন স্থাপন করা হবে। এই প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

হুনান কনস্ট্রাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রুপ কোম্পানির প্রশাসনিক কর্মকর্তা ঝু কুইয়ুয়ান বলেন, গত এক বছরে শেষ ২০ ভাগ কাজ শেষ হলেও বর্তমানে সাইট ক্লিয়ারিং, বালি ভরাট কাজ এবং বাংলাদেশ এবং চিনা কর্মীদের জন্য একটি সুপ্রতিষ্ঠিত প্রকল্প ক্যাম্প স্থাপন ও (এসডিআইপি) নামীয় লোহার পাইপের প্রথম ব্যাচ সম্পন্ন হয়েছে প্রকল্প সাইটে পরিবহন করা হয়।

শিগগিরই রাজশাহী -চাপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়কেরর পাস দিয়ে পাইপ বসানোর কাজ শুরু হবে। হুনান কনস্ট্রাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রুপ কোম্পানির সহকারী কমার্শিয়াল ম্যানেজার প্রকৌশলী আবু রুবায়েত বলেন, বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের অধীনে বাংলাদেশ-চিন সম্পর্কের উদাহরণ হিসেবে, বর্তমানে বাংলাদেশের অপরিহার্য জীবিকা প্রকল্পের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে, রাজশাহী ওয়াসা সারফেস ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট প্রকল্পটি রাজশাহী ওয়াসা (RWASA) এবং হুনান কনস্ট্রাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রুপ কোম্পানির মধ্যে একটি সহযোগিতা।

লিমিটেড (HCEG), ভূগর্ভস্থ পানির উপর নির্ভরতা কমিয়ে ভূ-পৃষ্ঠের পানির সরবরাহ বৃদ্ধির জন্য নতুন ভূপৃষ্ঠের পানি শোধনাগার স্থাপনের উদ্দেশ্য নিয়ে একটি চীনা কোম্পানি। তিনি আরো বলেন, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের আন্তরিক প্রচেষ্টায় রাজশাহীতে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই প্রকল্পটি ত্বরান্বিত করছে।

বাংলাদেশে নিযুক্ত চিনের রাষ্ট্রদূত ইয়াও ওয়েন বলেন, রাজশাহী ওয়াসা RWASA এবং HCEG টিম তাদের প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করছে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আসন্ন চিন সফরের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছে, যার লক্ষ্য হল পাইপ স্থাপনের কাজ রাজশাহী নগরবাসীর মধ্যে নিরাপদ পানীয় জল সরবরাহ এবং যত তাড়াতাড়ি সম্ভব স্থানীয় জনগণের জীবনযাত্রার উন্নতি ঘটাবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ