রাজশাহী-চাঁপাই রুটে যেখানেই যান, ভাড়া ১২০

আপডেট: জুলাই ১২, ২০২০, ১০:৩১ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


করোনার পরিস্থিতির শুরু থেকেই রাজশাহী থেকে চাঁপাই রুটে যাতায়াতে খরচ বেড়েছে প্রায় দ্বিগুনেরও বেশি। লকডাউনের সময় জরুরি প্রয়োজনে যাতায়াতকারীদের থেকে ৩-৪ গুণ পর্যন্ত বেশি ভাড়াও আদায় করতে দেখা গেছে। বাস চলাচল বন্ধ হওয়ার পরেই তৈরি হয়েছিলো এ সংকট। লকডাউন শিথিলের পর ১ জুন থেকে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী সীমিত পরিসরে বাস চলাচল শুরু করলেও যাত্রীদের ভোগান্তি দূর হয়নি। ডাবল ভাড়া দিয়েও কাক্সিক্ষত সেবা না পাওয়ারও অভিযোগ অনেক যাত্রীর।
রোববার (১২ জুলাই) বাইপাস বাসস্ট্যান্ডে অবস্থান নিয়ে দেখা যায়, কাক্সিক্ষত আসন পূরণ না হওয়ায় দীর্ঘ সময় ধরে দাঁড়িয়ে থাকছে বাস। এতে বাসে অবস্থান করা যাত্রীদের দীর্ঘ সময় বসে থাকতে হচ্ছে। বাসগুলোতে একটি সিট ফাঁকা রেখে যাত্রী পরিবহন করার কথা বলা হয়েও লোকাল বাসগুলোতে এ নিয়ম অনেক সময়ই মানা হচ্ছে না। রাজশাহী থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পর্যন্ত বাসে যাতায়াতে ভাড়া ১২০ টাকা। গোদাগাড়ি কিংবা এর আশেপাশে নামলেও একই ভাড়া আদায় করা হচ্ছে এমন অভিযোগও পাওয়া গেছে। এছাড়া বাসের ভেতরের পরিচ্ছন্নতা নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন যাত্রীরা।
চাঁপাইগামী বাসযাত্রী আব্দুল হাদি জানান, তিনি জরুরি কিছু কাজের জন্য রাজশাহীতে এসেছিলেন। এখন তিনি গোদাগাড়ি যাবেন। করোনার কারণে আগের চেয়ে ভাড়া ডাবল নিচ্ছে। তিনি গোদাগাড়িতে নামলেও ডাবলের সঙ্গে চাঁপাইয়ের ভাড়াও দিতে হবে বলে আগেই জানিয়ে দিয়েছে বাস হেলপার। তারপরও দ্রুত যাওয়ার জন্যে তিনি বাসে উঠেছেন। এ সময় তিনি যাত্রীদের দুর্ভোগসহ বাসের ভেতরের পরিচ্ছন্নতা বিষয়ে প্রশ্ন তুলে কর্তৃপক্ষের সুনজর দেয়ার আহ্বান জানান।
এদিকে, রাজশাহী থেকে চাঁপাই রুটে বাসের বিকল্প হিসেবে চলাচল করছে অটো রিকশা। করোনাকালে বিভিন্ন অজুহাতে এবারও বাসের চেয়ে ভাড়া বেশি নিচ্ছে। রাজশাহী থেকে গোদাগাড়ি ১৫০ টাকা এবং চাঁপাই পর্যন্ত ২০০ টাকা করে ভাড়া নিচ্ছে। এছাড়া এসকল গাড়িতে অধিকাংশ সময় ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে চলাচলের অভিযোগও রয়েছে যাত্রীদের।
শনিবার সন্ধ্যার পর নগরীর কাশিয়াডাঙ্গা এলাকায় দেখা যায়, ডাবল ভাড়া নিয়ে গোদাগাড়ি ও চাঁপাইয়ের যাত্রী পরিবহণ করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। বিভিন্ন অজুহাতে গাদাগাদি করে যাত্রী নিচ্ছেন তারা।
যাত্রী শাহানুর ইসলাম শান্ত জানান, তিনি প্রায়ই এ রাস্তায় যাতায়াত করেন। চাঁপাইগামী ও গোদাাগড়িগামী অটোগুলো সাধারণত কাছের যাত্রী তোলে না। বেশি ভাড়ার বিনিময়ে গাদাগাদি এরা যাত্রী পরিবহণ করে। অনেক সময় অতিরিক্ত যাত্রী নেয়ায় সচেতন যাত্রীরা নেমে যায়। তখন তার সঙ্গে চালক খারাপ ব্যবহার করে। এমন কী এখানে হাতাহাতির ঘটনাও ঘটেছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ