রাজশাহী জেলা পুলিশের মানবিকতা

আপডেট: এপ্রিল ২২, ২০২০, ৮:৫৯ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


রাজশাহীর বাগমারায় একটি হত্যা মামলার গ্রেফতারকৃত আসামির সন্তানদের দায়িত্ব নিলো রাজশাহী জেলা পুলিশ। গ্রেফতারকৃত ওই আসামি বাগমারার ধামিন কামনগর মোসা তাহমিনা বেগম (৩৮)। মো. আ. ছাত্তারের স্ত্রী।
জেলা পুলিশের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানা গেছে, গত ১৯ এপ্রিল রোববার বাগমারা থানার ধামিন কামনগর গ্রামের এক আমবাগানের মধ্যে গলায় লাইলনের রশি প্যাঁচানো অবস্থায় শুখেনকুমার সরকার নামের এক ব্যক্তির মরদেহ পাওয়া যায়। এ বিষয়ে মৃত ব্যক্তির ভাই বাগমারা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করে। বিষয়টি গুরত্বের সঙ্গে রাজশাহীর পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহ বিপিএম, পিপিএম এর দিকনির্দেশনায় তদন্ত কার্যক্রম শুরু করে থানা পুলিশ। তদন্তের একপর্যায়ে রাজশাহীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুমন দেবের নেতৃত্বে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সরাসরি জড়িত আসামি মোসা. তাহমিনা বেগমকে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে সোমবার (২০ এপ্রিল) তহমিনা হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করে।
মূলত পরকীয়ার জের ধরে পাঁচ হাজার টাকার প্রলোভনে তাহমিনা ও পল্লব নামের এক ব্যক্তি মিলে শুখেন কুমার সরকারকে হত্যা করে। পরবর্তীতে পুলিশ পল্লবকেও গ্রেফতার করে। বর্তমানে তাহমিনা ও পল্লব দুজনেই কারাগারে আছে।
পরে পুলিশ তাহমিনার বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানতে পারে সে একজন গরিব মানুষ। তার দশম শ্রেণি পড়ুয়া এক মেয়ে ও দুটি নাবালক ছেলে সন্তান রয়েছে।
তাহমিনা সংসার চালানোর জন্য মৃত শুখেন ও পল্লবের বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজ করতো। তার স্বামী বর্তমানে ঢাকায় থাকে এবং ঢাকায় আরেকটি বিয়ে করে সংসার করছে। তার স্বামী তাহমিনা ও তার সন্তানদের কোনো খোঁজ খবর নেয় না এবং সংসার চালানোর জন্য কোনো টাকা পয়সা দেয় না। তাহমিনা কারাগারে থাকায় তারা সন্তানরা আরো বেশি অসহায় ও মানবেতর পরিস্থিতির সম্মুখিন হয়। তাই মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে করোনায় উদ্ভুত সংকটময় পরিস্থিতিতে রাজশাহীর পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহ বিপিএম, পিপিএম এর দিকনির্দেশনায় বাগমারা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আতাউর রহমান পরিবারটির সদস্যদের সার্বিক খোঁজ খবর রাখছেন এবং নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী দিয়ে সহযোগিতা করেছেন।
শুধু খাদ্য সামগ্রী প্রদান নয়, তাদের থাকা খাওয়ার ব্যবস্থাও করে দিয়েছে বাগমারা থানা পুুলিশ। আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় রাজশাহী জেলা পুলিশ অপরাধীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে সর্বদা তৎপর রয়েছে। পাশাপাশি মানবিকতার আবেদন নিয়ে করোনার এই সংকটময় পরিস্থিতিতে সব সময় অসহায় নিরীহ মানুষদের পাশে রয়েছে জেলা পুলিশ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ