রাজশাহী বিভাগে বজ্রপাতে পাঁচ কৃষকসহ ছয়জনের মৃত্যু

আপডেট: মে ১১, ২০২১, ১১:৪০ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


রাজশাহী বিভাগে বজ্রপাতে পাঁচ কৃষকসহ ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (১১ মে) বিভিন্ন সময় তাদের মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলায় পৃথক স্থানে দুইজন, পাবনার সাঁথিয়ায় বজ্রপাতে দুই জন, নওগাঁ জেলার ধামইরহাটে একজন ও নাটোর জেলার বড়াইগ্রামে একজনের মৃত্যু হয়েছে। আমাদের নওগাঁ, শিবগঞ্জ ও বড়াইগ্রাম প্রতিনিধিরা সেসব মৃত্যুর খবর পাঠিয়েছেন।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরিদ হোসেন জানান, মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে খাইরুল ইসলাম (৩৫) জমিতে কাজ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন। তিনি বাড়ির কাছাকাছি পৌঁছানোর পর বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই মারা যান। নিহত কৃষক খাইরুল ইসলাম উপজেলার পাঁকা ইউনিয়নের দক্ষিণ পাঁকা-নিশিপাড়া গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে। এছাড়াও এদিন দুপুর দেড়টার দিকে সালমা বেগম (২৮) কালিচক গ্রামের বাড়ির কাছের বাগানে আম কুড়ানোর সময় বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই মারা যান। গৃহবধূ সালমা বেগম হচ্ছেন মোবারকপুর ইউনিয়নের কালিচক গ্রামের মাসুদ রানার স্ত্রী ।
এ ব্যাপারে শিবগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প ব্যস্তবায়ন কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম জানান, নিহতদের পরিবারকে আর্থিক অনুদান দেওয়া হবে।
এদিকে নাটোরের বড়াইগ্রামের জোয়াড়ি ইউনিয়নের কেচুয়াকোরা গ্রামে ছবের আলী (৫৫) নামে এক কৃষক বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে হালকা বৃষ্টির মধ্যে তিনি বাড়ির অদূরে নিজ জমিতে ধান কাটছিলেন। এ সময় আকস্মিক বজ্রপাতে ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু হয়। ছবের আলী ওই গ্রামের বাহারউদ্দিন আলীর ছেলে। জোয়াড়ি ইউপি চেয়ারম্যান চাঁন মাহমুদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
অন্যদিকে নওগাঁর ধামইরহাটে বজ্রপাতে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। মাঠ থেকে গরু নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে কৃষক রেজাউল করিম ইজাবুল (৬৩) বজ্রপাতের শিকার হয়ে ঘটনাস্থলে মারা যায়। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার ইসবপুর ইউনিয়নের বৈদ্যবাটি গ্রামের মাঠে। ইসবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পরিষদের চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েশ বাদল ও ইউপি সদস্য রেজাউল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার দুপুরে আকাশ মেঘাচ্ছন্ন দেখালে কৃষক ইজাবুল গরু নেওয়ার জন্য পূর্ব মাঠে যায়। গরু নিয়ে রওনা দেওয়ার মুর্হূতে সে বজ্রপাতের শিকার হয়ে ঘটনাস্থলে মারা যায়। তবে গরুগুলো ভয়ে দৌড়ে পালিয়ে বাড়িতে গিয়ে রক্ষা পায়। এক ছেলে ও এক মেয়ে সন্তানের জনক ইজাবুল বৈদ্যবাটি হটাৎপাড়া গ্রামের মৃত গিয়াশ উদ্দিনের ছেলে। ধামইরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল মমিন বলেন, খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরতহাল তৈরি করে দাফনের জন্য লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।
এদিকে মঙ্গলবার (১১ মে) সকাল ১০টার দিকে পাবনার সাঁথিয়ায় বজ্রপাতে দুই জনের মৃত্যু হয়। নিহতরা হলো উপজেলার নাগডেমরা ইউনিয়নের ছোট পাথাইলহাট গ্রামের জয়নাল প্রামানিকের ছেলে ইমরান হোসেন (১৮) ও সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার পুটিয়া গ্রামের আফছার আলীর ছেলে আরিফ হোসেন (১৫)।
পাবনার সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম জানান, ইমরান হোসেন বাড়ির পাশে মাঠে বেগুন তুলছিলেন। অপরদিকে আরিফ হোসেন কৃষি শ্রমিক হিসেবে আফরা গ্রামের মাঠে বাঙ্গি তুলছিলেন। এ সময় বজ্রপাতে তাদের মৃত্যু হয়।