রাণীনগরে প্রতিপক্ষের মারপিটে যুবলীগ নেতা আহত

আপডেট: জুলাই ১৫, ২০১৭, ১২:১৯ পূর্বাহ্ণ

রাণীনগর প্রতিনিধি


নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার বৃহত্তম হাট আবাদপুকুর হাটকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের এলোপাথাড়ী মারপিটে উপজেলা যুবলীগের শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক গুলরাজ সরদার গুরুত্বর আহত হয়েছেন। তিনি আবাদপুকুর বাজারের সায়েদ আলী সরদারের ছেলে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বৃহত্তম হাট আবাদপুকুর হাট। এই হাটের ইজারা নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত দুই ইজাদারের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছিলো। এক পক্ষ হাটের অবৈধ ইজারার উপর হাইকোর্টে রিট করলে হাইকোর্ট এই হাটের ইজারার উপর ছয় মাসের নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। এ অবস্থায় জেলা প্রশাসনের নির্দেশে উপজেলা প্রশাসন স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তিদের নিয়ে ছয় সদস্যের একটি হাট পরিচালানাকারী কমিটি গঠন করে হাট পরিচালনা করে আসছেন। এই পরিচালনা কমিটি বিভিন্ন পণ্যের উপর সরকারের বেধে দেওয়া খাজনা না তুলে নিজেদের ইচ্ছেমতো খাজনা আদায় করে আসছেন। তাই এই হাট নিয়ে আবাদপুকুরে দুই পক্ষের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত দ্বন্দ্ব চলে আসছিলো। এই ধারাবাহিকতায় গত বৃহস্পতিবার রাত অনুমান ৮টার সময় আবাদপুকুর হাটের চারমাথায় হাট পরিচালনা কমিটির সদস্যরা কোন কথা ছাড়াই যুবলীগ নেতা গুলরাজকে এলোপাথাড়ী মারপিট শুরু করে। স্থানীয়রা গুলরাজকে গুরুত্বর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করে। এরপর থেকে আবাদপুকুর হাটে এখন থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে আবাদপুকুর বাজারে যে কোন সময় এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।
প্রত্যক্ষদর্শী যুবলীগ নেতা রুহুল আমীন জানান, আবাদপুকুর হাটকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মাঝে দীর্ঘদিন যাবত দ্বন্দ্ব চলে আসছিলো। এদিন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে হাট কমিটির সদস্যরা কোন কারণ ছাড়াই গুলরাজকে অন্যায়ভাবে মারপিট করে। এই ঘটনাটি আমরা উপজেলা আ’লীগের নেতৃবৃন্দকে মৌখিকভাবে জানিয়েছি। এখনো পর্যন্ত এ বিষয়ে থানায় কোন লিখিত অভিযোগ করা হয় নি। আমি উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সহসভাপতি হিসেবে এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছি। এই বিষয়ে জোরালো প্রদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য স্থানীয় সাংসদ সুদৃষ্টি কামনা করছি।
জানতে চাইলে সরকার দলীয় স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম খাঁন বাবলু মারপিটের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, গুলজারকে মারপিট করা হয়েছে অন্য কারণে। এ কারণ বলা যাবে না।
এ বিষয়ে উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজ উদ্দিন জানান, এই মারপিটের ঘটনা আমি জেনেছি। স্থানীয় সাংসদ এলাকায় এলে এই বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ