রাণীনগরে মাঠে মাঠে বের হতে শুরু করেছে আমন ধানের শীষ || বাম্পার ফলনের সম্ভবনা

আপডেট: অক্টোবর ২৫, ২০১৯, ১:০৭ পূর্বাহ্ণ

নওগাঁ প্রতিনিধি


রাণীনগরের আমন খেত-সোনার দেশ

নওগাঁর রাণীনগরে চলতি আমন মৌসুমে কৃষি বিভাগের নির্ধারনকৃত লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অতিরিক্ত ৪ হাজার ৮০ হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষ হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবারও বাম্পার ফলনের আশা করছে কৃষি বিভাগ ও কৃষকরা
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদফতরের দেয়া তথ্য মতে, এ বছর আমন মৌসুমে ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছিল ১৪ হাজার ৪৫ হেক্টর। বিপরীতে উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে এ বছর আমন চাষ হয়েছে ১৮ হাজার ১ শ ২৫ হেক্টর জমিতে। খরিপ২/২০১৯ রোপা আমন আবাদের আওতায় উল্লেখিত পরিমান জমিতে আমন ধানের আবাদ হয়েছে। বর্তমানে উপজেলার বিভিন্ন মাঠের আমনধানে শীষ ফুটতে শুরু করেছে। তবে এখন পর্যন্ত আবহাওয়া আমনধানের অনুকূলে রয়েছে বলে জানায় কৃষি অফিস।
উপজেলার শিয়ালাগ্রামের কৃষক ছলিম উদ্দিন বলেন, ধানের শীষ বের হতে শুরু করেছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকালে এবার বাম্পার ফলন আশা করছি। কিন্তু ধানের সঠিক দাম পাওয়ার জন্য কৃষকদের দিকে সরকারের যত্নসহকারে জোরালো নজর দেওয়া উচিত।
কাটরাশইন গ্রামের কৃষক রনজিত সাহা বলেন, আশা করছি এবারও প্রকৃতি ও আবহাওয়া শেষ পর্যন্ত আমনধানের অনুকূলে থাকলে এবারও ধানের বাম্পার ফলনের আশা করছি। মাঠে ধানের শিষ যে ভাবে ফুটতে শুরু করেছে তাতে ফলন অনেকটাই ভালো হবে বলে আমি আশা করছি।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ শহীদুল ইসলাম বলেন, চাষকৃত ধানের মধ্যে উন্নত ফলনশীল উফশী ও স্থানীয় জাতের মধ্যে উল্লেখযোগ্য চিনি আতপ এবং বিন্না ফুল উল্লেখযোগ্য। তবে যদি কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ আঘাত না হানে এবং আবহাওয়া অনুকূলে থাকে তাহলে চলতি মৌসুমেও কৃষকরা আমনধানের বাম্পার ফলন পাবেন। এছাড়াও ধানের সকল রোগ সম্পর্কে কৃষকদের মাঝে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করা, আলোচনা সভা ও আলোক ফাঁদ প্রদর্শন কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। আমনধান কৃষকদের ঘরে না ওঠা পর্যন্ত এই সব কার্যক্রম চলবে। প্রতি বছরের চেয়ে এবারও আমনধানের ফলন অনেক বেশি হবে বলে আমি আশাবাদি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ