রাবিতে দ্রুত উপউপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ নিয়োগের দাবি

আপডেট: জুলাই ১৬, ২০১৭, ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ

রাবি প্রতিবেদক


রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) প্রায় চার মাস ধরে উপউপাচার্য ও দুই মাস ধরে কোষাধ্যক্ষ পদ শূন্য রয়েছে। এতে প্রশাসনিক বিভিন্ন ক্ষেত্রে অচলাবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে উল্লেখ করে দ্রুত পদ দু’টি পূরণ করতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। গতকাল শনিবার দুপুরে সমিতির পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘গত চার মাসের অধিক সময় ধরে উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ পদ শূন্য রয়েছে। এর ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ক্ষেত্রে, বিশেষভাবে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে মারাত্নক অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। এই অচলাবস্থা থেকে মুক্তি পেতে ১৪ জুলাই সন্ধ্যা ৭টায় সমিতির কার্যকরী সংসদের সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় অবিলম্বে উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ নিয়োগ প্রদানের জন্য রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় আচার্য মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সবিনয়ে অনুরোধ জানানো হয়।’
গত ১৯ মার্চ উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ মিজানউদ্দিন ও উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী সারওয়ার জাহানের মেয়াদ শেষ হয়। এর প্রায় দুই মাস পর ৭ মে নুতন উপাচার্য হিসেবে অধ্যাপক আব্দুস সোবহানকে নিয়োগ দেয়া হলেও উপ-উপাচার্য পদ পূরণে কোনও উদ্যোগ নেয়া হয়নি। এরপর ৫ মে কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক সায়েন উদ্দিন আহমেদের মেয়াদ শেষ হয়।
শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বলেছেন, যেখানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে দু’জন উপ-উপাচার্য (প্রশাসনিক ও শিক্ষা) নিয়োগ দেয়া হয়। সেখানে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে মাত্র একজন উপ-উপাচার্য নিয়োগ দেয়া হয়। এতে উপাচার্যের ওপর চাপ বেশি পড়ে এবং প্রশাসনিক কাজে ধীরগতি দেখা দেয়। কিন্তু সে পদও খালি রয়েছে গত চার মাস থেকে। এছাড়া কোষাধ্যক্ষ না থাকায় দফতরের রুটিন ওয়ার্কগুলো থমকে আছে।
শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেন, ‘বর্তমানে কোষাধ্যক্ষ না থাকায় বেশি সমস্যা হচ্ছে। শিক্ষকদের গ্রেড উন্নয়ন থেকে শুরু করে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে ব্যাঘাত ঘটছে। এছাড়া উপউপাচার্য না থাকায় উপাচার্যের ওপর চাপ দিন দিন বাড়ছে। তাই আমরা রাষ্ট্রপতির কাছে দ্রুত এ পদ পূরণের দাবি জানিয়েছি।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ