রাবিতে হিমেলের স্মরণে শিল্পকর্ম প্রদর্শনী

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২২, ১০:৪১ অপরাহ্ণ

রাবিতে শিল্পকর্ম প্রদর্শনী শিক্ষার্থীরা

রাবি প্রতিবেদক:


ট্রাকচাপায় নিহত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষার্থী মাহমুদ হাবিব হিমেলের স্মরণে শিল্পকর্ম প্রদর্শনীর আয়োজন করেছেন তার শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার (৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টায় নির্মাধীন বিজ্ঞান ভবনের সামনে হিমেল নিহত হওয়ার স্থানে দিনব্যাপী এই শিল্পকর্ম প্রদর্শনীর আয়োজন করেন তারা।

এর আগে তার শিক্ষার্থীরা নিহত হওয়ার স্থানে ৪ দিনের আর্ট ক্যাম্পের আয়োজন করেছিলেন। ক্যাম্পেইন থেকে সৃষ্ট শিল্পকর্ম এবং হিমেলের হাতে গড়া আগের শিল্পকর্মগুলো নিয়ে আজকের প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে।

এদিন ঘটনাস্থল ঘুরে দেখা যায়, শিল্পকর্ম প্রদর্শনীতে শিল্পীরা হিমেলকে নিয়ে নানা ধরনের ছবি এঁকেছেন। তারমধ্যে অন্যতম হলো, ট্রাকের সামনে পড়ে থাকা নিহত হিমেলের মর্মান্তিক ছবি, হিমেলের হাস্যজ্বল চেহারার ছবি, যে ট্রাকে সে নিহত হয়েছে তার নেমপ্লেট, হিমেল তোর মাথা খাবো, টায়ারের রং লাল কেন?, তার মাকে নিয়ে অনেক ছবিসহ প্রায় শতাধিক চিত্রকর্ম সেখানে প্রদর্শন করা হয়। এছাড়াও হিমেলের নিজহাতে গড়া শিল্পকর্মগুলো প্রদশনীতে রাখা হয়েছে।

তার সহপাঠীরা বলছেন, এই শিল্পকর্ম প্রদর্শনীর মাধ্যমে তাদের হাস্যজ্জ্বল সহপাঠী হিমেলকে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছেন তারা। পাশাপাশা এঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদও জানিয়েছেন।

হিমেলের সহপাঠী কাদিরুল ইসলাম কনিক বলেন, আমরা আমাদের বন্ধুকে হারিয়ে শোকাহত। আমরা শিল্পী, আমাদের শিল্পকর্মের প্রদর্শনীর মাধ্যমে প্রতিবাদ জানাচ্ছি। প্রশাসনের কালো চোখ, নিরাপদ সড়ক ও অসামাজিক কার্যকলাপের প্রতিবাদ স্বরূপ আজকের এই প্রদর্শনীর আয়োজন। আমরা চারদিন যাবত আর্টক্যাম্প করেছি। এই চারদিনে হিমেলের জীবনের বিভিন্ন প্রতিফলক তুলে ধরার চেষ্টা করছি।

প্রদর্শনীর বিষয়ে জানতে চাইলে চারুকলা অনুষদের চিত্রকলা, প্রাচ্যকলা ও ছাপচিত্র বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী আল আমিন ইসলাম রওনক বলেন, এই শিল্পকর্ম প্রদর্শনীটি আজ দিনব্যাপী চলবে। প্রদর্শনীটিতে শতাধিক চিত্রকর্ম রয়েছে। পাশাপাশি কিছু ভাস্কর্য এবং হিমেলের ছাত্রাবস্থায় করা কাজও রয়েছে। এছাড়া আজ দুপুরে পারফর্মিং আর্টের মাধ্যমে হিমেলের মৃত্যুর সেই ভয়াবহ ‘হত্যাকান্ডটি’ ফুটিয়ে তোলা হবে বলে জানান তিনি।

জানতে চাইলে প্রদর্শনী দেখতে আসা নুসরাত জাহান কান্তা নামের এক দর্শনার্থী বলেন, আমরা হিমেল ‘হত্যাকান্ডটি’ স্বচক্ষে দেখিনি। তবে আজ চারুকলা শিক্ষার্থীদের এই প্রদর্শনীর মাধ্যমে বুঝতে পারছি সেটি আসলে কতোটা ভয়াবহ ছিলো। পাশাপাশি চারুকলার শিক্ষার্থীরা তাদের বন্ধুর জন্য এখন পর্যন্ত যেভাবে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন এটি আসলে অনেক প্রশংসনীয়। বন্ধুর বিপদে আমাদের এক হয়ে কাজ করা দরকার তারই এটি একটি অন্যতম উদাহরণ।

এর আগে, গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টায় রাবির হবিবুর রহমান হল সংলগ্ন রাস্তায় বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রাফিক ডিজাইন, কারুশিল্প ও শিল্পকলার ইতিহাস বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মাহমুদ হাবীব হিমেল ভবন নির্মাণ কাজে ব্যবহৃত নির্মাণ সামগ্রী বহণকারী এক ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে নির্মমভাবে নিহত হন।

এ ঘটনার পরে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা পাঁচ ট্রাকে আগুন দেওয়াসহ বিভিন্নভাবে প্রতিবাদ কর্মসূচি করেন। শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন দাবি জানালে তোপের মুখে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার তাদের সকল দাবি মেনে নেয় এবং ইতোমধ্যে এর কিছু কিছু বাস্তবায়নও করেছেন তিনি। হিমেল ‘হত্যাকান্ডের’ পর থেকে এখনও আলপনা এবং জলরঙে ছবি এঁকেসহ নানাভাবে প্রতিবাদ কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা।