রাবির বহিস্কৃত শিক্ষার্থী ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার

আপডেট: জুন ৩০, ২০২২, ১২:৫৫ পূর্বাহ্ণ

রাবি প্রতিনিধি:


রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) আইন বিভাগের শ্রেণিকক্ষে শিক্ষিকাকে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় বহিস্কৃত শিক্ষার্থী আশিক উল্লাহকে গ্রেফতার করেছে মতিহার থানা পুলিশ। বুধবার (২৯ জুন) বিকেলে নগরীর মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার আলী তুহিন তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, বুধবার দুপুরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক আসমা সিদ্দিকা হয়রানি, লাঞ্ছনা ও হুমকির অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেছেন। সেই প্রেক্ষিতে মামলার আসামী আশিক উল্লাহকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মামলার এজহারে সূত্রে জানা যায়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের চতুর্থ বর্ষে ক্লাস চলাকালে একই বিভাগের মাসটার্সের শিক্ষার্থী আশিকউল্লাহ শ্রেণিকক্ষে ঢুকে হয়রানিমূলক ও মানহানিকর কথাবার্তা বলে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে। তাকে ক্লাস থেকে বের হয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিলে সে রুমের দরজা বন্ধ করে আমাকে বাহিরে যেতে বাঁধা দেয়। এ সময় ক্লাসে উপস্থিত চতুর্থ বর্ষের ছাত্ররা দরজা খুলে দিয়ে আমাকে বাইওে যেতে সাহায্য করে। এঘটনাকে কেন্দ্র করে বিভাগে চরম অস্থিরতা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়। তাছাড়া এমন হীন কর্মকাণ্ডের কারণে বিভাগের শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে আন্দোলন পালনকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কাজ কর্ম ও আইন শৃঙ্খলার অবনতি ঘটেছে।

এছাড়া আশিকউল্লাহ তার ফেসবুক পেইজ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কুৎসা রটনা, মানহানিকর ও অশালীন উক্তি ও বক্তব্য প্রকাশ করার মাধ্যমে আমাকেসহ আইন বিভাগের অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দকে সামাজিক ও একাডেমিক ভাবে হেয় প্রতিপন্ন করেছে। এমনকি আমাকে মুঠোফোনেও বিভিন্ন ভাবে হয়রানি ও হুমকি প্রদান করায় নিজের নিরাপত্তা চেয়ে এ মামলা করেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক বলেন, এই শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে হয়রানি ও হুমকির অভিযোগ আগেও ছিল। এর আগে সে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেষ্টাসহ বিভাগের শিক্ষক ও সহপাঠীদের নানাভাবে হয়রানি করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। একইভাবে বুধবার নিজ বিভাগের ক্লাস রুমে শিক্ষিকাকে লাঞ্ছিত করার প্রেক্ষিতে ক্যাম্পাসে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি হওয়ায় শিক্ষার্থীদের দাবির প্রেক্ষিতে আশিক উল্লাহ নামের অভিযুক্ত শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে।

প্রক্টর বলেন, হয়রানি, হুমকি ও লাঞ্ছনার ঘটনায় নিজের নিরাপত্তা চেয়ে থানায় অভিযোগের ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাছাড়া এ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে সকল অভিযোগ বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা কমিটিতে গিয়েছে। শিগগিরই এবিষয়ে কার্যকরী ব্যবস্থা নিবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এর আগে, বুধবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক বেগম আসমা সিদ্দিকা ৪র্থ বর্ষের ক্লাস নেওয়ার সময় কক্ষে ঢুকে তাকে নানাভাবে হয়রানিমূলক ও মানহানিকর কথাবার্তা বলে লাঞ্ছিত করেন। ফলে বিভাগের শিক্ষার্থীরা প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ হয়ে আন্দোলন শুরু করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হয়ে এমন হীন কাজের দায়ে তাকে বহিষ্কারের দাবি জানান তারা। পরে ছাত্র-ছাত্রীদের আন্দোলন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সুষ্ঠু পরিবেশ রক্ষার্থে তাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ