রাবি শিক্ষক জলির ‘আত্মহত্যা’ || পুলিশি হেফাজতে সহকর্মীকে জিজ্ঞাসাবাদ

আপডেট: নভেম্বর ৫, ২০১৬, ১২:১০ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক



রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আকতার জাহান জলির আত্মহত্যার ঘটনায় তার এক সহকর্মীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নিয়েছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নগরীর তালাইমারী এলাকা থেকে তাকে মহানগর গোয়েন্দা কার্যালয়ে নেয়া হয়। গতকাল শুক্রবার রাতে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছিল।
ওই সহকর্মীর নাম আতিকুর রহমান রাজা। তিনি একই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সহকারী প্রক্টর। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, জলির ফোনরেকর্ড থেকে তথ্য পাওয়া গেছে তার সঙ্গে আতিকুর রহমানের নিয়মিত যোগাযোগ হতো। জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, জলির মানসিক অবস্থা সম্পর্কে জানতেন তার সহকর্মী আতিকুর রহমান। তিনি চাইলে আত্মহত্যা থেকে জলিকে নিবৃত্ত করতে পারতেন। জলির আত্মহত্যায় আতিকুর রহমান কোনোভাবে প্ররোচনা দিয়েছিলেন কি না তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।
মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার আল-আমিন বলেন, ‘রাবি শিক্ষক আকতার জাহান জলির আত্মত্যায় প্ররোচনার মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ওই বিভাগের শিক্ষক আতিকুর রহমানকে এখানে (গোয়েন্দা কার্যালয়) আনা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। জিজ্ঞাসাবাদে তার কাছ থেকে কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। তবে তথ্যগুলো এখনো অস্পষ্ট। আমরা পরিষ্কার হওয়ার জন্যে আরো জিজ্ঞাসাবাদ করছি। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে ওই মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হবে কি না।’
প্রসঙ্গত, গত ৯ সেপ্টেম্বর বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের জুবেরি ভবনের ৩০৩ নম্বর কক্ষ থেকে শিক্ষক আকতার জাহান জলির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। আকতার জাহান ওই কক্ষে একাই থাকতেন। তার লাশ উদ্ধারের দিন কক্ষে একটি চিরকুট পাওয়া যায়। চিরকুটে উল্লেখ করা হয়, তার এই আত্মহত্যার জন্য কেউ দায়ী নয়। এ ঘটনায় পরদিন আকতার জাহানের ছোট ভাই কামরুল হাসান আত্মহত্যার প্ররোচণার অভিযোগে অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে মতিহার থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।