রামেক হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু, ভর্তি ২৫

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২১, ২০২২, ১১:০৯ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক তরুণের মৃত্যু হয়েছে। তার নাম রাকিবুল ইসলাম (২২)। বাড়ি পাবনার ঈশ্বরদীতে। তিনি রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের কর্মচারী ছিলেন। মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। প্রায় দুই বছর পর রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কোনো ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হলো।

রাকিবুল ইসলামের স্বজন শম্পা খাতুন জানান, ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ার ১২ দিনের মাথায় রাকিবুল মারা গেছেন। এক মাস হলো রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে চাকরিতে যোগদান করেছিলেন। গত জানুয়ারিতে তিনি বিয়ে করেন। বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টার দিকে তাকে দাফন করা হয়েছে।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গত শনিবার বিকেলে রাকিবুলকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। পরদিন বেলা দুইটায় তাকে হাসপাতালের আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। মঙ্গলবার বিকেলে সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

আইসিইউ ইনচার্জ আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, রাকিবুল তীব্র জ্বর, মাথা ও পেটব্যথা নিয়ে নিজ উপজেলার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। গত শনিবার সেখান থেকে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। তার প্রস্রাব কম হচ্ছিল। ওয়ার্ডের সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক কিডনির কার্যক্ষমতা পরীক্ষা করে স্বাভাবিকের চেয়ে চার গুণ খারাপ অবস্থায় পান। এর ফলে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে পাঠিয়ে দেন। নিয়ম অনুযায়ী সব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল। ১০৬ ডিগ্রি পর্যন্ত জ্বর ছিল। হঠাৎ করে গতকাল বিকেলে তার মৃত্যু হয়। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রায় দুই বছর পর এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হলো।

আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, এডিস মশাবাহিত রোগটি ঢাকা ও কক্সবাজারের পর সারা দেশে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে। একটু সচেতন হলে সবাই মিলে এটা প্রতিরোধ করা সম্ভব। সরকারিভাবে ডেঙ্গু প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি প্রচার করা হচ্ছে।

এদিকে বর্তমানে আরও ২৫ জন রোগী ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এর আগের দিন এই সংখ্যা ছিল ১৯ জন। অর্থাৎ ২৪ ঘণ্টায় রোগী বেড়েছে ৬ জন।

এদিকে রামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে ২৫ জন রোগী ভর্তি আছেন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ৭ জন। আগের ডেঙ্গু রোগী ছিলেন ১৮ জন। সব মিলিয়ে বর্তমানে ২৫ জন ডেঙ্গো রোগী এখন চিকিৎসা নিচ্ছেন। এছাড়া গেল ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ার পর ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ৬ জন রোগী।

রামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে- হঠাৎ করেই বেড়েছে ডেঙ্গু রোগী সংখ্যা। আর অধিকাংশই আসছেন পাবনার রূপপুর ও ঢাকা থেকে।
রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তদের ৪টি ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে। তবে চিকিৎসাধীন কোনো রোগীর অবস্থার অবনতি ঘটেলে তাকে দ্রুততার সাথেই আইসিইউতে স্থানান্তর করা হচ্ছে।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, আক্রান্তরা বেশির ভাগ পাবনা ও ঢাকার। পাবনার ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের সবাইও সম্প্রতি ঢাকা ঘুরে এসেছেন। তবে রাজশাহী মহানগরীর বাসিন্দাদের এখন পর্যন্ত কেউ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হননি। এ ব্যাপারে সতর্ক রয়েছেন বলে জানান রামেক হাসপাতালের পরিচালক।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ