রাসিক কর্মচারীদের আন্দোলন স্থগিত ।। মেয়র বুলবুলকে সাত দিনের আলটিমেটাম

আপডেট: জুলাই ১৩, ২০১৭, ১:০২ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) দৈনিক মজুরিভিত্তিক কর্মচারীরা তাদের আন্দোলন স্থগিত করেছেন। গতকাল বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে তারা নিজ নিজ কাজে যোগ দিয়েছেন। তবে সব দাবি বাস্তবায়নে সিটি মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকে সাত দিনের আলটিমেটাম দিয়েছেন তারা।
গতকাল বুধবার দুপুরে মেয়র বুলবুল তার দফতরে আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়া শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। এ সময় শ্রমিক নেতারা মেয়রকে এই আলটিমেটাম দেন। এরপর আন্দোলন সাত দিনের জন্য স্থগিত করা হয়। পরে নগর ভবনের প্রধান ফটক, গ্যারেজ ও রাসিক নিয়ন্ত্রিত শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানার তালা খুলে দেয়া হয়।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, মহানগর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, রাসিকের কাউন্সিলরবৃন্দ, কর্মকর্তাগণ ছাড়াও অন্যান্য গণমান্য ব্যক্তিবর্গ।
রাসিক কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আজমীর আহমেদ মামুন বলেন, মেয়রের সঙ্গে আলোচনাতেও তারা নিজেদের ১১ দফা দাবি তুলে ধরেছেন। মেয়র তাদের সব দাবি মেনে নেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। শুধু বেতন নিয়ে একটু সমস্যা আছে। সেটাও যৌক্তিক পর্যায়ে রাখার আশ্বাস দিয়েছেন মেয়র। সব দাবি বাস্তবায়নে মেয়রকে ৭ দিনের সময় দেওয়া হয়েছে।
আজমীর আহমেদ জানিয়েছেন, ইতোমধ্যে চাকরিচ্যুত কর্মচারীদের চাকরিতে ফেরানোরও আশ্বাস দিয়েছেন মেয়র। এছাড়া নতুনভাবে কাউকে শোকজ কিংবা চাকরিচ্যুত করা হবে না বলেও তিনি আশ্বাস দিয়েছেন। এগুলোও কর্মচারীদের দাবি ছিল। এসব দাবি বাস্তবায়ন না হলে আগামি ১৯ তারিখের পর ফের আন্দোলন শুরু করা হবে বলেও জানান এই শ্রমিক নেতা।
রাসিকের কর্মচারীরা তাদের ১১ দফা দাবি নিয়ে গত ১২ জুন মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। ওই মানববন্ধনের পর গত ১৯ জুন তালা দিয়ে কর্মবিরতি কর্মসূচিও পালন করা হয়। ওই দিন আন্দোলনরত কর্মচারীরা ঘোষণা দিয়েছিলেন, দাবি আদায় না হলে ৯ জুলাই থেকে লাগাতার কর্মবিরতি পালন করা হবে। ফলে ওই দিন থেকেই তারা সেই কর্মসূচি শুরু করেছিলেন।
আন্দোলনের জেরে তালা দেয়ায় এ ক’দিন দর্শনার্থীরা চিড়িয়াখানায় ঢুকতে পারেননি। বুধবার তালা খোলার পর দর্শনার্থী ঢোকানো হচ্ছে চিড়িয়াখানায়। আন্দোলনের সময় নগরীর সেকেন্ডারি ডাম্পিং স্টেশন থেকেও কোনো আবর্জনা তুলে নিয়ে যাওয়া হয়নি। এতে পুরো নগরী পরিণত হয় আবর্জনার ভাগাড়ে। আন্দোলন স্থগিতের পর কর্মচারীরা আবর্জনা সরাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন রাসিকের প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মো. মামুন।
রাসিক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি দুলাল শেখ জানান, গত বছরের ২৪ মে অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক পরিপত্রে সিটি করপোরেশনের দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে নিয়োগপ্রাপ্ত দক্ষ নিয়মিত কর্মচারীদের দৈনিক ৫০০ টাকা এবং অদক্ষ অনিয়মিত কর্মচারীদের প্রতিদিন ৪৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু গত এক বছরেও করপোরেশন কর্মচারীদের দৈনিক মজুরি বাড়ায়নি।
তবে আন্দোলনের পর মেয়র তাদের এই বেতন পুরোপুরি দিতে সম্মত না হলেও যৌক্তিক পর্যায়ে রাখার আশ্বাস দিয়েছেন। কর্মচারীদের অন্য দাবিগুলোর মধ্যে কয়েকটি হলো, স্থায়ী কর্মচারিদের জ্যৈষ্ঠতার ভিত্তিতে পদোন্নতি, স্থায়ী কর্মচারীদের গৃহ নির্মাণের ব্যাংক ঋণের ব্যবস্থা করা, মৃত ও অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারিদের পোষ্যদের চাকরি প্রদান এবং মজুরিভিত্তিক কর্মচারিদের চাকরি স্থায়ীকরণ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ