রাসিক মেয়র লিটনের উদ্যোগে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর ১০৯টি পরিবার পেয়েছে পাকা বাড়ি

আপডেট: September 27, 2020, 10:22 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের উদ্যোগে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর ১০৯টি পরিবার পেয়েছে পাকা বাড়ি। সিটি করপোরেশনের কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট শাখার কমিউনিটি হাউজিং ফান্ড থেকে গৃণ নির্মাণ ঋণের মাধ্যমে এই বাড়িগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। রোববার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত মহানগরীর ১৮ ও ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে কয়েকটি বাড়ি পরিদর্শন করেছেন সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।
সকাল ১১টায় প্রথমে ১৮নম্বর ওয়ার্ডের সাওতালপাড়া সিডিসি‘র নাহিদা বেগমের নবনির্মিত বাড়ি পরির্দশন করেন মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এ সময় নাহিদা বেগম মেয়রকে জানান, সিডিসি’র সহায়তায় প্রথমে একটি গাভী ক্রয় করে খামারের কার্যক্রম করেন। বতর্মানে তার খামারে চারটি গাভী আছে। চারটি গাভী থেকে প্রতিদিন ৮০ কেজি দুধ বিক্রি করে ভালো আয় করেন। এছাড়া গৃহ নির্মাণ ঋণ নিয়ে পুরাতন ছাপড়া বাড়ি ভেঙে নতুন দুই বেড রুম, কিচেন, ডাইনিং রুম ও দুই বাথরুম তৈরি করেছেন। তিনি বলেন, পাকা বাড়ির সাথে গাভীর জন্য পাকা খামারও তৈরি করেছি। সিডিসি’র মাধ্যমেই আমার এই উন্নতি।
সিডিসি’র সঞ্চয় থেকে গাভীর খামার এবং গৃহনির্মাণ ঋণ থেকে দুতলা পাকা বাড়ি নির্মাণ করেছে নাহিদা। শুধু নাহিদা বেগম নয়, রাজশাহী সিটি করপোরেশন কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট কমিটির (সিডিসি) মাধ্যমে অক্টোম্বর ২০১৮ থেকে সেপ্টেম্বর ২০২০ সাল পর্যন্ত সিডিসি’র সদস্য ১০৯টি পরিবারের পাকা বাড়ি নির্মাণসহ অনেক সদস্যের জীবনমানের উন্নয়ন ঘটেছে।
১৮ নম্বর ওয়ার্ড পরিদর্শন শেষে ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে নির্মিত বাড়িগুলো পরিদর্শনে যান সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এই ওয়ার্ডে মেয়র উপকারভোগী সাবানা বেগম, মদিনা, মিরা, রোজিনা, জাহানারা ও শিলার বাড়ি পরিদর্শন করেন।
পরিদর্শনকালে ১৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শহিদুল ইসলাম, ২৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাসুদ রানা শাহিন, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী নূর-ইসলাম তুষার, চিফ কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট অফিসার আজিজুর রহমানসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও গণমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
১০৯টি পরিবারের মধ্যে ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে ৫টি, ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে ১০টি, ২২ নম্বর ওয়ার্ডে ৫টি, ৬ নম্বর ওয়ার্ডে ৬টি, ২৪নং ওয়ার্ডে ২০টি, ১৬নং ওয়ার্ডে ১০টি, ২৬নং ওয়ার্ডে ৩টি, ৩০নং ওয়ার্ডে ৬টি, ২নং ওয়ার্ডে ৯টি, ১৮নং ওয়ার্ডে ৭টি, ৩নং ওয়ার্ডে ৬টি, ২১নং ওয়ার্ডে ২টি, ২৭নং ওয়ার্ডে ৩টি, ১০নং ওয়ার্ডে ১টি, ৯নং ওয়ার্ডে ৩টি, ২৯নং ওয়ার্ডে ১১টি, ২৫নং ওয়ার্ডে ১৮টি। প্রতিটি পরিবারকে ২ লাখ টাকা করে মোট ২ কোটি ১৮ লাখ টাকা গৃহঋণ প্রদান করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের ৩০টি ওয়ার্ডে ১৮৫টি সিডিসি’র কার্যক্রম চলমান আছে। সিডিসি’র উদ্যোগে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য গলিপথের রাস্তা পাকাকরণ, ড্রেন ও স্লাব নির্মাণ, টিওবয়েল, ল্যাট্রিন, পেশাগত ও নেতৃত্ব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ, স্বল্পসুদে গৃহনির্মাণ ঋণ প্রদান করা হয়। রাসিক মেয়রের তত্ত্বাবধানে এই কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট শাখা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ