রাস্তায় ময়লা-আবর্জনার স্তুপ || নগরীবাসীর ভাবাবেগ ও মর্যাদার সাথে মেলে না

আপডেট: জুন ২১, ২০১৭, ১২:৩৩ পূর্বাহ্ণ

রাজশাহী মহানগরী পরিচ্ছন্ন শহর হিসেবে ইতোমধ্যেই সারা দেশে প্রশংসিত। রাজশাহীর আবহাওয়া অপেক্ষাকৃত কম দুষণমুক্ত- তার বিশ্ব স্বীকৃতিও আছে। সেই রাজশাহী মহানগরীকে নিয়ে রাজশাহীবাসীর ভাবাবেগ একটু অন্যরকম হবে এটাই স্বাভাবিক। এটি নাগরিকদের পরিশীলিত জীবন-যাপন ও রুচিবোধের সাক্ষ্যও দেয়Ñ যা রাজশাহী নগরীকে গৌরবান্বিত ও মর্যাদাপূর্ণ করেছে। কিন্তু সেই গৌরব ও মর্যাদা কি কালিমালিপ্ত হচ্ছে? এমন প্রশ্ন নগরবাসীর মধ্যে আসা খুবই স্বাভাবিক। কেননা নগরীর সড়কগুলোতে নির্মাণ সামগ্রি আর আবর্জনাস্তুপের ছড়াছড়ি।
রাস্তার ওপর দিনের পর দিন আবর্জনার স্তুপ জমে থাকার সচিত্র একটি প্রতিবেদন দৈনিক সোনার দেশে প্রকাশিত হয়েছে।
প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, নগরীর রাস্তা জুড়ে ময়লা আর আবর্জনার স্তুপ। দেখে চেনার উপাই নেই এটি একটি রাস্তা। প্রায় দুই মাস আগের ড্রেন থেকে তোলা ময়লা-আবর্জনা রাস্তার ওপর স্তুপিকৃত করে রাখা হয়েছে, অপসারণের কোনো উদ্যোগ নেই। স্তুপিকৃত আবর্জনায় জন্মেছে বিভিন্ন গাছ-পালা। এরফলে যানবাহন চলাচলে যেমন সমস্যাÑ তেমনি সমস্যায় পড়তে হয় পথচারীদের। দুর্গন্ধ ছড়ায়, পরিবেশ দুষিত হয়। ময়লা- আবর্জনা নিয়ে চলে পশু-পাখিদের কাড়াকাড়ি। আবর্জনা ছড়িয়ে যায় পুরো রাস্তায়। বৃষ্টি হলে ড্রেন থেকে তোলা ময়লা পুনরায় ড্রেনের মধ্যে চলে যায়। এই পরিবেশ, এই পরিস্থিতি নগরবাসীর জন্য মোটেও কাম্য নয়।
কিন্তু সিটি করপোরেশন বিষয়টি নিয়ে বেশ উদাসীন। তা-ই যদি না হবে ড্রেন থেকে উত্তোলিত ময়লা অপসারণে একমাস বা দুমাস সময় লাগবে কেন? আমাদের জানা মতে রাসিক-এর লোকবল নেহাতই কম নয়, ঘাটতি নেই পরিবহন ব্যবস্থারÑ তা হলে এই পরিস্থিতি কেন? তা হলে সমস্যা কি রাসিক এর অভ্যন্তরীণ? এই তো সেদিনও সিটি করপোরেশনের এই পরিস্থিতি ছিল না। রাসিক সক্রিয় ছিল বলেই না রাজশাহী পরিস্কার-পরিচ্ছন শহরের খ্যাতি পেয়েছে? তবে রাসিক-এর অভ্যন্তরীণ সমস্যা যে আছে তা বোঝা যায়। পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলেই পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার বিষয়টি এড়িয়ে যান। অন্য কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেন। এর অর্থ দাঁড়াচ্ছে রাসিক-এর পরিস্কার পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা পদাধিকারি হলেও তাঁর কাজটি অন্য কেউ দেখছেন! যদি এমন হয় তা হলে বিষয়টি খুবই উদ্বেগজনক।
কর্তৃপক্ষের মধ্যে কোনো সঙ্কট-সমস্যা থাকলে তার দ্রুত সামধান হওয়াই বাঞ্ছনীয়। পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা একটি চলমান কার্যক্রম এবং অবশ্যই তা একটি টিমওয়ার্কের মাধ্যমে সম্পন্ন হয়। টিমওয়ার্কে কোনো ধরনের ব্যত্যয় ঘটলে কর্মসূচির মধ্যে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হবে এটাই স্বাভাবিক। সিটি করপোরেশনের সেই উদ্যম-উদ্যোগ, কাজের সমন্বয় ফিরে অসবে এটাই রাজশাহীবাসীর প্রত্যাশা। নগরবাসী তাদের প্রিয় শহর নিয়ে আবেগ, গৌরব ও মর্যাদা সমুন্নতই দেখতে চায়। নেতৃত্বের দুর্বলতায় গৌরব ও মর্যাদার অবনতি হোক তা কারুরই কাম্য নয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ