রাস্তা জুড়ে ময়লা-আবর্জনার স্তুপ || আবর্জনায় জন্মেছে গাছ-পালা

আপডেট: জুন ২০, ২০১৭, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


নগরীর চৌদ্দপাই-বুধপাড়া রাস্তার ড্রেনের আবর্জনা থেকে জন্মাছে গাছ। ফলে রাস্তাটির অধিকাংশ স্থান দখল হয়ে গেছে সোনার দেশ

রাস্তা জুড়ে ময়লা আর আবর্জনার স্তুপ। দেখে চেনার উপাই নেই এটি রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) একটি রাস্তা। প্রায় দুই মাস আগে এই রাস্তার পাশের ড্রেনের ময়লা-আবর্জনা পরিস্কার করে রাসিক। আর পরিস্কার করা সেই ময়লা-আবর্জনাগুলো রাখা হয় রাস্তার উপরে। ময়লা-আবর্জনা পড়ে থাকলেও পরিস্কারের কোন কথাই নেই কর্তৃপক্ষের।
শুধু তাই নয়, প্রায় একই সময়ে নগরীর অন্য এলাকায় ড্রেনের পরিস্কারের কাজ চলছিলো। এ নিয়ে জনসাধারণের সাময়িক সমস্যার কথা ভেবে রাসিকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, ড্রেনের ময়লা-আবর্জনাগুলো শুকাতে এক সপ্তাহের মত সময় লাগবে। তার পরে এগুলো তুলে নিয়ে যাওয়া হবে। মাত্র অল্প কিছু দিনের মধ্যে সাহেববাজার ও নিউমার্কেট এলাকার ড্রেন পরিস্কার করা ময়লা-অবর্জনা তুলে ফেলা হয়। তবে নগরীর চৌদ্দপাই এলাকা থেকে বুধপাড়া গণির মোড় এলাকার ড্রেন পরিস্কার করা ময়লা-আবর্জনা এখনো অপসারণ করেনি রাসিক। এর ফলে সেই স্তুপীকৃত আবর্জনায় জন্মেছে বিভিন্ন গাছ-পালা।
সরজমিনের গিয়ে, নগরীর চৌদ্দপাই এলাকার ড্রেনের ময়লাগুলো ফায়ার সার্ভিসের পাশের রাস্তার উপরে রাখা হয়েছে। আর বাকিগুলো রাখা হয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) রাস্তার পাশের বাগানের গাছপালার মধ্যে। তবে বুধপাড়া গণির মোড় এলাকার রাবির হরিজন কলোনি এলাকার মাঠের পাশের রাস্তার উপর ও একই এলাকার ইয়াসিনের বাড়ির সামনে ফেলে রাখা হয়েছে ড্রেন থেকে উত্তোলিত ময়লা-আবর্জনা।
স্থানীয়রা বলছেন, ময়লাগুলো থেকে দুর্গন্ধ বের হচ্ছে। এক সপ্তাহের মধ্যে আবর্জনা অপসারণের কথা বলা হলেও তা করা হয়নি। বরং এ আবর্জনা বৃষ্টির পানিতে ধুয়ে আবার ড্রেনেই নামছে। তাহলে ড্রেন পরিস্কার করে কী লাভ হলো? এ ধরনের অভিযোগ উঠেছে রাসিকের
নাজমা খাতুন নামের এক স্কুলছাত্রী জানায়, আবর্জনা রাখায় রাস্তাটি অনেক সরু হয়ে গেছে। রাস্তা পার হতে খুব বিরক্ত লাগে।
চৌদ্দপাই এলাকার বাসিন্দা আবদুস সালাম জানায়, দুই মাস আগে এই ড্রেন পরিস্কার করে রাসিক। কিন্তু নগরীর চৌদ্দপাই এলাকা থেকে বুধপাড়া গণির মোড় এলাকার ময়লা-আবর্জনাগুলো সরানো হয়নি।
এ ব্যাপারে রাসিক-এর প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মো. মামুন জানায়, এ বিষয়ে আমি তেমন কিছু বলতে পারছি না। আপনি প্রধান প্রকৌশলীর সঙ্গে কথা বলেন।
প্রধান প্রকৌশলীর আশরাফুল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমার জানা নেই। এ বিষয়ে খোঁজ নেয়া হবে। আর নাগরিক ভোগান্তি দূর করতে কয়েক দিনের মধ্যে রাস্তার উপরে ও পাশের ময়লা-আবর্জনাগুলো পরিস্কার করা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ