রিভিউ বিতর্কের পর হারলো ভারত, সিরিজ দক্ষিণ আফ্রিকার

আপডেট: জানুয়ারি ১৪, ২০২২, ৭:১৮ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক:


বৃহস্পতিবার কেপটাউন টেস্টের তৃতীয় দিন দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ডিন এলগারের লেগ বিফোরের সিদ্ধান্তকে ঘিরে যে ক্ষোভের আগুন দেখা গিয়েছিল বিরাট কোহলি, রবিচন্দ্রন অশ্বিনদের চোখে-মুখে, মাঠে তার প্রতিফল ঘটেনি শুক্রবার। যে কারণে জেতাও হয়নি ম্যাচ।

জোহানেসবার্গের পর কেপটাউন টেস্ট জিতে তিন ম্যাচের সিরিজটি নিজেদের করে নিয়েছে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। মাত্র ৩ উইকেট হারিয়েই ভারতের ছুড়ে দেওয়া ২১২ রানের লক্ষ্য তাড়া করে ফেলেছে ডিন এলগারের দল। যার সুবাদে সিরিজ জেতার পাশাপাশি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপেও মূল্যবান ২৪ পয়েন্ট পেয়েছে তারা।

এ নিয়ে চতুর্থবারের মতো প্রথম ম্যাচ জিতেও সিরিজ হারলো ভারত। সেঞ্চুরিয়নে প্রথম ম্যাচটি তারা জিতেছিল ১১৩ রানের ব্যবধানে। কিন্তু জোহানেসবার্গ ও কেপটাউনে একই ব্যবধানে হেরে সিরিজ খোয়ালো বিরাট কোহলির দল। দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ২০০৬-০৭ সফরেও একই ভাগ্যবরণ করতে হয়েছিল ভারতকে।

কেপটাউনে আগেরদিন ২ উইকেটে ১০১ রান করে খেলা শেষ করেছিল স্বাগতিকরা। আজ ম্যাচের চতুর্থ দিন জয়ের জন্য ১১১ রান বাকি থাকা অবস্থায় ব্যাটিং শুরু করে তারা। ম্যাচের নায়ক কেগান পিটারসেন (৮২) দলীয় ১৫৫ রানে সাজঘরে ফিরলেও বাকি কাজ সহজেই সারেন ফন ডার ডুসেন ও টেম্বা বাভুমা।

অশ্বিনের করা ৬৪তম ওভারের তৃতীয় বলে স্কয়ার লেগ দিয়ে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন দক্ষিণ আফ্রিকার সীমিত ওভারের ক্রিকেটের অধিনায়ক বাভুমা। তিনি অপরাজিত থাকেন ৩২ রানে। ডুসেনের ব্যাট থেকে আসে অপরাজিত ৪১ রান। এ দুজনের অবিচ্ছিন্ন জুটির সংগ্রহ ৫৭ রান।

আজকের সকালে ম্যাচে ফেরার যা সুযোগ ছিল ভারতের কাছে, তা সম্ভব হয়নি চেতেশ্বর পুজারার ফিল্ডিং ব্যর্থতায়। দিনের দশম ও ইনিংসের ৪০তম ওভারে স্লিপে দাঁড়িয়ে কেগানের ক্যাচ ছাড়েন পূজারা। তখন দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ ছিল ১২৬ রান। কেগান খেলছিলেন ৫৯ রানে।

সেখান থেকে দলীয় সংগ্রহে আরও ২৯ রান যোগ করে সাজঘরে ফেরেন কেগান। প্রথম ইনিংসে ৭২ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে তার সংগ্রহ ১১৩ বলে ৮২ রান। এরপর বাকি কাজ সারেন ডুসেন ও বাভুমা। প্রাণপণ চেষ্টা করেও এ জুটি ভাঙতে পারেনি ভারত।
টেস্ট সিরিজ শেষ হওয়ার পর এবার ওয়ানডে সিরিজে লড়বে ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকা। আগামী বুধবার (১৯ জানুয়ারি) শুরু হবে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। পরের দুই ম্যাচ হবে ২১ ও ২৩ জানুয়ারি।
তথ্যসূত্র: বাংলানিউজ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ