রিয়াল এবার বিক্রেতা

আপডেট: জুলাই ২৪, ২০১৭, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


রিয়াল ছেড়ে এবার অন্য দলে এই তিন তারকা। ফাইল ছবি

নেইমার কি যাচ্ছেন প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ে? অ্যালেক্সিজ সানচেজও কি থাকবেন আর্সেনালে? দলবদলের বাজারে এখন আর কান পাততে হচ্ছে না। গুঞ্জনগুলো গর্জন হয়ে সবাইকে জানিয়ে দিচ্ছে প্রতি মুহূর্তের ‘আপডেট’! কিন্তু এসব গুঞ্জনের মাঝে সবচেয়ে বড় বিস্ময় রিয়াল মাদ্রিদের চুপচাপ বসে থাকা। খেলোয়াড় কিনে নয়, এবার রিয়াল শিরোনামে আসছে একের পর এক খেলোয়াড় বিক্রি করে!
একসময় দলবদলের বাজার মানেই যেন রিয়াল মাদ্রিদের দম্ভ প্রকাশের জায়গা। নতুন কোনো তারকার আবির্ভাব, কিংবা বিশ্বসেরা হওয়ার সম্ভাবনা জাগাচ্ছেন কেউ-সঙ্গে সঙ্গে রিয়ালের নাম জুড়ে যেত তাঁর সঙ্গে। একের পর এক দলবদলের বিশ্ব রেকর্ড ভাঙা অভ্যাসে পরিণত করেছিল তারা। এবার কিন্তু উল্টো কিছুই দেখা যাচ্ছে।
স্পেনের রাজধানীতে এবারের বাজারের তাপ পৌঁছাচ্ছে সামান্যই। সব সময় তারকা ঠাসা দল বানাতে আগ্রহী ‘লস ব্লাঙ্কো’রা এবার যেন ঘর সাফ করার মিশনে নেমেছে। দলবদলের অঙ্কটা ৬৭ নাকি ৮০ মিলিয়ন ইউরো, এ নিয়ে প্রশ্ন থাকতে পারে। কিন্তু স্ট্রাইকার আলভারো মোরাতা যে চেলসিতে যাচ্ছেন, তাতে আর সন্দেহ নেই। ইতিমধ্যে ধারে বায়ার্ন মিউনিখে পাড়ি জমিয়েছেন কলম্বিয়ান তারকা হামেস রদ্রিগেজ। আর ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর ‘ঘরে ফেরা’র কাহিনি এখনো রয়েছে অমীমাংসিত অবস্থায়। যদিও ‘লস ব্লাঙ্কোস’ বস জিনেদিন জিদান দৃঢ় কণ্ঠে ঘোষণা দিয়েছেন, ‘রোনালদো কোথাও যাচ্ছেন না।’
ঘর ফাঁকা করার মিশনটা অবশ্য অনুমিতই ছিল। তারকার ভিড়ে গত মৌসুমে নিয়মিত একাদশে সুযোগ পাননি হামেস, মোরাতা কিংবা ইসকোর মতো খেলোয়াড়েরা। পাইপলাইনে মজুত এনজো, মার্কো এসেনসিও, কোভাচিচ, ভাসকেজের মতো উঠতি তারকারা। বেঞ্চ গরম করার চেয়ে খেলোয়াড়দের ছেড়ে দেওয়াই শ্রেয় ভাবছেন জিদান। তবে সেখানে ব্যবসায়িক প্রজ্ঞার কমতি নেই। হামেসকে বিক্রির পরিবর্তে ধারে পাঠালেও বার্ষিক ৫ মিলিয়ন প্রাপ্তি নিশ্চিত করাতেই তার প্রমাণ। নতুন প্রতিভার খোঁজে দলে নিয়েছে থিও হার্নান্দেজ ও সেবায়োসকে। আবার ডান প্রান্তে কাজে লাগাতে না পারা দানিলোকে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে ৩০ মিলিয়ন ইউরোতে। ছেলে এনজোকে ছেড়ে দিয়েছেন জিদান। মারিয়ানোর মতো উঠতি স্ট্রাইকারকে বিক্রি করেও ৮ মিলিয়ন বাগিয়েছে রিয়াল।
রিয়ালের উল্টো অবস্থা বার্সেলোনার। গেল মৌসুমের শিরোপা-স্বল্পতার কারণে এবার আটঘাট বেঁধেই বাজারে নেমেছে কাতালানরা। দলবদলের শুরু থেকেই তিন পজিশনে শূন্যস্থান পূরণ করতে চেয়েছিল তারা। রাইটব্যাকে এর মধ্যেই সেমেদোকে নিয়ে ফেলেছে বার্সা। মধ্যমাঠে ভেরাত্তি, আক্রমণে লিভারপুলের কুতিনহোকে পেলেই সফল ভাবতে পারত নিজেদের। কিন্তু সেসব বাদ দিয়ে উল্টো নেইমারকে নিয়ে ভাবতে হচ্ছে তাদের। ভালভার্দে হয়তো চাপটা ভালোই টের পাচ্ছেন। ম্যানেজারের মিউজিক্যাল চেয়ার খেলার ‘হটসিটে’ বসেই সামলাতে হচ্ছে নেইমারের মতো বড় তারকার দলবদল। খেলোয়াড় কেনার মিছিলে থাকা দলটি পিএসজির পেট্রো-ডলারের তোপে হারাতে বসেছে দলের সেরা তারকাগুলোর একজনকে। বার্ষিক ৩০ মিলিয়নের দানবীয় অফারের প্রলোভনে আসলেই নেইমার বার্সা ছাড়ছেন কি না, সে প্রশ্নের উত্তর অবশ্য সময়ের হাতে। আপাতত বার্সা চাইবে যেকোনো মূল্যে নেইমারকে ধরে রাখতে।
রিয়ালের এখন সেদিকে নজর না দিলেও চলছে। তারা যে এখন নিজেদের রূপ পাল্টাতে ব্যস্ত। রিয়াল যে বিক্রেতা!-প্রথম আলো অনলাইন