রূপপুর প্রকল্পের দুটি ক্রেনের ৬৫ লাখ টাকার কেবল চুরি, দশদিন পর মামলা

আপডেট: জানুয়ারি ২১, ২০২২, ৬:২৮ অপরাহ্ণ

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি :


পাবনার ঈশ্বরদীতে নির্মানাধীন রূপপুর প্রকল্পের অভ্যন্তরে জেটিতে মালামাল ওঠানামা করানোর কাজে ব্যবহৃত উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন দুটি বিদেশি ক্রেন থেকে ৬৫ লাখ টাকা মূল্যমানের ২৬৫ মিটার ‘অতি গুরুত্বপূর্ণ’ বৈদ্যুতিক কেবল চুরি হয়ে গেছে। চুরির ঘটনা ধরা পড়ার দশ দিন পর ঈশ্বরদী থানায় মামলা করা হয়েছে।

মামলাটি দায়ের করেছেন আছে’র ডাইরেক্টর অব সিকিউরিটি ভিএন তুরুটিন।
এদিকে এই কেবল চুরির পর থেকে গত ১২দিন যাবত রূপপুর প্রকল্পের নির্মাণ কাজের জেটিতে মালামাল ওঠানামা করানোর কাজ চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

রূপপুর প্রকল্পের ভেতরে বাইরে পুলিশ, নৌপুলিশ, সেনাবাহিনী, স্ব-স্ব ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব সিকিউরিটি ব্যবস্থাসহ কয়েক স্তরের নিরাপত্তা বলয় ভেদ করে এত গুরুত্বপূর্ণ ও মূল্যবান এই কেবল চুরি হওয়া নিয়ে প্রকল্প ও প্রকল্পের বাইরে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

রূপপুর প্রকল্প ও পুলিশ সূত্র জানায়, রূপপুর প্রকল্পের ভেতরে জাহাজের মালামাল ওঠানামা করানোর নির্ধারিত স্থানে থাকা দুটি ক্রেনে গত ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত কেবল রক্ষিত ছিল। গত ৯ জানুয়ারি ক্রেন দুটির পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার সময় ২৬৫ মিটার কেবল চুরির বিষয়টি প্রথম ধরা পড়ে। এই কেবলের মূল্য প্রায় ৬৫ লাখ টাকা বলে প্রকল্প সূত্র নিশ্চিত করেছে।

রূপপুর প্রকল্পের পরিচালক (সাইট) আশরাফুল ইসলাম জানান, এখানে প্রতিটি সাব কন্ট্রাক্টরের নিজস্ব সিকিউরিটি ব্যবস্থা রয়েছে। গত সপ্তাহে রূপপুর প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. শৌকত আকবর প্রকল্প এলাকায় এসে সেনাবাহিনীসহ বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে বৈঠক করে সবাইকে সতর্কতার সঙ্গে কাজ করার তাগিদ দেন।

এর পরেও এতবড় চুরির ঘটনা আমাদের অবাক করে দিয়েছে। ব্যতিক্রমি এই দামি কেবল সম্পর্কে যারা ধারণা পোষণ করেন তারা ছাড়া এই কেবল চুরি করার কথা নয়। তিনি বলেন, এত নিরাপত্তার মধ্যে এই চুরির ঘটনাটি অনভিপ্রেত ও দুঃখজনক।

রূপপুর প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. শৌকত আকবরকে একাধিকবার মোবাইলে কল করা হলেও তিনি সাড়া দেননি। ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, এ ধরনের কেবল সাধারণ কোনো চোরের চুরি করার কথা নয়। এই কেবল চুরির সঙ্গে যারা জড়িত তাদের হয়তো ওখানে নিয়মিত যাতায়াত আছে বা এ ধরনের যন্ত্র ও কেবল সম্পর্কে ধারণা আছে

। নইলে এতো গুরুত্বপূর্ণ জিনিস চুরি হলো কীভাবে? বিষয়টি খতিয়ে দেখতে পুলিশ ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে। ওসি বলেন, আছে’র ডাইরেক্টর অব সিকিউরিটি ভিএন তুরুটিন বাদি হয়ে গত বুধবার রাত ১১টার কিছু পরে এ ঘটনা উল্লেখ করে ঈশ্বরদী থানায় একটি এজাহার জমা দিয়েছেন। এজাহারটি মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়েছে।