রূপপুর বিদ্যুৎ প্রকল্পের মালামাল বহনে নির্মাণ হবে ২২ কিলোমিটার রেলপথ

আপডেট: জুলাই ১৯, ২০১৭, ১২:৪৭ পূর্বাহ্ণ

ঈশ্বরদী প্রতিনিধি


রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের ভারী মালামাল দ্রুত পরিবহনের জন্য নতুন করে ২২ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ করা হবে। ঈশ্বরদী বাইপাস টেক অব পয়েন্ট থেকে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প এলাকা পর্যন্ত নতুন রেলপথটি নির্মিত হবে। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য সার্বিক ট্রান্সপোর্ট ব্যবস্থাপনা সিস্টেম স্থাপনের লক্ষ্যেই এই উদ্যোগ বলে রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় অফিস সূত্র গতকাল মঙ্গলবার সোনার দেশকে জানিয়েছেন।
সূত্র জানায়, শুধু রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প পর্যন্ত মালবাহী ট্রেন সার্ভিস চালুর জন্য নতুন করে ২২ কিলোমিটার রেলপথ নির্মিত হবে। রেলপথটি নির্মাণে ব্যয় হবে ৩৩৯ কোটি টাকা। এর মধ্যে ব্রডগেজ থেকে ডুয়েল গেজে রূপান্তর করা হবে ১৭ দশমিক ৫২ কিলোমিটার। এছাড়াও সাড়ে চার কিলোমিটার লুপ লাইন, একটি বি শ্রেণির রেলওয়ে স্টেশন, সাতটি কালভার্ট, ১৩টি লেভেল ক্রসিং গেটসহ থাকবে সিগন্যালিং ব্যবস্থা।
রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য সিগন্যালিংসহ রেললাইন সংস্কার ও নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় আরো বেশ কিছু উদ্যোগ নেয়া হয়েছে, যাতে খুব সহজেই ঈশ্বরদী বাইপাস টেক অব পয়েন্ট থেকে রূপপুর পর্যন্ত ব্রডগেজ ও মিটার গেজ রেলপথে সংযোগ স্থাপিত হয়। ঈশ্বরদী ইয়ার্ডের ছয় কিলোমিটার ও লোকোসেডের দুই কিলোমিটার ব্রডগেজ লাইনকে ডুয়েল গেজে রূপান্তর করা হবে। ঈশ্বরদীর ৩৭ নম্বর লেভেল ক্রসিং গেট থেকে সাঁড়াগোপালপুর এলাকার পরিত্যক্ত পাইলট লাইন পর্যন্ত নতুন করে আরো ৯ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ করা হবে। এ ছাড়া প্রয়োজনীয় সিগন্যালিং ব্যবস্থার আধুনিকায়ন করা হবে। রূপপুর প্রকল্পের মালামাল স্বল্প সময়ে যাতে করে নিরাপদে পৌঁছানো যায় সেই উদ্যোগেই রেলপথ প্রকল্পটি হাতে নেয়া হচ্ছে।
পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার অসীম কুমার তালুকদার জানান, রূপপুর বাংলাদেশের মেগা প্রকল্প। প্রকল্পের ভারী মালামালও অনেক ব্যয়বহুল। রেলপথটি নির্মিত হলে মালামালগুলো নিরাপদে যথাসময়ে আমরা প্রকল্প এলাকায় পৌঁছাতে পারব। নিরাপত্তার কথা চিন্তা করেই বাংলাদেশ রেলওয়ে এই উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ