লকডাউন মানাতে মাঠে সরব রাণীনগর উপজেলা প্রশাসন

আপডেট: এপ্রিল ১৫, ২০২১, ১:১৩ অপরাহ্ণ

আব্দুর রউফ রিপন, নওগাঁ প্রতিনিধি:


নওগাঁর রাণীনগরে মহামারি করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে ও সর্বাত্মক কঠোর লকডাউন বাস্তবায়ন করতে উপজেলার মাঠে-ময়দানে সরব প্রশাসন। সাধারণ মানুষদের করোনা ভাইরাস সচেতনতায় ও মাস্ক বিহীন মানুষদের মাঝে মাস্ক বিতরণ অব্যাহত রেখেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুশান্ত কুমার মাহাতো ও সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. রাশেদুল ইসলাম।
বর্তমানে রাজশাহী বিভাগের মধ্যে নওগাঁ জেলা করোনা ভাইরাস সংক্রমণে হটস্পটে পরিণত হয়েছে। প্রতিদিনই হু হু করে বৃদ্ধি পাচ্ছে করোনায় আক্রান্ত মানুষদের সংখ্যা। রাণীনগর উপজেলাতেও করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই সংক্রমণের হাত থেকে উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষসহ সাধারণ মানুষদের সচেতন করতে, মাস্ক ব্যবহার ও অবশ্যই পালনীয় লকডাউনের বিধিগুলো সঠিকভাবে পালনে উদ্বুদ্ধ করতে প্রতিদিনই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারি কমিশনার (ভূমি) উপজেলার বিভিন্ন হাট, বাজার, জনমুখর স্থান ও বিভিন্ন পাড়া-মহল্লার মোড়ে মোড়ে গিয়ে মাস্কবিহীন মানুষদের বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ করছেন এবং অবশ্যই পালনীয় বিধিগুলো সম্পর্কে সচেতন করছেন। এছাড়া যে সব মানুষ লকডাউনের নিময় ভঙ্গ করে কোনো প্রয়োজন ছাড়াই অযথা বাহিরে চলাচল করছেন তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হচ্ছে। আশা করা হচ্ছে প্রশাসনের এই ধরনের কার্যক্রম অব্যাহত থাকলে আগামীতে করোনা সংক্রমনের হার এই উপজেলাতে অনেকটাই কম হবে।
সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো: রাশেদুল ইসলাম বলেন লকডাউন বাস্তবায়নে সরকারের জারি করা আইন মাঠ পর্যায়ে সফল ভাবে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে আমি সব সময় পুলিশ প্রশাসনকে সঙ্গে নিয়ে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করছি। প্রথমে মানুষদের সচেতন করার চেষ্টা করছি। আর যারা সরকারের দেওয়া নির্দেশনাকে অমান্য করছেন ও আইন বহির্ভুত কাজ করছেন তাদেরকে আইনের আওতায় এনে সচেতন করার চেষ্টা করছি। যতদিন লকডাউন আছে ততদিন এই কার্যক্রম অব্যাহত রাখা হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুশান্ত কুমার মাহাতো বলেন করোনার এই মহামারি থেকে বাঁচতে সর্বপ্রথম নিজেকে রক্ষা করতে হবে এরপর পরিবার ও আশেপাশের মানুষদের। নিজেকে সুরক্ষিত রেখেই অপরকে বাঁচাতে কাজ করতে হবে। যেহেতু করোনা ভাইরাসের চিকিৎসা অনেক ব্যয়বহুল ও সহজলভ্য নয় তাই এই মহামারি থেকে বাঁচতে অবশ্যই পালনীয় বিধিগুলো আমাদের সকলকে কঠোর ভাবে মানতে হবে এবং অন্যকে মানাতে চেষ্টা করতে হবে। আতঙ্ক নয় আমরা যার যার জায়গা থেকে যদি নিজেরাই সচেতন হই ও অবশ্যই পালনীয় বিধিগুলো সঠিক ভাবে মেনে চলি তবেই আমরা এই মহামারির হাত থেকে রক্ষা পেতে পারি। আর এই জন্যই অসচেতন মানুষদের সচেতন করতে ও সর্বাত্মক লকডাউন বাস্তবায়নে উপজেলা প্রশাসন মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে। এই ধরনের কর্মকান্ড আগামীতেও অব্যাহত থাকবে।