শক্তিশালী নিরাপত্তা নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হচ্ছে রাবি ক্যাম্পাস ।। ছয়শ সিসি ক্যামেরা স্থাপনের পরিকল্পনা

আপডেট: মার্চ ৪, ২০১৭, ১২:১১ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক



রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসকে শক্তিশালী নিরাপত্তা নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হচ্ছে। এক্ষেত্রে নিরাপত্তার বিষয়টি প্রাধান্য দিয়ে রাবি ক্যাম্পাসে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা (সিসি) স্থাপনের পরিকল্পনা করা হচ্ছে। প্রত্যেকটি অনুষদ ভবন, টুকিটাকি চত্বর, প্যারিস রোড, চারুকলা চত্বর, শহিদ মিনার, বধ্যভূমি, আবাসিক হল ও শিক্ষকদের আবাসিক এলাকাসহ গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় বসানো হবে এ সিসি ক্যামেরা।
বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চার বছর মেয়াদি প্রায় ৩৬৪ কোটি টাকার যে উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে, এরই আওতায় ক্যাম্পাসের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে ৬০০ সিসি ক্যামেরা বসানোর পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এতে খরচ হবে আড়াই থেকে তিন কোটি টাকা। খুব দ্রুতই এ প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য কাজ শুরু হবে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।
সিসি ক্যামেরার বিষয়ে সমাজকর্ম বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী রাজু আহমেদ বলেন, ‘ক্যাম্পাস সিসি টিভির আওতায় থাকলে অপরাধ প্রবণতা কমবে। ফলে শিক্ষার্থীরা অবাধে সংস্কৃতি চর্চা করতে পারবে এবং সর্বোপরি শিক্ষার মানোন্নয়ন ঘটবে।’
ফলিত গণিত বিভাগের আরেক শিক্ষার্থী বলেন, ‘ক্যাম্পাসের ভিতরে রাজনৈতিক দলের ছাত্র সংগঠনগুলো অনেক সময় মারামারিতে লিপ্ত হয়। এর ফলে ক্যাম্পাস অস্থিতিশীল হয়ে উঠে। এমনকি বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত বন্ধ হয়ে যায়। আবার তারা নিজেরা বা অন্য সংগঠনগুলোর সঙ্গে মারামারিতে লিপ্ত হয়ে অন্যের ঘাড়ে দোষ চাপায়। কিন্তু ক্যাম্পাস সিসি ক্যামেরার আওতায় থাকলে তাদের সনাক্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া যাবে।
বিশ^বিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মজিবুল হক আজাদ খান বলেন, সারাদেশে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে। এছাড়া ক্যাম্পাসে খুন, ছিনতাইসহ নানা অপরাধ ঘটেই চলেছে। তাই ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী সারওয়ার জাহান বলেন, ‘ক্যাম্পাসের ভিতরে ও বাইরে বেশকিছু হত্যাকাণ্ড ঘটেছে যা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সম্পর্কিত। এছাড়া চুরি-ছিনতাই ও মারামারির ঘটনা ঘটে থাকে। এসব নানা বিষয়ে নিরাপত্তা বাড়ানোর জন্য সরকার ও পুলিশ প্রশাসন আমাদের সিসি ক্যামেরা লাগানোর প্রস্তাব দিয়েছিল। প্রস্তাবটা ভালো মনে করায় আমরা সেটা গ্রহণ করেছি।’