শততম টেস্টে ওয়ালশের চাওয়া

আপডেট: মার্চ ১৪, ২০১৭, ১২:১৭ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে গলে টাইগারদের ২৫৯ রানের পরাজয়ের ক্ষতটা এখনো তাজাই বলতে হবে। তবে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে প্রথম ম্যাচটি নিয়ে অত ভাবার কি সময় আছে বাংলাদেশ দলের? একদিন পরই নিজেদের ইতিহাসের শততম টেস্ট খেলতে নামবে বাংলাদেশ। কলম্বোয় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ঐতিহাসিক টেস্ট নিয়ে এখন উত্তেজনা সবার মাঝেই। দারুণ উপলক্ষ্যের এই টেস্টে শিষ্যদের কাছে খুব বড় চাওয়া নেই কোর্টনি ওয়ালশের। ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান কিংবদন্তির আশা, নিজেদের সেরাটা দিয়ে শততম টেস্টটা স্মরণীয় করে রাখবে টাইগাররা।
২০০০ সালের ১০ নভেম্বরে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে টেস্ট ক্রিকেটের অভিজাত জগতে পা রাখে বাংলাদেশের। নানা চড়াই-উৎরাইয়ের পথ বেয়ে শততম টেস্টের দরজায় ১৭ বছরে। ১৫ মার্চ পি. সারা ওভালের ম্যাচটি নিয়ে ওয়ালশ বলেন, ‘এটি একটি বড় উপলক্ষ্য। বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য যা অনেক গর্বের মুহূর্ত। ছেলেরা নিজেদের সেরাটা দিয়ে এই ম্যাচটায় ভালো করবে বলে আশা করি। আমি চাই, প্রত্যেকেই বিশেষ এই ম্যাচে নিজের সেরাটা নিয়ে আবির্ভূত হোক।’
তা খেলোয়াড়রা নিজেদের সেরাটা তো সবসময়ই মেলে ধরতে চান। যেমনটা নিশ্চয়ই চেষ্টা করেছেন প্রথম ম্যাচে, গল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে। কিন্তু চতুর্থ দিন শেষে যে ম্যাচের সম্ভাব্য ফল অনেকে ড্রই ভাবছিলেন। সেই ম্যাচ কিনা বাংলাদেশ হেরে বসে দেড় সেশন পড়ে থাকতেই। তাও আবার শ্রীলঙ্কার ইতিহাসের সবচেয়ে অনভিজ্ঞ দলের কাছে। ওয়ালশ অবশ্য সেই দায় ব্যাটসম্যানদের উপরই দিচ্ছেন, ‘গলের উইকেটটা খুবই ভালো ছিল। কিন্তু ব্যাটসম্যানরা ভালো করতে পারেনি। এমন উইকেটেও তারা লম্বা সময় ব্যাট করতে পারেনি…।’
প্রথম ম্যাচে ভালো করতে পারেন নি বিশ্ব ইতিহাসে প্রথম ৫০০ উইকেট শিকারী বোলার ওয়ালশের শিষ্য ফাস্ট বোলাররা। যদিও তার দাবি মোস্তাফিজ-তাসকিনরা ভালো করবেন সামনের দিনগুলোতে। ওয়ালশ বাংলাদেশের পেস বোলিং নিয়ে বললেন, ‘আমি ফাস্ট বোলারদের মধ্যে উন্নতি দেখছি। আসলে অভিজ্ঞতায় ওরা খুব বেশি এগিয়ে নেই। আমরা কাজ করে যাচ্ছি। ছেলেরাও পরিশ্রম করছে। সামনের দিনগুলোতে ভালো কিছুরই প্রত্যাশা আমার।’