শামুকের নতুন প্রজাতি শনাক্ত করলো রাবির গবেষক দল

আপডেট: জুন ১৪, ২০২৪, ১০:৫৭ অপরাহ্ণ

রাবি প্রতিবেদক:


শামুক নিয়ে গবেষণায় যুগান্তকারী সাফল্য পেয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের মলাস্কান রিসার্চ ল্যাবরেটরীর একদল গবেষক। এই গবেষণায় প্রথমবারের মতো দেশে গেছো শামুকের এমফিড্রোমাস প্রজাতির উপর কাজ করে পাঁচটি প্রজাতি শনাক্ত করেছে গবেষক দলটি। যার মধ্যে দুটি নতুন এবং অপ্রকাশিত প্রজাতি।
রাবির প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. শাহরিয়ার শোভনের নেতৃত্বে পরিচালিত এ গবেষণার ফলাফল সম্প্রতি আন্তর্জাতিক জার্নাল সিস্টেমেটিক্স অ্যান্ড বায়োডাইভারসিটিতে প্রকাশিত হয়েছে।

যৌথ এই গবেষণা প্রকল্পে ড. শাহরিয়ার শোভনের সহযোগী ছিলেন- চেক রিপাবলিকের মাসারিক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ড. তাকুমি সাইতো, জাপানের রিউকাস বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও গবেষক তাকাহিরো হিরানো, খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের রূপময় তঞ্চঙ্গা, রাবির প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মো. রহিম বাদশা এবং জাপানের তহুকো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও গবেষক ইয়াসুতো ইশি।

গবেষক দলের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২০১৮ সাল থেকে চলমান এ গবেষণায় বাংলাদেশের ১৩টি স্থান থেকে ৪৫টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এতে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে গেছো শামুকের প্রজাতি এমফিড্রোমাস-এর উপর কাজ করা হয়েছে, যার মধ্যে পাঁচটি প্রজাতি শনাক্ত করা হয়েছে। এদের মধ্যে দুটি নতুন এবং অপ্রকাশিত প্রজাতি। সংগৃহীত নমুনাগুলো মাইটোকন্ড্রিয়াল ১৬এস রাইবোসোমাল আরএনএ, সাইটোক্রোম সি অক্সিডেজ সাবইউনিট ওয়ান এবং নিউক্লিয়ার ইন্টারনাল ট্রান্সক্রাইবড স্পেসার ১-এর মলিকুলার ফাইলোজেনেটিক বিশ্লেষণ এবং হ্যাপ্লোটাইপ নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে তথ্য বিশ্লেষণ করা হয়। এছাড়া, এলিপটিক্যাল ফুরিয়ার এনালাইসিসের মাধ্যমে শামুকের খোলসের আকার ও ব্যান্ড প্যাটার্ন মূল্যায়ন করা হয়।

আবিষ্কৃত প্রজাতিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো এমফিড্রোমাস গ্লোবোনেভিলি, যা বাংলাদেশের মধ্য ও পূর্বাঞ্চলের বিস্তৃত এলাকায় পাওয়া গেছে, এটি মাইটোকন্ড্রিয়াল ডিএনএ বৈচিত্র্য প্রদর্শন করে। এছাড়া, এসবে এমফিড্রোমাস সাইনেনসিস ভিকারিয়া এবং এমফিড্রোমাস সিলহেটিকাস-এর উপস্থিতি নিশ্চিত হওয়া গেছে। এর মধ্যে এমফিড্রোমাস সিলহেটিকাস বাংলাদেশে নতুনভাবে আবিষ্কৃত হয়েছে, যা দেশের পূর্বাঞ্চলে পাওয়া যায়।

এই গবেষণায় প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে গবেষক দলের সদস্য ড. শাহরিয়ার শোভন এবং ড. তাকুমি সাইতো জানান, এই গবেষণাটি বাংলাদেশের জীববৈচিত্র্য রক্ষা ও মূল্যায়নের জরুরি প্রয়োজনীয়তাকে তুলে ধরবে। এই গবেষণার ফলাফল ভবিষ্যতের গবেষণা ও পরিবেশের বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতি সংরক্ষণ কৌশলের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ভিত্তি প্রদান করবে। এই সাফল্যের ফলে দেশে গেছো শামুকের প্রজাতি নিয়ে গবেষণায় নতুন দিগন্তের সূচনার পাশাপাশি ভবিষ্যতে এই গবেষণাটি আরও গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কারের আশা জাগাচ্ছে বলে জানান এই দুই গবেষক।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Exit mobile version