শিক্ষকের ওপর হামলাকারীদের গ্রেফতার দাবি

আপডেট: এপ্রিল ১০, ২০১৭, ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


নগরীতে মানবন্ধনে বক্তব্য দেন শিক্ষক নেতা অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা- সোনার দেশ

রাজশাহীর দুর্গাপুরে শিক্ষকের ওপর হামলাকারী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুল মজিদ ও তার সহযোগীদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন শিক্ষকরা। গতকাল রোববার সকালে মানববন্ধন থেকে এ দাবি জানানো হয়। নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে এ কর্মসূচির আয়োজন করে জাতীয় শিক্ষক-কর্মচারী ফ্রন্টের রাজশাহী শাখা।
জাতীয় শিক্ষক কর্মচারি ফ্রন্টের আহবায়ক অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশার সভাপতিত্বে মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, বাশিসের জেলা সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বারি, জাতীয় শিক্ষক কর্মচারি ফ্রন্টের যুগ্মআহবায়ক বাবু রাজকুমার সরকার, বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতির মজিবুর রহমান, কলেজ শিক্ষক সমিতির সহসাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ আমিনুর রহমানসহ অধ্যক্ষ জুলফিকার আহম্মেদ গোলাপ, নাসির উদ্দিন, রবিউল ইসলাম প্রমুখ। সমাবেশ পরিচালনা করেন, রাজশাহী জেলা কলেজ শিক্ষক সমিতির সহসাধারণ সম্পাদব আশরাফুল ইসলাম সুলতান প্রমুখ।
সমাবেশ থেকে শিক্ষকদের ওপর হামলাকারীদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও শাস্তির দাবি জানানো হয়। অন্যথায় কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারিও দেয়া হয় সমাবেশ শেকে। এ বিষয়টি নিয়ে জেলা পুলিশ সুপার বরাবার স্মারকলিপি দিয়েছে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির রাজশাহী জেলা শাখা। সংগঠনটির সভাপতি মজিবুর রহমান সরকার ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বারি স্বাক্ষরিত ওই স্মারকলিপিতে অবিলম্বে গ্রেফতার ও শাস্তির দাবি জানানো হয়।
প্রসঙ্গত, গত ৫ এপ্রিল দুপুরে উপজেলার কালীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রবেশ করে প্রধান শিক্ষকসহ তিন জনকে হাতুড়িপেটা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল মজিদ সরদার ও তার লোকজন। পরিচালনা কমিটি গঠন নিয়ে এ ঘটনা ঘটে। ওইসময় বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে ভাঙচুর চালানো হয়।
আহতরা হলেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মকবুল হোসেন (৫৫), সহকারী শিক্ষক (শরীর চর্চা) সাইফুল ইসলাম (৪০) ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি সভাপতি আবদুল গফুর শাহর ছেলে রবিউল ইসলাম (৪২)।
এনিয়ে ওই দিন রাতেই প্রধান শিক্ষক মকবুল হোসেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুল মজিদ সরদারসহ ২৫ জনের নামে মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় অজ্ঞাত আসামী করা হয় আরো ২৫ জনকে। পুলিশ বলছে, ঘটনার পর থেকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা আসামীদের।