শিক্ষক পদোন্নতির অভিন্ন নীতিমালা প্রত্যাখ্যান রাবি শিক্ষক সমিতির

আপডেট: জুলাই ২২, ২০১৭, ১২:৩৭ পূর্বাহ্ণ

রাবি প্রতিবেদক


পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ ও পদোন্নতির যে অভিন্ন নীতিমালা প্রণয়নের খসড়া চূড়ান্ত করা হয়েছে তা প্রত্যাখান করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। গত বৃহস্পতিবার রাতে অনুষ্ঠিত শিক্ষক সমিতির সাধারণ সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নজরুল ইসলাম।
জানা যায়, দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষক নিয়োগ ও পদোন্নতি বিষয়ে অভিন্ন এক নীতিমালার প্রণয়নের উদ্যোগ নেয়া হয় ১৯৯৩ সালে। ২০০২ এবং ২০০৪ সালে অভিন্ন নিয়োগ নীতিমালার খসড়া চূড়ান্ত হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা হয়নি। সর্বশেষ ২০১৫ সালে ৮ম পে-স্কেলে শিক্ষককের বেতন-ভাতা নিয়ে জটিলতার পর প্রধানমন্ত্রী তা সমাধান করতে অভিন্ন নীতিমালা করার কথা বলেন।
এরপর ইউজিসি এটি দ্রুত বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়। অভিন্ন নীতিমালার খসড়ায় বলা হয়েছে, অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পেতে কোনো কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে একজন শিক্ষককে অপেক্ষা করতে হয় প্রায় ১৫ থেকে ১৬ বছর। আবার কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে মাত্র ১১ বছরেই অধ্যাপক হয়ে যায়। কোথাও প্রভাষক পদে যোগ দিতে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে অনার্স ও মাস্টার্স পর্যায়ে প্রথম শ্রেণি বাধ্যতামূলক। আবার কোথাও যে কোনো একটিতে প্রথম শ্রেণি থাকলেই চলে। অভিন্ন নীতিমালা হলে তা বন্ধ হবে।
এ বিষয়ে ইউজিসির নীতিমালা কমিটি কয়েকটি সভায় বসে একটি খসড়া নীতিমালা প্রণয়ন করেছে। প্রণীত এ খসড়ায় বলা হয়েছে, যেসব শিক্ষকের পিএইচডি বা সমমানের উচ্চতর ডিগ্রি থাকবে, তারা প্রভাষক থেকে সহযোগী অধ্যাপক এবং স্বীকৃত জার্নালে ১৪টি প্রকাশনা থাকলে চাকরির ১৬ বছরে অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পাবেন। এমফিল বা পিএইচডি ডিগ্রি না থাকলে ১৮ বছরে একজন শিক্ষক অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পাবেন। পদ থাকলে সরাসরি ১৬ বছরে নিয়োগ পাবেন অধ্যাপক হিসেবে। আর পদশূন্য না থাকলে পদোন্নয়নের মাধ্যমে ১৮ বছরে অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পাবেন।
নতুন খসড়া নীতিমালায় বলা হয়, প্রভাষক পদ থেকে সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পেতে একজন শিক্ষককে কমপক্ষে তিন বছরের শিক্ষকতা এবং স্বীকৃত জার্নালে কমপক্ষে দুটি গবেষণা প্রবন্ধ থাকতে হবে। একইভাবে, সহকারী অধ্যাপক থেকে সহযোগী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পেতে একজন শিক্ষককে কমপক্ষে সাত বছরের শিক্ষকতা এবং স্বীকৃত জার্নালে কমপক্ষে তিনটি গবেষণা প্রবন্ধ থাকতে হবে। এক্ষেত্রে এমফিল বা পিএইচডি ডিগ্রি থাকলে সাত বছরে, আর না থাকলে চাকরির নয় বছরে একজন শিক্ষক সহযোগী অধ্যাপক পদে পদোন্নতির যোগ্য হবেন। এরপর পরবর্তী পদোন্নতি অর্থাৎ অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পেতে একজন শিক্ষককে কমপক্ষে আরো আট বছর চাকরি করতে হবে।
খসড়া নীতিমালা প্রত্যাখানের বিষয়ে রাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেন, আমরা স্বায়ত্ত্বশাসিত বিশ্ববিদ্যালয় এই সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারি না। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় কিভাবে পরিচালিত হবে-সে সিদ্ধান্ত আমরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তপক্ষ গ্রহণ করব। তাই শিক্ষক ফেডারেশনের ওই অভিন্ন নীতিমালার সিদ্ধান্ত আমরা প্রত্যাখান করছি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ