শিবগঞ্জে অসহায় ও দুস্থদের সেবা শতভাগ নিশ্চিত হতে যাচ্ছে

আপডেট: আগস্ট ৮, ২০২০, ১:৪১ অপরাহ্ণ

শিবগঞ্জ(চাঁপাইনবাবগঞ্জ)সংবাদদাতা:


শিবগঞ্জে ভিজিডি খাদ্য বিতরণ, মাতৃত্বকালীন ভাতা প্রদান,ল্যাকটেটিং মাদার ভাতাপ্রদান, নারীদের আয় বর্ধক প্রশিক্ষণ প্রদান ও ইউনিয়ন পর্যায়ে কিশোর-কিশোরী ক্লাব স্থাপনের মাধ্যমে অসহায়, দুস্থ নারীদের সেবামূলক কাজ দিন দিন বাড়ছে। অল্প সময়ের মধ্যে শতভাগ অসহায় ও দুস্থ নারীদের সেবা নিশ্চিত হতে যাচ্ছে।
শিবগঞ্জ উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ভিজিডি খাদ্য বিতরণ অনেক দিন থেকে চালু আছে। বর্তমানে চলছে, এটিকে চক্র বলা হয়। বর্তমানে চক্র শুরু হয়েছে ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে এবং শেষ হবে আগামী ডিসেম্বর মাসে। বর্তমানে উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নে ও ১ টি পৌরসভাতে প্রতিমাসে ২ হাজার ২৯ জন অসহায় ও দুস্থ নারীকে প্রতিমাসে বিনামূল্যে ৩০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়। তারমধ্যে শাহাবাজপুর ইউনিয়নে ১৬৪ জন, দাইপুখুরিয়া ইউনিয়নে ১৩১ জন, মোবারকপুর ইউনিয়নে ১১৬ জন, চককীর্তি ইউনিয়নে ১২৫ জন, কানসাট ইউনিয়নে ১৩৮ জন, শ্যামপুর ইউনিয়নে ১৩৭ জন, বিনোদপুর ইউনিয়নে ১৩৯ জন, মনাকষা ইউনিয়নে ১৭০ জন, দূর্লভপুর ইউনিয়নে ১৯১ জন, উজিরপুর ইউনিয়নে ১০৪ জন, পাঁকা ইউনিয়নে ১১৫ জন, নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়নে ১৪৫ জন, ধাইনগর ইউনিয়নে ১৩২ জন, ঘোড়াপাখিয়া ইউনিয়নে ১০৬ জন ও ছত্রাজিতপুর ইউনিয়নে ১১৬ জন দুস্থ ও অসহায় নারীকে ৩০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হচ্ছে। যা দুই বছরের জন্য বরাদ্দ রয়েছে ১৪৬২ মেট্রিক টন। ৬০.৮৭০ মেট্রিক টন চাল। এবছরে ১৫টি ইউনিয়নে মোট ২২৩৫ জনকে মাতৃত্বকালীন ভাতা হিসাবে প্রসূতি মাতাদের মাঝে গত এক বছরে ২ কোটি ১৪ লাখ ৫৬ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়েছে। প্রতি মাতাকে মাসিক ৮শ টাকা হারে ২২৩৫ জন প্রসূতি মাতাকে এক মাসে ১৭ ল্খা ৮৮ হাজার টাকা প্রদান করা হচ্ছে। ল্যাকটেটিং মাদার ভাতা (শুধূ পৌরসভার জন্য প্রযোজ্য) প্রদানের ক্ষেত্রে প্রতি প্রসূতি মাতাকে মাসিক ৮শ টাকা হারে ৫শ জনকে প্রতিমাসে ৪লাখ টাকা করে প্রদান করা হচ্ছে। যা এক বছরে টাকার পরিমাণ হয় ৪৮ লাখ টাকা। নারীদের আয়বর্ধক প্রশিক্ষণ ভাতা প্রদানের ক্ষেত্রে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের যাচাই -বাছাইয়ের ভিত্তিতে ১৯০ জন নারীকে প্রশিক্ষণ শেষে ৬ হাজার টাকা করে মোট ১১ লাখ ৪০ হাজার টাকা প্রদান করা হয়েছে। তাছাড়া উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে পর্যায়ে কিশোর-কিশোরীদের কøাব স্থাপন প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। এব্যাপারে শিবগঞ্জ উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রহিমা রওনক বলেন, জনবান্ধব সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় উপজেলার প্রত্যন্তাঞ্চলের শতভাগ অসহায় ও দুস্থ নারীদের পুনর্বাসন, প্রসুতি মা ও তার সন্তানের পুষ্টিহীনতা দূর করতে, কিশোরীদের নিয়ে ক্লাব স্থাপনসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। আশা করি অল্প সময়ের তা শতভাগে উন্নত হবে। তিনি আরো বলেন, নারীদের বিষয়ে আগের চেয়ে এখন অনেক বেশি উন্নত হয়েছে এবং ভবিষ্যতে আরো উন্নত হবে ইনশাল্লাহ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ