শিবগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের মামলা

আপডেট: জানুয়ারি ১০, ২০১৭, ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি  


স্বামী পরিত্যক্ত এক নারীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে শিবগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে থানায় নারী নির্যাতনের মামলা হয়েছে। স্থানীয় জনতা ও কয়েকজন ইউপি সদস্যদের পক্ষ থেকে উক্ত চেয়ারম্যানকে গ্রেফতারের দাবি করেছে। পাশাপাশি তার ইউপির একাধিক সদস্যও তাকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছে। গত ৪ জানুয়ারি শিবগঞ্জ থানায় দেয়া অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, কানসাট এলাকার স্বামী পরিত্যক্ত জনৈকা মহিলা গত বছর ৩০ ডিসেম্বর মোবারকপুর ইউপি চেয়ারম্যান তৌহিদুর রহমানের কাছে জমা থাকা ওই নারীর দেনমোহরের টাকা আনতে গেলে চেয়ারম্যান তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। নারী কৌশলে সেখান থেকে পালিয়ে আসে। তারপর গত ৪ জানুয়ারি থানায় অভিযোগ দিলে তদন্ত সাপেক্ষে পুলিশ গত ৬ জানুয়ারি অভিযোগটি মামলা হিসেবে রেকর্ড করে।
এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, একজন জনপ্রতিনিধির কাছে মানুষ এধরনের আচরন আশা করে না। তারা আরো বলেন, তাকে দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হোক। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনৈক ইউপি সদস্য বলেন এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার না হলে ইউনিয়নের পরিষদের উপর সাধারণ মানুষের আস্থা হারিয়ে যাবে। অন্যদিকে ওই নারীর অভিযোগ তিনি যে কোন সময় বড় ধরনের হামলা বা হয়রানীর শিকার হতে পারেন।
এ ব্যাপারে চেয়ারম্যান তৌহিদুর রহমান পলাতক থাকায় তার  সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব না হল্ওে তার ছেলে ওয়াদুদুর রহমান মিঞা তার পিতার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগটি ষড়যন্ত্র বলে আখ্যায়িত করে বলেন, এলাকায় একটি নেতিবাচক প্রভাব ফেলার জন্য আমার পিতাকে ফাঁসানোর জন্য এমনটা করা হয়েছে।  কিন্তু ঘটনাটি আসলে সত্য নয়।
এ ব্যাপারে শিবগঞ্জ থানার ওসি রমজান আলী বলেন , তৌহিদুর রহমানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের চেষ্টার মামলা হয়েছে, আসামি গ্রেফতারের জোর প্রচেষ্টা চলছে। উল্লেখ্য কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে জেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যন প্রার্থী আব্দুল ওয়াহেদের সমর্থনকারী হওয়ায় তাকে বিএনপি থেকে বহিস্কার করা হয়।