শিবগঞ্জে নিবন্ধন ছাড়াই ঋণসহ কার্যক্রম চালাচ্ছে সুমনা এনজিও

আপডেট: অক্টোবর ২১, ২০১৯, ১:২৯ পূর্বাহ্ণ

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি


শিবগঞ্জের সুমনা এনজিওর অফিস ও পাস বই (ইনসেটে)-সোনার দেশ

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে ব্যাঙের ছাতার মত এনজিও গড়ে উঠলেও কিছুটা নিময়নীতির মধ্যদিয়ে চলছে অন্যান্য এনজিও’র সকল কার্যক্রম। কিন্তু নিয়মনীতির কোনো তোয়াক্কা না করে শিবগঞ্জ উপজেলার মোবারকপুর ইউনিয়নপর তামিম বাজারে ছোট এক টিনসেড ঘর নিয়ে সুমনা যুব উন্নয়ন সংস্থা নাম দিয়ে ঋণসহ সকল প্রকার কার্যক্রম চালাচ্ছেন মো. শামিম রেজা নামে এক ব্যক্তি।
তিনি পেশায় মটরসাইকেল মেকানিক। টিকোরী বাজারে তার মটর মেকানিক সার্ভিসের একটি দোকান রয়েছে। শামিম রেজা শিবগঞ্জ উপজেলার মোবারকপুর ইউনিয়নের উত্তর ফতেপুর গ্রামের মো. কেতাব আলীর ছেলে।
এব্যাপারে সুমনা যুব উন্নয়ন সংস্থার কয়েকজন কর্মকর্তারা জানান, মাত্র ২ মাস আগে তামিম বাজারে একটি ঘর ভাড়া নিয়ে এই সংস্থার কাজ শুরু হয়। তবে এর কোন নিবন্ধন (লাইসেন্স) নাই। আমরা এই সংস্থা চালুর পর থেকেই কিছু কিছু গ্রহকদের মাঝে ঋণ বিতরণ করেছি এবং আদায়ও করছি।
এব্যাপারে সুমনা যুব উন্নয়ন সংস্থার পরিচালক মো. শামিম রেজা তার অফিসে না থাকায় মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার সংস্থার সব কাগজপত্র (লাইসেন্স) আছে প্রক্রিয়াধীন। নিবন্ধন না পাওয়ার সত্ত্বেও আপনি ঋণ বিতরণ কার্যক্রম চালাচ্ছেন এমন প্রশ্নোত্তরে তিনি বলেন, আমি আপনার সঙ্গে পরে কথা বলবো বলে মুঠোফোনের সংযোগটি কেটে দেন।
বিষয়ে মোবারকপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. তৌহিদুর রহমান মিঞার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সংস্থাটি কখন প্রতিষ্ঠা হয়েছে, কিভাবে চালাচ্ছে, কে চালাচ্ছে, এসব আমি কিছুই জানি না।
এব্যাপারে শিবগঞ্জ উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান জানান, সুমনা নামে কোন সংস্থা যুব উন্নয়ন অফিস থেকে অনুমোদন বা নিবন্ধন দেয়া হয়নি। যে ব্যক্তি সুমনা যুব উন্নয়ন সংস্থার নাম দিয়ে সংস্থা চালাচ্ছে এটি সম্পূর্ণ অবৈধ। তবে, কিছু দিন আগে সুমনা সংস্থার নামে একটি আবেদন এসেছে। কিন্তু এর কোন প্রক্রিয়া শুরু হয়নি। যদি সুমনা যুব উন্নয়ন সংস্থা নাম ব্যবহার করে ঋণ বিতরণ কার্যক্রম চালানো হয় তাহলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।