শিবগঞ্জে বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি

আপডেট: ডিসেম্বর ১৯, ২০১৬, ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি


চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে রহস্যজনকভাবে এক বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার হয়েছে। গত শুক্রবার দুপুর ২টার দিকে উপজেলার মোবারকপুর ইউনিয়নের শিকারপুর গ্রামের ইলিয়াস আলী সর্দার ওরফে হাবিবুর রহমান সর্দার (৬৫) নামে এক বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার হয়।
গ্রামের পাশেই আখের জমিতে ছোট একটি আম গাছের নিচে তার মরদেহ পাওয়া যায়। তবে বিষয়টি নিয়ে এলাকাই ব্যাপক চাঞ্চল্যকর সৃষ্টি হয়েছে। পরিবার সূত্রে জানা যায়, ইলিয়াস আলী সর্দার চলতি মাসের ১৩ তারিখ মঙ্গলবার সকালের দিকে নিখোঁজ হন। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাকে পাওয়া যায় নি। চারদিন নিখোঁজ থাকলেও থানায় কোনো সাধারণ ডায়েরি করা হয় নি। পরিবারের দাবি গলায় ফাঁস দিয়ে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। কিন্তু কেন এই আত্মহত্যা তা ইলিয়াস আলী সর্দারের ছেলে রাজুর কাছে জানতে চেয়ে যোগাযোগ করা হলে তিনি এড়িয়ে যান। সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখা গেছে, যে আম গাছটির নিচে মরদেহ পড়েছিল, সে আম গাছটি গলায় ফাঁস দেয়ার উপযুক্ত না। ছোট ওজন রাখার মতোও ভারসাম্য গাছটির নেই। এছাড়াও গাছের পাশে রক্তের দেখা যায় এবং একটি চোখ ছিল না তার। মৃত ব্যক্তির গলায় ফাঁস থাকলেও গাছে কোনো ফাঁসের চিহ্ন ছিলো না। আর ডাক্তারদের তথ্যেও ফাঁসের আলামত ছিলো না ইলিয়াস আলী সর্দারের মরদেহতে।
ঘটনাস্থলে শিবগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) সারোয়ার জাহান এসে পরিবার ও স্থানীয়দের কাছে লিখিত নিয়ে লাশ হস্তান্তর করেন। তবে গুঞ্জন ছড়ায় যে ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ব্যাপারে কথা হয় ইলিয়াস আলী সর্দারের মেজো ছেলে একলাস আলীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ময়নাতদন্ত না করার জন্য আমাদের মোবারকপুর ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের গ্রাম পুলিশ শফিকুল ইসলামের হাতে ৫০ হাজার টাকা দিই। তবে তিনি টাকাটা আমাদের পরে ফেরত দেন। কিন্তু গতকাল শনিবার হটাৎ পুলিশ শফিকুলকে আটক করে এবং প্রায় ১০ ঘণ্টা পর ছেড়ে দেয়।
এ বিষয়ে শিবগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) সারোয়ার জাহানের সঙ্গে একাধিকবার চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয় নি। তবে মোবারকপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তৌহিদুর রহমান মিঞা তৌহিদ বলেন, আমি ঘটনা শুনা মাত্রই সেখানে উপস্থিত হোই। সেখানে মরদেহ পড়ে থাকা অবস্থায় দেখি। প্রসব, পায়খানা কিংবা জিহ্বা বের হয়ে থাকতে দেখি নি। আমি তাৎক্ষণিক পুলিশকে খবর দিয়ে ডাকি। তবে এটি ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা কিনা আমার সন্দেহ হচ্ছে।