শিবগঞ্জে মুরগির খামারের বিষ্ঠার দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী

আপডেট: June 29, 2020, 10:19 pm

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি:


আইনের কোন তোয়াক্কা না করে শিবগঞ্জের ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় স্থাপিত মুরগীর খামারের বিষ্ঠার দূর্গন্ধে অতিষ্ঠ হয়ে প্রতিকার চেয়ে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর আবেদন করেছেন এলাকাবাসী।

অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রায় আড়াই বছর পূর্বে উপজেলার ধাইনগর ইউনিয়নের গুপ্তমানিক রউফ মিঞা গ্রামের মৃত তোবজুল মন্ডলের ছেলে মিজানুর রহমান প্রাণি সম্পদ দফতরের কোনা অনুমোদন ছাড়াই গ্রামের ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় ব্রয়লার মুরগির খামার স্থাপন করে প্রায় ৫ শ মুরগি পালন শুরু করে। জানা গেছে, ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় খামারটির আশপাশে মুরগির বিষ্ঠা ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকে, পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা নেই। খামারের চারপাশে বসতবাড়ি। এসব বাড়ির বাসিন্দারা খামারের তীব্র দুর্গন্ধে অতিষ্ট।

গ্রামের বাসিন্দা কাসিম আলী ও বাসুরুদ্দিন বলেন, ‘আমাদের বাড়ির পাশেই পোল্ট্রি খামার। বিষ্ঠা থেকে সব সময় দুর্গন্ধ ছড়ায়। আশপাশে বসবাস করা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে।’

অপরদিকে স্থানীয় বাসিন্দা মাহবুব আলম বলেন, ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা থেকে খামারটি সরানোর জন্য গত ২১ জুন ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে অভিযোগ দিয়েছিল গ্রামবাসী। তিনি কোন ব্যবস্থা নেননি। পরে ইউএনও’র কাছে অভিযোগ দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে খামার মালিক মিজানুর রহমানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তার মেয়ে জানান, খামারে ৪শ’ মুরগি রয়েছে। বাড়ির পাশে খামার, এরপর পুকুর রয়েছে। পুকুরের পাশে মুরগির বিষ্ঠা-বর্জ ফেলা হয়। তাছাড়া খামারটি নিয়মিত পরিস্কার করা হয় যাতে দুর্গন্ধ কম ছড়ায়। এছাড়া ছোট ভাই বাড়িতে শখ করে কবুতর লালন-পালন করে থাকে।

ধাইনগর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান আ.ক.ম তাবারিয়া চৌধুরী জানান, এখন পর্যন্ত আমার কাছে কেউ লিখিত অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।
উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. রণজিৎ চন্দ্র সিংহ বলেন, নীতিমালা উপেক্ষা করে খামার স্থাপন করা হলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।