শেখ জামালকে হারিয়ে শিরোপার আরো কাছে আবাহনী

আপডেট: ডিসেম্বর ১৬, ২০১৬, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


এই জয়ে ২০ খেলায় আবাহনীর পয়েন্ট দাঁড়ালো ৪৬, বাকি দুটি খেলায় ৪ পয়েন্ট পেলেই জিতবে তাদের পঞ্চম বিপিএল শিরোপা। আবাহনীর খেলা বাকি রহমতগঞ্জ ও উত্তর বারিধারার বিপক্ষে। তাই তাদের শিরোপা অনেকটাই নিশ্চিত বলা যায়।
শেখ জামালের বিপক্ষে দুরন্ত এক জয়ে জেবি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের শিরোপার খুব কাছে চলে এলো ঢাকা আবাহনী। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে গতকাল বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত লিগের গুরুত্বপূর্ণ খেলাটিতে আবাহনী ৩-২ গোলে জামালকে হারিয়ে দেয়।
আবাহনীর জয়ের নায়ক ছিলেন ফরোয়ার্ড নাবিব নেওয়াজ জীবন। চার মিনিটের ইনজুরি টাইমে তিনি দুটি গোল করে দলকে এনে দেন মহামূল্যবান এক জয়। এই জয়ে ২০ খেলায় আবাহনীর পয়েন্ট দাঁড়ালো ৪৬, বাকি দুটি খেলায় ৪ পয়েন্ট পেলেই তারা জিতবে তাদের পঞ্চম বিপিএল শিরোপা। আবাহনীর খেলা বাকি রহমতগঞ্জ ও উত্তর বারিধারার বিপক্ষে। তাই তাদের শিরোপা অনেকটাই নিশ্চিত বলা যায়।
খেলার ৪৩ মিনিটে এগিয়ে যায় আবাহনী। বক্সের ডানপ্রান্ত থেকে  ইংলিশ ফরোয়ার্ড জোনাথন ডেভিডের ক্রস হেডে ক্লিয়ার করেন জামালের ডিফেন্ডার তপু বর্মণ, ফিরতি বলে ইমন মাহমুদের  শট জামাল গোলরক্ষক হিমেল ঠেকালেও হেড দিয়ে বল জালে পাঠান জুয়েল রানা। প্রথমার্ধ ১-০ গোলে এগিয়ে থাকে ঢাকা আবাহনী।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে তিন মিনিটের মাথায়  ম্যাচে সমতা আনে শেখ জামাল। ডিফেন্ডার লিংকনের দূরপাল্লার শট আবাহনী গোলরক্ষক সোহেল ফিস্ট করে ফেরালেও তা এসে পড়ে গাম্বিয়ান মিডফিল্ডার ল্যান্ডিং ডারবোর সামনে। চলতি বলে চমৎকার ভলিতে গোল করেন তিনি।
৮১ মিনিটে নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড মাইক অটোজারেরির মাঝমাঠ থেকে  ভাসিয়ে দেয়া বল আবাহনীর রক্ষণভাগে নিয়ন্ত্রণে নেন নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড এমেকা ডার্লিংটন। মাপা শটে আগুয়ান সোহেলের মাথার উপর দিয়ে বল জালে পাঠান এমেকা।
আবাহনী যখন এগিয়ে যাচ্ছে নিশ্চিত পরাজয়ের দিকে, তখন ত্রাণকর্তা হিসেবে আবির্ভূত হন ফরোয়ার্ড নাবিব নেওয়াজ জীবন। ইনজুরি টাইমের প্রথম মিনিটে জুয়েল রানার বাড়িয়ে দেওয়া বল বক্সে দারুণ হেডে তিনি জালে জড়িয়ে আনেন সমতা। চার মিনিটের ইনজুরি টাইমের তৃতীয় মিনিটে আবারও জুয়েল রানা ভেদ করেন জামাল ডিফেন্স, মাপা স্কয়ার পাস প্লেসিং করে দলকে স্মরণীয় জয় এনে দেন জীবন। শিরোপার সুবাস পেতে থাকে আবাহনী।-বাংলা ট্রিবিউন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ