শেষ পর্যন্ত বিএনপিকে নির্বাচনে আসতেই হবে ।। নওগাঁয় ওবায়দুল কাদের

আপডেট: মার্চ ৬, ২০১৭, ১১:৩৮ অপরাহ্ণ

এমআর রকি, নওগাঁ



প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় থাকলেও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে বর্তমান নির্বাচন কমিশনের তত্ত্বাবধানে। আর সেই নির্বাচনে বিএনপিকে অবশ্যই অংশগ্রহণ করতে হবে, না হলে তাদের রাজনৈতিক অস্তিত্ব বিপন্ন হবে। বিগত ৫টি সিটি নির্বাচনসহ স্থানীয় সরকার নির্বাচন বর্তমান সরকারের অধিনে অবাধ ও সুষ্ঠু হয়েছে, তাই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্তমান সরকারের অধীনে অবাধ ও সুষ্ঠু হবে।
গতকাল সোমবার সকালে নওগাঁয় প্রয়াত জননেতা ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিলের চতুর্থ মৃত্যুদিবস উপলক্ষে স্মরণসভায় যোগ দিতে এসে স্থানীয় সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আশা প্রকাশ করেন, বিএনপি বড় দল হিসাবে জন বিচ্ছিন্ন হওয়ার আগেই জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে।
ওবায়দুল কাদের গতকাল সোমবার বেলা ১১টায় নওগাঁ পুলিশ লাইনে হেলিকপ্টার থেকে নেমে মরহুম জননেতা আবদুল জলিলের কবর জিয়ারত শেষে নওগাঁ নওযোয়ান মাঠে স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির ভাষণ দেন। নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মালেকের সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, জাতীয় সংসদের হুইপ সাংসদ মো. শহিদুজ্জামান সরকার, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাংসদ সাধন চন্দ্র মজুমদার, সাংসদ ইসরাফিল আলম, সাংসদ সলিম উদ্দিন তরফদার সেলিম, নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি একিউএম ওয়াহিদুজ্জামান খান বাদশাহ, কাজী রেজাউল ইসলাম, নির্মলকৃষ্ণ সাহা, মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহনাজ বেগম, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহবুবুল হক কমল, আত্রাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নৃপেন্দ্রনাথ দত্ত দুলাল, নিয়ামতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এনামুল হক, নওগাঁ পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান ছেকার আহম্মেদ শিষান, জেলা যুবলীগের আহবায়ক অ্যাড. খোদাদাদ খান পিটু, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. ওমর ফারুখ সুমন এবং ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বিমান কুমার রায়।
নির্বাচন কমিশন নিয়ে বিএনপি’র সমালোচনার প্রতি ইঙ্গিত করে স্মরণ সভায় ওবায়দুল কাদের বলেন, রাষ্ট্রপতি সকল রাজনৈতিক দলের সাথে দীর্ঘ আলোচনার পর সার্চ কমিটির দাখিলকৃত তালিকা থেকে বিএনপি এবং আওয়ামী লীগে মনোনীত ব্যক্তিদের নিয়ে বর্তমান নির্বাচন কমিশন গঠিত হয়েছে- তারপরও বিএনপি’র বিষোদগার। নির্বাচন কমিশন মানি না মানবো না। এক্ষেত্রে তিনি বিএনপি’কে বাংলাদেশ নালিশ পার্টি বলে উল্লেখ করেন।
মন্ত্রী প্রয়াত নেতা আবদুল জলিলের স্মৃতিচারণ করে বলেন, তিনি ছিলেন অত্যন্ত সাংগঠনিক, মানবদরদী এবং বিনয়ী। তাঁকে নওগাঁর মানুষ যে কত ভালোবাসেন এই স্মরণসভায় হাজার হাজার নারী-পুরুষের ঢল দেখে তাই প্রমাণ করে। তা নাহলে এই প্রখর রোদের মধ্যে দুঃসহ গরম সহ্য করে এত মানুষ মাঠে বসে থাকতে পারতো না। মৃত্যুর পরও মানুষ তাঁকে হৃদয়ের মাঝখানে রেখেছেন।
আবদুল জলিলের আদর্শ অনুসরণ করার পরামর্শ দিয়ে তিনি নেতাদের উদ্দেশে বলেন, অন্যের জমি দখল করে, মানুষের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করে মানুষের ভালোবাসা পাওয়া যায় না। তৃণমূল কর্মীদের মতামত উপেক্ষা করে নেতাকর্মীদের ইচ্ছামতো পকেট কমিটি কমিটি গঠন করতে দেয়া হবে না। দল যখন ক্ষমতায় থাকে তখন কিছু মৌসুমী পাখি ঝাঁকে ঝাঁকে আসে। বসন্তের এসব কোকিলদের চাপে কর্মীরা কোণঠাসা হয়ে পড়ে। ক্ষমতা চলে গেলে হাজার পাওয়ারের বাতি জ্বালিয়েও এসব মওসুমী পাখির খোঁজ পাওয়া যায় না। নেতাদের এরকম সিন্ডিকেট করতে দেয়া যাবে না। আওয়ামী লীগ একটি গণতান্ত্রিক দল। সবকিছুই হবে তৃণমুলের নেতাকর্মীদের মতামতের ভিত্তিতে।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিগত ৮ বছরে যে উন্নয়ন হয়েছে তাতে বিশ্বে বাংলাদেশ অনেকদূর এগিয়ে গেছে। সেই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বের ১০ জন নেতার মধ্যে নিজেকে একজন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছেন। তাই আগামী নির্বাচনে ভোটের কোন ঘাটতি হবে না।
মন্ত্রী বলেন, নওগাঁ জেলায় ৪২৮ কোটি টাকা ব্যয়ে সান্তাহার হতে নওগাঁ-নওহাটার মোড়-রাজশাহী বিমানবন্দর পর্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক মহাসড়কের উন্নয়ন কার্যক্রম এবং ২০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে নওগাঁ-আত্রাই-নাটোর মহাসড়কের অসমাপ্ত কাজ শীঘ্রই শুরু হচ্ছে। ইতোমধ্যে এই দুইটি প্রকল্প প্রি-একনেকে অনুমোদন লাভ করেছে।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, আবদুল জলিল ছিলেন মাটি ও মানুষের নেতা। তিনি সব সময় গণমানুষের কথা চিন্তা করতেন। কোন অন্যায়ের কাছে আবদুল জলিল মাথা নত করেন নি। গণতন্ত্র রক্ষার জন্য আজীবন সংগ্রাম করে গেছেন। আবদুল জলিল স্বপ্ন দেখতেন অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ হবে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী সে স্বপ্ন আজ বাস্থবায়ন করছে, আর সেই সঙ্গে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে।
তিনি আরো বলেন, আবদুল জলিলের রাজনৈতিক আদর্শ ছিল গৌরবজ্জল। তিনি সব সময় অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংগাম করে গেছেন। তার আদর্শ লালন করার মাধ্যমে দেশকে আরো সমৃদ্ধ করতে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।
এই স্মরণসভায় পার্শ্ববর্তী রাজশাহী, চাপাইনবাবগঞ্জ, জয়পুরহাট, নাটোর এবং বগুড়া জেলা থেকে বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। এদিন সকাল থেকেই জেলার ১১টি উপজেলা থেকে হাজার হাজার নেতাকর্মীর কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয় স্মরণসভার স্থল নওগাঁ নওযোয়ান মাঠ। সভার নির্দিষ্ট সময় বেলা ১১টার মধ্যে মাঠে আর কোন তিল ধারনের ঠাঁই ছিল না।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ