সংখ্যালঘু পরিবারে হামলা-অগ্নিসংযোগ || মান্দায় ওসির প্রত্যাহার দাবি

আপডেট: মে ১৮, ২০১৭, ১২:২৭ পূর্বাহ্ণ

মান্দা প্রতিনিধি


নির্যাতিত শ্রীমন্ত সাহার উঠানে আয়োজিত সমাবেশে দেন ট্রাস্টি অনিল চন্দ্র সরকার

নওগাঁর মান্দা উপজেলার পিড়াকৈর গ্রামে মন্দির চত্বরের জমি দখল, হিন্দুপল্লির বাসিন্দাদের অবরুদ্ধ করে রাখাসহ সংখ্যালঘু পরিবারে হামলা, মারপিট ও বাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় চরম উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন হিন্দু সংগঠনের দায়িত্বশীল নেতারা। গতকাল বুধবার বেলা ১১টার দিকে হিন্দু কল্যাণ ট্রাস্টি বোর্ডের বিভাগীয় ট্রাস্টি অনিল চন্দ্র সরকার ওই পল্লির ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এসময় থানার ওসির প্রত্যাহার দাবি করেন তিনি। হিন্দু পরিষদের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা এসময় তার সঙ্গে ছিলেন।
ট্রাস্টি অনিল চন্দ্র সরকার সম্প্রদায়ের লোকজনসহ নির্যাতিত পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে একান্তে ঘটনার বিষয়ে মতবিনিময় করেন। পরে নির্যাতিত শ্রীমন্ত সাহার উঠানে আয়োজিত সুধী সমাবেশে তিনি বক্তব্য দেন।  ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, মান্দা থানার ওসি আনিছুর রহমানের গাফলতি ও গড়িমসির কারণে শ্রীমন্ত সাহার পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলা চালিয়েছে মাদরাসা শিক্ষক হাবিবুর রহমান ও তার লোকজন। শ্লীলতাহানি করা হয়েছে নারীদের। ওই ঘটনায় দায়সারা একটি মামলা নিয়ে আসামিদের বাঁচানোর চেষ্টা করেছে ওসি। তিনি ‘ওসির ভূমিকা সাম্প্রদায়িক’ বলে উল্লেখ করেন।
অনিল চন্দ্র সরকার আরো বলেন, ওসি আনিছুর রহমান সঠিক সময়ে ব্যবস্থা নিলে পিড়াকৈর গ্রামে হিন্দুপল্লিতে আতঙ্ক ছড়ানোর সুযোগ পেত না আসামিরা। জামিনে থাকা আসামিদের হুমকির মুখে ওই পরিবারের এক তরুণী স্কুলে যেতে পারছে না। তার স্কুলে যাওয়া নির্বিগ্ন করতে পুলিশ প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে তিনি বিতর্কিত ওসি আনিছুর রহমান ও থানার উপপরিদর্শক আলমগীর হোসেনকে অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানান। না হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন তিনি।
সমাবেশে আরো বক্তব্য দেন মান্দা সার্কেলের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার হাফিজুল ইসলাম, মান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সরদার জসিম উদ্দিন, তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ব্রজেন্দ্রনাথ সাহা প্রমুখ।
নওগাঁর মান্দা উপজেলার পিড়াকৈর গ্রামে মন্দির চত্বরের জমি দখল করে কমিউনিটির বাসিন্দাদের যাতায়াতের রাস্তা বাঁশের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দেন একই গ্রামের মাদরাসা শিক্ষক হাবিবুর রহমান ও তার লোকজন। এতে অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে ৩৪ পরিবার। এর জের ধরে গত ৭ মে শ্রীমন্ত সাহার পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলা ও ১৩ মে গভীর রাতে বাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে।