‘সকলের সম্মিলিত অংশগ্রহণের মাধ্যমে মাদক মোকাবেলা করতে হবে’

আপডেট: মে ৯, ২০২১, ৯:৫৭ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের আয়োজনে লাইট হাউস কনসোর্টিয়াম-যৌথ অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে মাদক বিরোধী কার্যক্রম ‘ড্রাগ এবিউজ রেসিসটেন্ট অ্যান্ড আন্ডারস্ট্যান্ডিং (দাড়াও)’ প্রকল্প বাস্তবায়নের লক্ষে রোববার (৯ মে) জুম অনলাইনের মাধ্যমে ২ঘণ্টা ব্যাপী সাংবাদিকদের সাথে এক গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে। আর এই বৈঠকে সকলের সম্মিলিত অংশগ্রহণের মাধ্যমে মাদক মোকাবেলা করার আহ্বান জানানো হয়।
ইউএসএআইডি এবং সিএফডিও-এর আর্থিক সহায়তায় কাউন্টারপার্ট ইন্টারন্যাশনাল কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন প্রোমোটিং অ্যাডভোকেসি অ্যান্ড রাইটস (পার) কর্মসূচির আওতায় রাজশাহী ও নাটোর জেলায় প্রকল্পটি মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়ন করছে। গোলটেবিল বৈঠকে ঢাকা আহছানিয়া মিশনের পরিচালক স্বাস্থ্য মো. ইকবাল মাসুদ এর সভাপতিত্বে গোলটেবিল বৈঠকে স্বাগত বক্তব্য রাখেন লাইট হাউস প্রধান নির্বাহী মো. হারুন অর রশিদ।
গোলটেবিল বৈঠকে আমিন্ত্রত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ শরিফুল হক, রাজশাহী বিভাগীয় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের অতিরিক্ত পরিচালক মো. জাফরুল্লাহ কাজল, দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহসিন মৃধা এবং পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার নুরুল হাই মোহাম্মদ আনাস পিএএ। এসময় আপস’র নির্বাহী পরিচালক মো. আবুল বাশার পল্টু উপস্থিত সকলকে শুভেচ্ছা জানান।
দাড়াও প্রকল্পের মনিটরিং, ইভালুয়েশন অ্যন্ড লার্ণিং কোঅর্ডিনেটর সুব্রত কুমার পাল পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। সেই সাথে মাদক বিরোধী কর্মসূচীর বিভিন্ন দিক তুলে ধরে কার্যক্রম বাস্তবায়নে সকলের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন। গোলটেবিল বৈঠকের এক পর্যায়ে ইউএসএআইডি এর সিভিল সোসাইট অ্যাডভাইজার সুমনা মাসুদ সকলের প্রতি শুভেচ্ছা জ্ঞপন করেন। ঢাকা আহছনিয়া মিশনের অ্যাডভোকেসি অফিসার উম্মে জান্নাতের সঞ্চালনায় গোলটেবিল বৈঠকে বক্তব্য রাখেন দৈনিক সোনার দেশ সম্পাদক মো. আকবারুল হাসান মিল্লাত, বাসসের সিনিয়র রিপোর্টার ড. আইনুল হক, নিউজ টুয়েন্টিফোর এর কাজী শাহেদ, বাংলানিউজের প্রতিবেদক শরীফ সুমন, এসএটিভির রাজশাহী ব্যুরো চীফ জিয়াউল গনি সেলিম, মানবজমিনের স্টাফ রিপোর্টার আসলাম উদ দৌলা, সোনালী সংবাদের কাজী নাজমুল হক, বৈশাখী টেলিভিশনের আব্দুস সাত্তার ডলার, চ্যানেল টুয়েন্টি ফোর এর আবরার শাঈর, যমুনা টেলিভিশনের মওদুদ রানা, মাছরাঙা টেলিভিশনের গোলাম রাব্বানী, কালের কন্ঠের রাজশাহী ব্যুরো চীফ রফিকুল ইসলাম প্রমূখ।
রাজশাহী জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ শরিফুল হক বলেন, শুধু আইন প্রয়োগ করে মাদক মুক্ত করা সম্ভব নয়, সকলের সম্মিলিত অংশগ্রহণ, সরকার ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের অংশীদারিত্ব নিশ্চিত করতে হবে, মাদকের পেছনে যে ব্যায় হয় তা যদি নিয়ন্ত্রন করা যায় তাহলে জিডিপিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।
রাজশাহী বিভাগীয় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের অতিরিক্ত পরিচালক মো. জাফরুল্লাহ কাজল বলেন, গণমাধ্যম সমাজের আয়না, আয়নাতে মুখ দেখেই আমাদের এগিয়ে যেতে হবে, তাহলে মাদক বিরোধী কার্যক্রমকে সফল করা সম্ভব হবে।
দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহসিন মৃধা বলেন, তৃণমূল পর্যায় থেকে মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানান এবং উপজেলা প্রশাসন সবসময়ই এ কাজে সর্বাত্বক সহযোগিতা করবে বলেও ঘোষণা প্রদান করেন।
পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার নুরুল হাই মোহাম্মদ আনাস পিএএ বলেন, মাদক প্রতিরোধে গণমাধ্যমই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে, তারা জনমতের প্রতিফলন হিসেবে কাজ করছে। এই ধারা অব্যাগত রাখার অনুরোধ করেন গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকদের।
সোনার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক আকবারুল হাসান মিল্লাত বলেন, মাদকের এই আগ্রাসি চরিত্র থেকে যুব সমাজ কে বাচাঁতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে, করোনাকালেও মাদকের ভয়াবহতা রোধে অনলাইন প্লাট ফরমকে কাজে লাগাতে হবে।
এছাড়াও অন্যান্য বক্তারা সমস্বরে বলেন মাদকের ভয়াল থাবা থেকে সমাজকে রক্ষা করার জন্য সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য নিশ্চিত করার লক্ষ্যে একটি সুন্দর সমাজ বিনির্মাণ করতে হবে। মাদক সর্বনাশী,পরিবারকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে এই মাদক, আমাদের মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। সে লক্ষ্যে গণমাধ্যম কর্মীদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। সাংবাদিকদের লেখনির মাধ্যমে মাদকবিরোধী সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে মূখ্য ভূমিকা রাখবে। এছাড়াও কনসোর্টিয়াম অংশীদার হিসেবে আসক্ত পূনর্বাসন সংস্থা (আপস)-রাজশাহী এবং নারী ও শিশু কল্যাণ সোসাইটি নাটোর এ কার্যক্রম পরিচালনা করছে।