সন্তান যখন সেলিব্রেটি ‘কচ্ছপ’

আপডেট: নভেম্বর ১১, ২০১৬, ১১:১৯ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক
বিশ্বে বিভিন্ন মাধ্যমে মানুষের মন জয় করে অনেকেই সেলিব্রেটি হয়েছেন। কেউ শিল্পসাহিত্েয, কেউ সংগীত-চলচ্চিত্রে, কেউ খেলাধুলায়, কেউ ব্যবসায় আবার কেউ বা রাজনীতি কিংবা অন্যকোনো কর্মে।
সেলিব্রেটি সন্তানের জন্য বাবা-মা গর্ববোধ করবেন স্বাভাবিকভাবেই। কিন্তু সেই সেলিব্রেটি সন্তান যখন ‘কচ্ছপ’, তখন তো অবাকই হতে হয়।
এমনই এক সেলিব্রেটি কচ্ছপের সন্ধান পাওয়া গেছে জাপানে। ‘বন চান’ নামের ওই কচ্ছপটিকে দেশটির রাজধানীর টোকিও ছুকুশিমা জেলার চু ওয়ার্ডের বাসিন্দা হিসাও মিতানি ‘সন্তান’ হিসেবেই দেখেন। জাপানে অধিকাংশ মানুষ যুগ যুগ ধরে পোষা প্রাণী হিসেবে পালন করে আসছেন কুকুর-বিড়ালকে। কিন্তু এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম হিসাও মিতানি।
প্রায় দুই যুগ ধরে ‘বন চান’ কে সন্তানের মতোই পালন করে আসছেন ৬৩ বছর বয়সী মিতানি। তার কোনো সন্তান নেই।
কচ্ছপটির ওজন সত্তর কেজি আর এর প্রস্থ এক মিটার। বিরল এই প্রাণীটিকে দেখতে প্রতিদিনই রাস্তায় ভিড় করে অনেক মানুষ। অনেকে আবার ভিড় জমান হিসাও মিতানির বাড়িতেও।
আফ্রিকান প্রজাতির এই কচ্ছপ যখন রাস্তা দিয়ে হাঁটে, তখন অনেকটা পোষা প্রাণীর মতোই দেখায়। হিসাও মিতানি কোথাও বের হলে সঙ্গী হিসেবে পাশে থাকে ‘বন চান’। মানুষের ভিড় সামলে উঠতে মাঝে মাঝে ভরকে গেলেও তার এই ‘সন্তান’ মানুষকে আনন্দ দিতে পারে বলে খুশি তিনি।
তিনি বলেন, “সাধারণত কুকুর কিংবা বিড়াল সবার পছন্দ হলেও আমি কিছুটা চ্যালেঞ্জ নিয়েছি। কচ্ছপটাকে ছোট থেকে পোষ মানিয়ে নিতে শুরু করেছিলাম। আর এর জন্য অনেক শ্রমও দিতে হয়েছে।”


একদিনে কথা। রাস্তায় যখন ‘বন চান’ হাঁটছিল তখন কয়েকটি শিশু তার পিঠে চড়ে আনন্দ করছিল। এমনকি রাস্তা পারাপারের সময় মনিবের কথা মতো পা ফেলছিল ‘বন চান’। এর ফাঁকে হিসাও মিতানি জানালেন, “আসলে আমি নিজের সন্তানের মতোই ‘বন চান’ কে দেখি। প্রতিদিন খাবার হিসেবে তাকে সবজি দিতে হয়। আর শোয়ার জন্য বাড়িতে করা হয়েছে কাঠের ঘর।”
তিনি আরো বলেন,“প্রকৃতির প্রতিটি সৃষ্টিই অসাধারণ। কোন সৃষ্টিকে ভালবাসলে তারাও যে ভালবাসতে পারে তা আমি আমার এই সন্তানের কাছ থেকে শিখেছি।”
বিদেশ থেকেও অনেকেই এই বিরল প্রজাতির কচ্ছপটি দেখতে আসে হিসাও মিতানির বাড়িতে।- বিডিনিউজ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ