সব দলের প্রস্তাব বিবেচনা করে ইসি গঠন: রাষ্ট্রপতি

আপডেট: জানুয়ারি ১৮, ২০১৭, ১১:৫৯ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


সংলাপে রাজনৈতিক দলগুলোর যে মতামত ও প্রস্তাব এসেছে, তা বিবেচনা করে শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন গঠন সম্ভব হবে বলে আশা করছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।
নতুন ইসি গঠন নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপের শেষ দিনে এই আশাবাদ প্রকাশ করেন রাষ্ট্রপ্রধান; তবে কী প্রক্রিয়ায় নতুন ইসি গঠন হবে, তা জানাননি তিনি।
শেষ দিনে বুধবার বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ (বিএমএল) ও জাকের পার্টির সঙ্গে আলোচনা করেন মো. আবদুল হামিদ।
বৈঠক শেষে রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন সাংবাদিকদের বলেন, “আলোচনায় রাষ্ট্রপতি বলেছেন, ইতোমধ্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল সার্চ কমিটি ও নির্বাচন কমিশন গঠনে অনেক সুচিন্তিত প্রস্তাব এবং মতামত দিয়েছেন।
“তিনি (রাষ্ট্রপতি) আশা প্রকাশ করেন, এসব প্রস্তাব ও মতামত বিবেচনা করে একটি শক্তিশালী ও কার্যকর নির্বাচন কমিশন গঠন সম্ভব হবে।”
রাষ্ট্রপতি বলেন, রাজনৈতিক দলগুলোর প্রস্তাব ও মতামত শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন গঠনে ইতিবাচক অবদান রাখবে।
দেশের গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নিতে সব রাজনৈতিক দলকে সহযোগিতামূলক মনোভাব নিয়ে এগিয়ে আসার আহ্বানও রাষ্ট্রপতি রেখেছেন বলে প্রেস সচিব জানান।
কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ নেতৃত্বাধীন বর্তমান নির্বাচন কমিশন আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে বিদায় নিতে যাওয়ায় গত বারের মতো এবারও দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ করে নতুন ইসি গঠনের উদ্েযাগ নেন রাষ্ট্রপতি।
কাজী রকিবউদ্দীন নেতৃত্বাধীন ইসি গঠনের আগে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান একটি সার্চ কমিটি গঠন করে তাদের সুপারিশের মধ্য থেকে পাঁচজনকে নিয়ে ইসি গঠন করেন। এবারও একই প্রক্রিয়ায় ইসি গঠন হবে বলে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের কথায় আভাস মিলেছে; যদিও বঙ্গভবন থেকে এখনও সে বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানানো হয়নি।
রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সংলাপে বেশিরভাগ দল সংবিধান অনুযায়ী আইন প্রণয়নের দাবি জানিয়েছে, তা না হওয়া পর্যন্ত সার্চ কমিটির পক্ষেই মত দিয়েছে বেশিরভাগ দল।
ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ বলেছে, ইসি গঠনে সম্ভব হলে এখনই আইন প্রণয়ন কিংবা অধ্যাদেশ জারি করা যেতে পারে; তবে তাদের এই উদ্দেশ্য নিয়ে সন্দেহ পোষণ করছে দশম সংসদ নির্বাচন বর্জনকারী বিএনপি।
আওয়ামী লীগ নেতারা বলেছেন, ভবিষ্যৎ নির্বাচন নিয়ে কোনো বিতর্ক তারা চান না, সব দলের অংশগ্রহণে নির্বাচন চান তারা। তবে তাদের আন্তরিকতা নিয়েও সন্দেহ রয়েছে বিএনপির।
বিএনপি সাবেক একজন প্রধান বিচারপতিকে প্রধান করে পাঁচ সদস্েযর সার্চ কমিটি গঠনের প্রস্তাব দিয়েছে।
বিএনপিসহ অধিকাংশ দলই আশা প্রকাশ করেছে, রাষ্ট্রপতি শক্তিশালী ও গ্রহণযোগ্য একটি নির্বাচন কমিশন গঠন করবেন।
সংলাপে আবদুল হামিদ নির্বাচনের ক্ষেত্রে রাজনৈতিক দলগুলোর দায়িত্বশীল ভূমিকার কথাও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন। রাজনৈতিক দলগুলোকে নিজেদের মধ্যে সংলাপ করার আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি। সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য দলগুলোর সহযোগিতাও চেয়েছেন তিনি।
জাতীয় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে রাজনৈতিক দলগুলোর মতৈক্য প্রতিষ্ঠার গুরুত্বের কথাও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন আবদুল হামিদ। রাজনৈতিক দলগুলোর পরমত সহিষ্ণুতার সংস্কৃতি চর্চার উপরও জোর দিয়েছেন তিনি।
সার্চ কমিটিতে সব দলের প্রতিনিধিত্ব চায় জাকের পার্টি
জাকের পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তফা আমীর ফয়সলের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের প্রতিনিধি দল রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আলোচনায় বসেন।
আলোচনায় তারা আশা প্রকাশ করেন সংবিধান অনুযায়ী একটি গ্রহণযোগ্য, স্বাধীন ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠনে রাষ্ট্রপতির চলমান উদ্যোগ সফল হবে।
প্রেস সচিব জয়নাল আবেদীন জানান, জাকের পার্টি সব নিবন্ধিত দলের থেকে একজন করে প্রতিনিধি সমন্বয়ে সার্চ কমিটি গঠনের প্রস্তাব করেন। এছাড়া স্বাধীন, স্বতন্ত্র ও আর্থিকভাবে স্বয়ংসম্পূর্ণ নির্বাচন কমিশন গঠনের প্রস্তাব করা হয়।
ইসির আর্থিক স্বাধীনতা চায় ইসলামী ফ্রন্ট
বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের চেয়ারম্যান মাওলানা এ.এ মান্নান নয় সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আলোচনা করেন।
প্রেস সচিব জয়নাল আবেদীন বলেন, “ইসলামী ফ্রন্টের প্রতিনিধি দল নির্বাচন কমিশন গঠনে ছয় দফা প্রস্তাব পেশ করেন।
“তারা বলেন, স্বাধীন, শক্তিশালী ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনই একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে পারে। তারা নির্বাচন কমিশনের জন্য পৃথক সচিবালয় গঠন এবং কমিশন সচিবালয়ের আর্থিক স্বাধীনতা প্রদানের প্রস্তাব করেন।”
ইসলামী ফ্রন্ট আশা করেছে, রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে একটি শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন গঠিত হবে, যার মাধ্যমে আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠিত হবে।- বিডিনিউজ