সভাপতি-সম্পাদকের আন্তঃদ্বন্দ্বে দুই ঘণ্টা বন্ধ স্বর্ণপট্টি

আপডেট: ডিসেম্বর ৫, ২০২৩, ৯:৪৭ অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক:


বাংলাদেশ জুয়েলার্স এসোসিয়েশন (বাজুস) রাজশাহী জেলা শাখার কার্যালয়ে তালা দেয়াকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা ও বাকবিতন্ডার ঘটনা ঘটে। এনিয়ে মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) নগরীর স্বর্ণকার পট্টির সকল দোকান ও শোরুম বন্ধ ছিল দুই ঘণ্টা। জানা গেছে, সভাপতি ও সেক্রেটারি পক্ষের মধ্যে এই দ্বন্দ্বের সূত্রপাত ঘটে রাজশাহীর কার্যালয়ে তালামারাকে কেন্দ্র করে। এই দ্বন্দ্বের প্রেক্ষিতে সাধারণ সদস্য ও ব্যবসায়ীরা পড়েছেন চরম বিপাকে। কেউবা বলছেন, গত ১৯ জানুয়ারি দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনের ফলাফল ও এসোসিয়েশনের ক্ষমতা ও অর্থের হিসেব নিকেষ নিয়ে নির্বাচন পরবর্তী সময় থেকেই চলছে এই সুপ্ত দ্বন্দ্ব।

রাজশাহী শাখার সভাপতি মানিক সহ সাধারণ সদস্য ও ব্যবসায়িরা অভিযোগ করে বলেন, গত ৪ নভেম্বর রাত ১০ টার দিকে সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ডাবলু তার লোকজন নিয়ে অনৈতিক ভাবে কার্যালয়ের প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেন। পরেরদিন সকালে সভাপতি সহ কমিটির অন্যান্য সদস্যরা কার্যালয়ের গেটে ভিন্ন তালা দেখে চিন্তিত হয়ে পরেন। পরবর্তীতে সেক্রেটারি ডাবলুকে কার্যালয়ের তালা খুলতে বললে তিনি গালিগালাজ করে পরিকল্পিত ভাবে সার্বিক পরিবেশ উত্তপ্ত করে তোলেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সাধারণ ব্যবসায়ী ও বাজুস রাজশাহী জেলা শাখার সদস্যরা জানান, নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক ডাবলুর প্যানেল পরাজিত হবার পর থেকেই মাঝেমধ্যেই সভাপতি-সম্পাদক গ্রুপের মধ্যে এমন উত্তেজনা আর বাকবিতন্ডার লেগেই থাকতো। বিষয়টি সুরাহা করার নিমিত্তে কেন্দ্রের কাছে স্বশরীরে অভিযোগ দিলেও আজ অবদি সেটির কোন সমাধান হয়নি। ২১ সদস্য বিশিষ্ট নির্বাচিত এই কমিটির নির্বাহী সদস্য সংখ্যা ২১ জন। এরমধ্যে, সভাপতির প্যানেলে রয়েছে ১৬ জন। আর অভিযুক্ত সম্পাদকরে প্যানেলে রয়েছে ৫ জন।

এবিষয়ে সভাপতি মানিক বলেন, ডাবলু তার লোকজন নিয়ে এসোসিয়েশনের অর্থ যখন তখন খরচ করে। সে কখনোই সংগঠণের নিয়মনীতি মান্য করেনা। এসোসিয়েশন থেকে বারবার নিষেধ করা হলেও ডাবলু সেটি অমান্য করে নিজের খেয়াল খুশি মতো চলে। ঘটনার দিন রাতে ডাবলু সহ শামিউল ইসলাম, রনি চন্দ্র মন্ডল, মনিসা রায়, সেলিম হোসেন, মনিরুল ইসলাম মনিসহ আরো বেশ কয়েকজন কার্যালয়ে গিয়ে প্রধান ফটকে নিজেদের তালা ঝুলিয়ে দেয়। এরই প্রতিবাদে ৫ নভেম্বর সকালে প্রায় দুই ঘন্টার মতো স্বর্ণকার পট্টির সকল দোকান বন্ধ রাখা হয়েছিল।

এবিষয়ে জানতে চাইলে, প্রধান কার্যালয় থেকে দায়িত্ব প্রাপ্ত রাজশাহী বিভাগীয় প্রতিনিধি আশরাফুল ইসলাম অপু বলেন, সভাপতি-স্পাদকের মধ্যে নানা বিষয়ে চলমান দ্বন্দ্ব নিরসনে কেন্দ্র পরামর্শ ও নির্দেশনা থাকলেও সেটি আজও সমাধান হয়নি। কেন্দ্র থেকে আমাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে এই দ্বন্দ্ব নিরসনে। তারই ধারাবাহিকতায় আমি সভাপতি ও সম্পাদকের কাছে কার্যালয়ে চাবি চেয়েছিলাম। সভাপতি আমাকে চাবি বুঝিয়ে দিলেও সম্পাদক ডাবলু আমাকে এখনো চাবি দেয়নি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ