সমাজসেবা অফিসের উদ্যোগে শতভাগ সেবা নিশ্চিত হতে যাচ্ছে শিবগঞ্জে

আপডেট: June 24, 2020, 10:02 pm

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি:


শিবগঞ্জে সুবিধাভোগীদের সংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে সেবার মান ও ব্যয়। বেড়েছে সমাজ সেবা অফিসের কাজ। শিবগঞ্জ সমাজ সেবা অফিসের দেয়া তথ্য অনুযায়ী ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে শিবগঞ্জ সমাজ সেবা অফিসের অধীনে সুবিধা ভোগীদের সংখ্যা ছিল ৩৬ হাজার ৯ শ ২৯ জন এবং গত অর্থ বছরে ভাতা বাবদ অর্থ প্রদান ১৯ কোটি ৮৫ লাখ ৭ হাজার ৯ শ টাকা। ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে ৩ হাজার ৯ শ ৬৫ জন বৃদ্ধি পেয়ে সুবিধা ভোগীদের সংখ্যা হয়েছে ৪০ হাজার ৮ শ ৯৪ জন। ভাতা বাবদ প্রদান করা হয়েছে ২১ কোটি ৬৫ লাখ ৭ হাজার ৯ শ টাকা। তাছাড়া প্রতিবন্ধী শিক্ষা উপবৃত্তি প্রদানের ক্ষেত্রে গত অর্থ বছরে প্রদান করা হয়েছিল ১৮ লাখ ৯২হাজার টাকা। চলতি২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে হয়েছে বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে ৩৭৪ জন। অর্থ প্রদান করা হয়েছে ২৫ লাখ ৯২ হাজার টাকা। অতিরিক্ত প্রদান ৭ লাখ টাকা। মুক্তিযোদ্ধা ও বীরঙ্গনার সংখ্যা হলো ৯৩৯ জন। তাদের ভাতা বাবদ প্রদান করা হয়েছে ১৩ কোটি ১৪ লাখ ৪০ হাজার টাকা। চলতি অর্থ বছরে প্রদান করা হয়েছে ৪০ কোটি ৪২লাখ ৭ হাজার ২শ টাকা। সব মিলিয়ে গত ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের চেয়ে চলতি অর্থ বছরে বৃদ্ধি পেয়েছে ৩ কোটি ২৫ লাখ ৬২ হাজার টাকা।

অফিস সূত্র অনুযায়ী শিবগঞ্জ পৌর সভায় চলতি অর্থবছরে বয়স্ক ভাতাভোগীর সংখ্যা৭৮ জনবৃদ্ধি পেয়ে ২০৭৯ জন, পাঁকা,ইউনিয়নে ৩০ জন বৃদ্ধি পেয়ে ১১৮৫ জন, দূর্লভপুর ইউনিয়নে ৩৯ জন বৃদ্ধি পেয়ে ২৭৮০ জন, নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়নে ২৯ জন বৃদ্ধি পেয়ে ১৩৭৫ জন, উজিরপুর ইউনিয়নে ৫০ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৮০২ জন, কানসাট ইউনিয়নে ৩২ জন বৃদ্ধি পেয়ে ১২৯৭জন, চককীর্ত্তি ইউনিয়নে ৩৫ জন বৃদ্ধি পেয়ে ১৩৩৩ জন, ঘোড়াপাখিয়া ইউনিয়নে ২০ জন বৃদ্ধি পেয়ে ১০৯১ জন, সাহাবাজপুর ইউনিয়নে ২৫জন বৃদ্ধি পেয়ে ১৭৬৫ জন, দাইপুখুরিয়া ইউনিয়নে ২৬ জন বৃদ্ধি পেয়ে ১২৫১জন, ধাইনগর ইউনিয়নে ২৬জন বৃদ্ধি পেয়ে ১৩৩৪জন, শ্যামপুর ইউনিয়নে ৩২জন বৃদ্ধি পেয়ে ১৬০৭জন, ছত্রাজিতপুর ইউনিয়নে ২১ বৃদ্ধি পেয়ে ৯২৮জন, বিনোদপুর ইউনিয়নে ৩৫জন বৃদ্ধি পেয়ে ১৭৭৫জন, মনাকষা ইউনিয়নে ৩৭জন বৃদ্ধি পেয়ে ১৮০৯জন, মোবাররকপুর ইউনিয়নে ৩১জন বৃদ্ধি পেয়ে ১১৭১জন।

গত অর্থ বছরে বয়স্কভাতা ভোগীদের সংখ্যা ঝিল ২২৮৭১জন। চলতি অর্থ বছরে ৫৪৮ বেড়ে হয়েছে ২৩৪১৯জন। জন প্রতি মাসিক ৫শ টাকা হারে চলতি অর্থ বছরে ভাতা বাবদ অর্থ প্রদান করা হয়েছে, ১৪ কোটি ৫১লাখ ৪ হাজার টাকা। বিধবা ও স্বামী নিগৃহিতা নারী ভাতার ক্ষেত্রে চলতি অর্থ বছরে শিবগঞ্জ পৌরসভায় ৫৫জন বৃদ্ধি পেয়ে ৬২০জন, পাঁকা ইউনিয়নে ৩৫ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৭৪জন, দূর্লভপুর ইউনিয়নে ৩৪ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৫৫৬জন, নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়নে ৩২জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৫০জন, উজিরপুর ইউনিয়নে ৩২ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৭০জন, কানসাট ইউনিয়নে ৩২ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৬১জন, চককীর্তি ইউনিয়নে ৩২জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৪৩জন, ঘোড়াপাখিয়া ইউনিয়নে ২৬জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৩৮জন, শাহাবাজপুর ইউনিয়নে ২৫জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৫৩জন, দাইপুখুরিয়া ইউনিয়নে ২৬জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৩৮জন ধাইনগর ইউনিয়নে ২৬জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৩৮জন, শ্যামপুর ইউনিয়নে ২৮ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৮২জন, ছত্রাজিতপুর ইউনিয়নে ২৫ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৩২ জন, বিনোদপুর ইউনিয়নে ৩০ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪০৫ জন, মনাকষা ইউনিয়নে ৩০ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৮৬ জন ও মোবারকপুর ইউনিয়নে ৩০ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৪২ জন।

গত অর্থ বছরে ছিল ৭০৯১ জন। চলতি অর্থ বছরে বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে ৭৫৮৪ জন। প্রতিজন মাসিক ৫শ টাকা হারে চলতি অর্থ বছরে মোট ভাতা প্রদান করা হয়েছে ৪ কোটি ৫৫ লাখ ৪ হাজার টাকা। অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধীর ক্ষেত্রে গত অর্থ বছরের চেয়ে চলতি অর্থ বছরে উপজেলায় প্রতিবন্ধীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে ২৯২৪ জন।

শিবগঞ্জ পৌরসভায় ২৬৭জন বৃদ্ধি পেয়ে ৯০৫ জন, পাঁকা ইউনিয়নে ১৩৯ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৪৫৬ জন, দূর্লভপুর ইউনিয়নে ২৯২ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৯৩৩ জন, নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়নে ১০৬ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৫৭৮ জন, উজিরপুর ইউনিয়নে ৪০ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৩১১ জন, কানসাট ইউনিয়নে ২৭০ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৭০৩ জন, চককীর্তি ইউনিয়নে ২৪৬ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৬৬৫ জন, ঘোড়াপাখিয়া ইউনিয়নে ১১৪ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৩৮৮ জন, শাহাবাজপুর ইউনিয়নে ১৭০ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৬৮৫ জন, দাইপুখুরিয়া ইউনিয়নে ১১৪ বৃদ্ধি পেয়ে ৫৩৭ জন, ধাইনগর ইউনিয়নে ২৬৪ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৬৯২ জন, শ্যামপুর ইউনিয়নে ১২৯ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৫৮০ জন, ছত্রাজিতপুর ইউনিয়নে ৮৩ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৩৮৬ জন, বিনোদপুর ইউনিয়নে ৩০৪ জন বৃদ্ধি পেযে ৭৮৪ জন, মনাকষা ইউনিয়নে ২৯১ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৬২১ জন ও মোবারকপুর ইউনিয়নে ১৪৪ জন বৃদ্ধি পেয়ে ৫১২ জন। মোট ৯৮৯১ জন। গত অর্থবছরে ছিল ৬৯৬৭ জন। প্রতিজন মাসিক ৭শ টাকা হারে চলতি অর্থ বছরে ভাতা প্রদান করা হয়েছে ৮ কোটি ৩০ লাখ ৮৪ হাজার ৪শ টাকা। একজন বীরঙ্গনাসহ ৯৩৯ জন মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বাবদ প্রদান করা হয়েছে ১৩ কোটি, ১৪ লাখ ৪০ হাজার টাকা। প্রতিবন্ধী শিক্ষা উপবৃত্তির ক্ষেত্রে প্রাথমিক স্তরে ২৮৮ জনকে মাসিক৭শ, মাধ্যমিক স্তরে ৩৮ জনকে মাসিক সাড়ে ৭শ, উচ্চমাধ্যমিক স্তরে ৩০ জনকে মাসিক সাড়ে ৮শ ও উচ্চতর স্তরে ২৮ জনকে মাসিক ১২শ টাকা হারে মোট ৩৭৪ জনকে গত অর্থ বছরে উপবৃত্তি প্রদান করা হয়েছে ২৫ লাখ ৯২ হাজার টাকা। দলিত হরিজন সম্প্রদায়ের ১৮৯ জনকে ১১ লাখ ৩৪ হাজার টাকা, বেদে সম্পদায়ের ৫ জনকে ৩০ হাজার টাকা, দলিত হরিজন সম্প্রদায়ের ৪৫ জনকে শিক্ষা উপবৃত্তি দেয়া হয়েছে ২লাখ ১০ হাজার টাকা, প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে ১৯০ জনকে ৩৪ লাখ ২০ হাজার টাকা, ক্যান্সার, কিডনী ও লিভার সিরোসিসসহ বিভিন্ন ধরনের ৫০ জন রোগীকে ২৫ লাখ টাকা প্রদান করা হয়েছে। তাছাড়াও গরীব, দুঃখী,প্রতিবন্ধী ও অসহায় ব্যক্তিদের জন্য জাতীয় সমাজ কল্যাণ পরিষদ থেকে এককালীন ভাতা ও রোগী কল্যাণ সমিতি থেকে ওষুধ ও অ্যামবুলেন্স ভাড়া দেয়া হয়।
শিবগঞ্জ উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা কাঞ্চন কুমার দাস বলেন, প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার স্বপ্ন সমাজের সব ধরনের অসহায় মানুষের অন্ন বস্ত্র,বাসস্থানও চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া নির্দেশনা মোতাবেক শিবগঞ্জ উপজেলা সমাজ সেবা অফিস শিবগঞ্জ উপজেলা অস্বচ্ছল, প্রতিবন্ধী, বিধবা, বয়স্ক, অসহায়, বিভিন্ন ধরনের রোগী বিভিন্ন শ্রেণির শতভাগ সেবা নিশ্চিত করতে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, আমরা আশাবাদী অল্প সময়ের মধ্যেই আমরা শতভাগ সেবা নিশ্চিত করবো ইনশা আল্লাহ।