সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে ৩য় শ্রেণির পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ করার অভিযোগ

আপডেট: নভেম্বর ২৭, ২০২২, ১১:০৪ অপরাহ্ণ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :


চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলাবাসীর দাবিকে উপেক্ষা করে একটি স্বার্থান্বেষী মহল নবাবগঞ্জ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণির পাঠদান কার্যক্রম বন্ধে লিপ্ত হয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পরপরই বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের ভঙ্গুর শিক্ষা ব্যবস্থাকে বিভিন্নভাবে ঢেলে সাজায়। কিন্তু সরকার বিরোধী কতিপয় জনপ্রতিনিধিসহ একটি মহলের বাঁকা চোখের কারণে জেলা শহরের সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে ৩য় শ্রেণির কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ভর্তি থেকে বঞ্চিত করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে। সচেতন মহল মনে করছেন, এ চক্রটি খোঁড়া যুক্তি তুলে শিক্ষা ব্যবস্থাসহ এই এলাকাকে পিছিয়ে ফেলার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়ে পড়েছে। বর্তমানে পাশর্^বর্তী রাজশাহী জেলাসহ বিভিন্ন জেলার সরকারি বালিকা বিদ্যালয়গুলোতে মাধ্যমিকের পাশাপাশি প্রাথমিক শাখা রয়েছে। সেসব জেলার বালিকা বিদ্যালয়গুলোতে ৩য় শ্রেণি থেকে ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হয়ে থাকে। অথচ জেলা শহরে অবস্থিত নবাবগঞ্জ সরকারি বালিকা বিদ্যালয় ১৯৫১ সালে প্রতিষ্ঠার পর ১৯৭৬ সালে সজ্জন ব্যক্তিদের প্রচেষ্টায় এ বিদ্যালয়ে ৩য় শ্রেণি থেকে প্রাথমিকে শাখা খোলা হয় এবং সেখানে কোমলমতি শিশু তথা মেয়ে শিক্ষার্থীরা ভর্তি হয়ে লেখাপড়ার সুযোগ গ্রহণ করে থাকে। কিন্তু স্বার্থান্বেষী একটি মহল এলাকার শিশুদের মেধা বিকাশে কোন ভূমিকা না রেখে বরং তারা শুধু বিরোধীতা করে এ অঞ্চলের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ভেঙ্গে ফেলার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়ে পড়েছে। পারভেজ আলম নামে এক অভিভাবক জানান, স্বার্থান্বেষী মহল এ অঞ্চলের শিক্ষা ব্যবস্থাসহ সকল উন্নয়নকে বাধাগ্রস্থ করতে উঠে পড়ে লেগেছে। তারা শুধু বিরোধীতার স্বার্থে নবাবগঞ্জ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩য় শ্রেণির পাঠদান বন্ধ করার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের ভুল বুঝিয়ে আগামী বছর থেকে ৩য় শ্রেণির পাঠদান বন্ধে একটি পত্র জারি করিয়েছে। কিন্তু এই বিদ্যালয়ের সভাপতি জেলা প্রশাসক এলাকার মানুষের চাহিদার কথা ভেবে আগামী বছর ৩য় শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তির ব্যবস্থা করেছে। আর এরপর থেকেই ওই কুচক্রি মহলটি তা বন্ধে তৎপরতা শুরু করেছে। এমনকি এই ভর্তি প্রক্রিয়া বন্ধে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে ফোনে বিএনপির এক জনপ্রতিনিধি হুমকী-ধামকি দেয়া অব্যাহত রেখেছেন বলে একটি সূত্র জানিয়েছে। এতে করে জেলাবাসীর মনে ক্ষোভ দেয়া দিয়েছে।

এ ব্যাপারে নবাবগঞ্জ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খাঁন বলেন, পাঠদান বন্ধে একটি চিঠি তিনি পেয়েছেন। তবে সেটির সত্যতা যাচাই করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট পত্র প্রেরণ করা হয়েছে। তবে জেলার মানুষের শিক্ষা ও দাবির কথা ভেবে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি ৩য় শ্রেণির ভর্তি কার্যক্রম শুরু করেছে।

এ প্রসঙ্গে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওদুদ জানান, তিনি সংসদ সদস্য থাকাকালিন সময়ে শিক্ষার উন্নয়নসাধিত হয়েছে। তিনি এসব বিষয়ে কোন ধরনের হস্তক্ষেপ করেননি। তার মতে, এই বিদ্যালয়ে প্রায় ৪৭ বছর থেকে ৩য় শ্রেণীতে ভর্তি হয়ে লেখাপড়া করে যাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। তাই জেলার মানুষের চাহিদার কথা ভেবে ৩য় শ্রেণিতে ভর্তি ও শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখা প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন।

তিনি আরো বলেন, এটি প্রশাসনিক বিষয়, এরপরও সরকারের মুখপাত্র হিসেবে যিনি এ জেলার জেলা প্রশাসক রয়েছেন তিনি এ বিদ্যালয়ের সভাপতি। তিনি অবশ্যই মানুষের চাহিদার কথা বিবেচনা করে কমলমতি শিশুদের জন্য ব্যবস্থা নিবেন। তিনি আরও বলেন, এখানে বিরোধী দলের সংসদ সদস্য থাকায় উনার লক্ষই হচ্ছে সরকারকে বিব্রতকর অবস্থায় ফেলা। তিনি হীনমন্যতার পরিচয় দিয়েছেন বলেই এ কাজটি করেছেন। তাই স্থানীয় জনমতের ভিত্তিতে ৩য় শ্রেণির শিক্ষা ব্যবস্থা চালু রাখতে হবে।

অন্যদিকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ফেরদৌসী ইসলাম জেসী এমপি বলেন, জেলাবাসীর দাবির প্রতি সম্মান জানিয়ে সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণির পাঠদান কার্যক্রম অব্যাহত রাখা হবে এবং শিক্ষামন্ত্রীকে বলে এই পাঠদান অব্যাহত রাখার ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।