সরকারি- বেসরকারি অফিসে ঈদের আমেজ

আপডেট: সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৭, ১১:৪৭ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


পবিত্র ঈদ উল আজহার পর গতকাল সোমবার থেকে খুলেছে সব সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংক-বিমা, অফিস-আদালতসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান। কিন্তু কাটেনি ঈদের আমেজ। ঈদের পর গতকাল প্রথম কর্মদিবস হলেও রাজশাহীর অফিসপাড়ায় দেখা যায়নি চিরচেনা প্রাণ-চাঞ্চল্য ও কর্মব্যস্ততা।
গতকাল প্রতিটি প্রতিষ্ঠানেই কমকর্তা ও কর্মচারীদের উপস্থিতি ছিল কম। তবে ব্যাংকগুলোতে লেনদেন হয়েছে স্বাভাবিক কার্যদিবসের মতোই। নগরীর বিভিন্ন ব্যাংক ঘুরে দেখা গেছে, প্রায় প্রতিটি ব্যাংকেই অলস সময় কাটছে কমকর্তাদের। গ্রাহক ও কর্মকর্তাদের অনেককেই ঈদের কুশল বিনিময় করে সময় কাটাতে দেখা গেছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকেও গতকাল ঈদের আমেজ লক্ষ্য করা গেছে। বেশিরভাগ বিভাগ ফাঁকা দেখা গেছে। যারা এসেছেন, তারাও নিজেদের মধ্যে কুশল বিনিময় আর আলাপ-আলোচনায় ব্যস্ত। এছাড়া সরকারি বিভিন্ন দপ্তর এবং আদালতপাড়াও অনেকটা ফাঁকা দেখা গেছে। সেখানে উপস্থিতি সাধারণ দিনের চেয়ে কম লক্ষ্য করা গেছে।
ডাচ বাংলা ব্যাংকের কর্মকর্তা আসিফ রহমান বলেন, ঈদের ছুটির পর গতকাল ব্যাংকে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। প্রথমদিন প্রায় ৯০ শতাংশের মতো কর্মকর্তা-কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন। বাকিরা ঈদের বাড়তি ছুটি নিয়ে গ্রামের বাড়িতে আছেন। দু’একদিনে মধ্যে সবাই চলে আসবেন বলে আশা করেন তিনি।
সোনালী ব্যাংকের কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম জানান, গতকাল ব্যাংকে কর্মকর্তাদের প্রায় ৮০ শতাংশ উপস্থিতি ছিল। তবে লেনদেন খুব বেশি হয়নি। আগামী সপ্তাহের শুরু থেকেই পূর্ণ আমেজে লেনদেন শুরু হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। গত ২ সেপ্টেম্বর দেশব্যাপি উদযাপিত হয় পবিত্র ঈদুল আযহা। এ উপলক্ষে ১ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ সেপ্টেম্বর অর্থাৎ শুক্রবার, শনি ও রোববার ছিল ঈদের ছুটি।