সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস পালিত সাঁওতাল বিদ্রোহের ইতিহাসকে সঠিকভাবে তুলে ধরার আহ্বান

আপডেট: জুন ৩০, ২০২২, ১০:৩৭ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহী নানা আয়োজনে ১৬৭তম সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে বৃহস্পতিবার(৩০ জুন) মোমবাতি প্রজ্জ্বলন, র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় বক্তারা বলেন, তৎকালীন ভারতে ব্রিটিশবিরোধী প্রথম গণআন্দোলন ছিল ১৮৫৫ সালের মহান সাঁওতাল বিদ্রোহ। আদিবাসীদের উপর ব্রিটিশ শাসক, মহাজন সুদ খোরদের জুলুম, অত্যাচার, নির্যাতনের বিরুদ্ধে এই বিদ্রোহ গড়ে ওঠে। এই বিদ্রোহে সিধু কানু, চাঁদ ভৈরব ফুলমনিসহ প্রায় ২০ হাজার সাঁওতাল শহিদ হয়েছিলেন। কিন্তু ইতিহাসে এই বিদ্রোহকে সঠিকভাবে তুলে ধরা হয় নি। সঠিক ইতিহাস তুলে ধরতে সরকারের সহযোগিতা প্রয়োজন। এখনো সাঁওতালসহ অপরাপর আদিবাসীরা অত্যাচার নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন।

তারা আরও বলেন, এই জনগোষ্টির জন্য এই বীরসেনারা প্রাণ বিসর্জন দিলেও আজও সমতলের আদিবাসীদের কোন উন্নয়ন হয়নি। তারা এখনো বৈষম্যের শিকাড় হচ্ছে। পাহাড়ীদের জন্য হাজার হাজার কোটি টাকা বাজেট ও আলাদা মন্ত্রণালয় হলেও সমতলেল আদিবাসী জনগণেল জন্য কিছুই হয়নি। আদিবাসীদের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠি নয়; আদিবাসী হিসেবে সাংবিধানিক স্বীকৃতি এবং সমতলের আদিবাসীদের জন্য স্বাধীন ভূমি কমিশন ও পৃথক সন্ত্রণালয় গঠন করার দাবি জানানো হয়।

উত্তরবঙ্গ থেকে জাতীয় সংসদের জন্য সংরক্ষিত সংসদ সদস্য আসন এবং জাতীয় বাজেটে পর্যাপ্ত পরিমানে বাজেট রাখার দাবিও জানান বক্তারা।

আদিবাসী ছাত্র পরিষদ: সাঁওতাল বিদ্রোহের ১৬৭ তম দিবস পালন উপলক্ষে আদিবাসী ছাত্র পরিষদের উদ্যোগে শহিদ মিনারের বেদিতে প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করা হয়েছে। এর আগে সন্ধ্যায় নগরীর ভুবনমোহন পার্ক শহিদ স্মৃতিস্তম্ভে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

প্রদীপ প্রজ্জলনে আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নকুল পাহানের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক তরুন মুন্ডা, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক পলাশ পাহান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির সভাপতি সুশান্ত মাহাতো, কেন্দ্রীয় সদস্য শিউলি মার্ডি, অনিল গজার, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় সদস্য বিভূতী ভূষণ মাহাতো, আদিবাসী যুব পরিষদ কেন্দ্রীয় সদস্য উত্তম কুমার মাহাতো, জনউদ্যোগ রাজশাহীর সদস্য সচিব জুলফিকার আহমেদ গোলাপ।

আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্র কমিটির সভাপতি নকুল পাহানের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় সদস্য বিভূতী ভূষণ মাহাতো, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক তরুন মুন্ডা, দপ্তর সম্পাদক পলাশ পাহান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির সহ-সভাপতি অরুন লাকড়া, সাধারণ সম্পাদক লখিন সরদার, কেন্দ্রীয় সদস্য শিউলি মার্ডি, অনিল গজার প্রমুখ।

রক্ষাগোলা: ব্রেড ফর দি ওয়ার্ল্ড-জার্মানীর সহযোগিতায় দিবসটি স্মরণে সিসিবিভিও-রক্ষাগোলা সমন্বয় কমিটির যৌথ উদ্যোগে এবং ৩৫টি রক্ষাগোলা গ্রাম সমাজ সংগঠনসমূহের অংশগ্রহণে দিবসটি পালন করা হয়। রক্ষাগোলা সমন্বয় কমিটির সাবেক সভাপতি প্রসেন এক্কার সভাপতিত্বে গোদাগাড়ী উপজেলার রাজাবাড়িহাট উচ্চ বিদ্যালয় শহিদ মিনারে পুস্প স্তবক অর্পণ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। র‌্যালিটি সিসিবিভিও শাখা কার্যালায় রাজাবাড়িহাট থেকে শুরু হয়ে রাজাবাড়িহাট উচ্চ বিদ্যালয় শহিদ মিনারে এসে শেষ হয়। র‌্যালিতে অতিথিসহ রক্ষাগোলা গ্রাম সমাজ সংগঠনসমূহের বিভিন্ন জনজাতির ১৪০জন নারী-পুরুষ তাদের নিজস্ব সংস্কৃতির পোশাক ও ফেস্টুনে সজ্জিত হয়ে অংশগ্রহণ করেন।

আলোচনা সভায় অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, সিসিবিভিও’র সিনিয়র হিসাবরক্ষক এএইচএম তারিক, গোদাগাড়ী উপজেলা হিন্দু, বৌদ্ধ ও খৃষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি শ্রী কৃষ্ণ কুমার সরকার। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন সিসিবিভিও’র প্রদীপ মার্ডী, সবিতা রানী হেম্ব্রম, সৌমিক ডুমরী, নিরঞ্জন কুজুর, গড়ডাইং রক্ষাগোলা সংগঠনের মোড়ল সুধীর সরেন। বক্তাগণ বলেন, মহান সান্তাল বিদ্রোহ ছিল ভারতবর্ষে বৃটিশ কোম্পানী শাসনের বিরুদ্ধে প্রথম সংগ্রাম যার স্লোগান ছিল ‘লড়ো না হয় মরো, ইংরেজ আমাদের মাটি ছাড়ো, আমার দেশ আমার শাসন’। বর্তমান সরকার ক্ষুদ্র নৃ-জনগোষ্ঠী বান্ধব সরকার। ক্ষুদ্র নৃ-জনগোষ্ঠীর সমস্যাসমূহ ও নির্যাতন প্রতিরোধে সকলকে একতাবদ্ধভাবে কাজ করার জন্য আহ্বান জানানো হয়।

সভায় উপস্থিত ছিলেন, শাহাবুদ্দিন সিহাব, ইমরুল সাদাত, সুদক্ষন টপ্প্য, ভবেশ লাকড়া, প্রেমচাঁদ এক্কা, কাথারিনা হাঁসদা, মানিক এক্কা, রঞ্জিত সাওরীয়া, রাজকুমার বারোয়ারসহ অনেকেই। আলোচনা সভাটি সঞ্চালন করেন, সিসিবিভিও’র প্রশিক্ষণ সমন্বয়কারী নিরাবুল ইসলাম।

গোদাগাড়ী উপজেলা জাতীয় আদিবাসী পরিষদ: গোদাগাড়ীতে মহান সাঁওতাল বিদ্রোহের ১৬৭তম বার্ষিকী উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বেলা ১১টার দিকে কাঁকনহাট পৌরসভা থেকে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠির সাঁওতাল ও অন্যান্য জাতিগোষ্ঠির জনগণ মিলে বর্নাঢ্য র‌্যালি বের করে পৌরসভার বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পৌর অডিটরিয়ামে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
গোদাগাড়ী উপজেলা জাতীয় আদিবাসী পরিষদ এর আয়োজনে সভায় সভাপতিত্ব করেন, উপজেলা জাতীয় আদিবাসী পরিষদ সভাপতি রবিন হেম্ব্রম। প্রধান অতিথি ছিলেন, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক গণেশ মার্ডি। বিশেষ অতিথি কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা কমিটির সভাপতি বিমল চন্দ্র রাজোয়াড়, জেলার সহ-সভাপতি উত্তম কুমার খালকো, আসুস এর নির্বাহী পরিচালক রাজকুমার শাও, গোদাগাড়ী উপজেলা জাতীয় আদিবাসী পরিষদ এর সাবেক সভাপতি নন্দলাল টুডু, রাজশাহী মহানগর জাতীয় আদিবাসী পরিষদ এর সাধারণ সম্পাদক আন্দ্রিয়াস বিশ্বাস, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ উপজেলা কমিটির সদস্য অজিদ মুন্ডা, গোগ্রাম ইউনিয়নের সভাপতি পিউস হেম্ব্রম ও সাবেক উপদেষ্টা আনোয়ার হোসেন।

আরো উপস্থিত ছিলেন, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নকুল পাহান ও সদস্য উত্তম মাহাতোসহ অন্যান্য আদিবাসী নেতৃবৃন্দ। আলোচনায় নেতৃবৃন্দ বলেন, ১৮৫৫ সালের এই দিনে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করতে যেয়ে সিধু-কানহু, চাঁদ ও ভৈরবসহ তাদের পরিবারে আরো বেশ কয়েকজন নিহত হন। সেই থেকে এই বীরদের স্মরনে প্রতিবছর দেশে ও বিদেশে যেখানে সাঁওতালসহ অন্যান্য ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠির জনগণ রয়েছেন সেখানেই নানা কর্মসূচি পালন করা হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ