সাপাহারে গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টা || অভিযুক্ত গ্রেফতার

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২, ২০২০, ১২:৩৯ পূর্বাহ্ণ

সাপাহার প্রতিনিধি


নওগাঁর সাপাহারে এক গৃহবধূকে (৩৫) মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে আবদুল লতিফ (৪০) নামের এক ব্যক্তিকে পুলিশ আটক করেছে । এ ব্যাপারে নির্যাতিত ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে থানায় মামলা দাখিল করেছে।
মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মধ্যে করমুডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা ওই গৃহবধূ গত ৩০ জানুয়ারি সকাল ৮টার দিকে তার অসুস্থ বাবাকে দেখার জন্য পার্শ্ববর্তী দক্ষিন করমুডাঙ্গা চৌমুহনী গ্রামে বাবার বাড়িতে যায় এবং বাবাকে দেখার পর ওই দিন বেলা সোয়া ১১টার দিকে নিজ বাড়িতে ফিরে আসার জন্য সেখান থেকে বের হয়। এসময় পথে আবদুল লতিফ নামের দুসম্পর্কের এক দেবর তার মোবাইল ফোনে কল দিয়ে তার অবস্থান জানতে চায়। এক পর্যায়ে তার সঙ্গে জরুরী কথা আছে বলে লতিফ ওই গৃহবধূকে রাস্তায় থামতে বলে। এরপর গৃহবধূ আবদুল লতিফের জন্য রাস্তায় অপেক্ষা করতে থাকলে চতুর লতিফ কৌশলে তাকে মাদ্রাসা পাড়া গ্রামের একটি বাড়িতে তাকে ডেকে নিয়ে যায়। পরে ওই গৃহবধূকে একটি ঘরে নিয়ে গিয়ে নানান কথার ফাঁকে তাকে জাপটে ধরে জোর পূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। এসময় ওই গৃহবধূ আবদুল লতিফের হাত থেকে বাঁচার জন্য চিৎকার শুরু করলে বাড়িওয়ালাসহ আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। ততক্ষনে লতিফ ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।
পরবর্তী সময়ে ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে সাপাহার থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করলে গত শুক্রবার দুপুরে উপজেলা সদর থেকে অভিযুক্ত লতিফকে পুলিশ আটক করে। অভিযোগের তদন্ত সাপেক্ষে ঘটনার সত্যতা মিললে অভিযুক্ত লতিফের বিরুদ্ধে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়। আটককৃত আবদুল লতিফ উপজেলার বলদিয়াঘাট করমুডাঙ্গার মৃত আরশাদ আলীর ছেলে বলে জানা গেছে।
এ ব্যাপরে সাপাহার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবদুল হাই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আটককৃত লতিফের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(৪)(খ) ধারায় মামলা দায়ের করে শনিবার বিকেলে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।