সাপাহার জিরোপয়েন্টে দুর্ঘটনা ও যানজট এড়াতে ট্রাফিক সার্জন নিয়োগ অথবা ওভার ব্রিজ নির্মাণের দাবি

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২১, ১:২০ অপরাহ্ণ

সাপাহার প্রতিনিধি:


নওগাঁর জেলার ১১টি উপজেলার মধ্যে অন্যতম ও ব্যস্ততম উপজেলার নাম সাপাহার উপজেলা। এই উপজেলার আয়োতন ২৪৪.৪৯ বর্গ কিলোমিটার, জনবসতি ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী ১ লক্ষ ৬১ হাজার ৭৯২ জন। তবে অভিজ্ঞ মহলের ধারণামতে বর্তমানে লোকসংখ্যা প্রায় আড়াই লক্ষ ছাড়িয়ে যাবে। বর্তমানে খোদ উপজেলা সদরে বিভিন্ন জেলা উপজেলা হতে আগত বিভিন্ন ব্যাবসায়ী ও লেখাপড়া করতে আসা লোকজন সহ প্রায় ১ লক্ষ লোকজন সদরেই বসবাস করছে বলে সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আকবর আলী জানিয়েছেন। বর্তমানে সরকারের ডিজিটাল উন্নয়নের ছোঁয়ায় উপজেলা সদরটি এখন শিক্ষা নগরীতে পরিণত হয়েছে। এই উপজেলা সদরে রয়েছে বৃহত্তম দু’টি বিদ্যাপিঠ সাপাহার সরকারী ডিগ্রি কলেজ ও মহিলা ডিগ্রি কলেজ। এছাড়া ৫টি উচ্চ বিদ্যালয় ২টি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৩টি ট্যাকনিক্যাল ও ভকেশনাল উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ ৮/১০টি বে-সরকারি প্রাথমিক/কিন্ডার গার্টেন স্কুল রয়েছে। কলেজগুলিতে বেশ কয়েকটি বিষয়ের উপর অনার্স কোর্স চালু রয়েছে। নওগাঁ জেলার কৃতি সন্তান খাদ্য মন্ত্রী বাবু সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপির একান্ত প্রচেষ্টায় সাপাহার উপজেলাকে অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং সাপাহারের জন্য এই জেলাকে আমের বাণিজ্যিক রাজধানী ঘোষণা করা হয়েছে। উপজেলাটি সীমান্ত ঘেঁষা হলেও এই উপজেলার উপর দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিভাগীয় শহর রাজশাহী, চাঁপাই নবাবগঞ্জের সবকটি উপজেলা সহ উত্তরের জেলা দিনাজপুর ও রংপুর শহরে যোগাযোগের সুগম সড়ক পথ রয়েছে। ফলে উপজেলাটির গুরুত্ব আরোও বেড়ে গেছে। এছাড়া উপজেলা সদরের অতি গুরুত্বপূর্ণ জিরো পয়েন্ট থেকে চার দিকে চারটি রাস্তা বের হয়ে গেছে। প্রতিদিনের অধিকাংশ সময় এই জিরো পয়েন্টে যানজট লেগেই থাকে যার ফলে স্কুল কলেজগামী শিক্ষার্থীরা, বাজারে বাজার করতে আসা লোকজন, সরকারী কর্মচারীগন সহ প্রতিটি সেক্টরের মানুষ নিজ নিজ গন্তব্যে পৌঁছতে অধিক সময় লেগে যায়। রাস্তায় চলাচলকারী অসংখ্য ভ্যান, অটো ভ্যান, ব্যাটারী চালিত ইজিবাইক সহ বিভিন্ন ধরনের ভুটভুটি চালকদের বিশেষ প্রশিক্ষন না থাকায় তারা রাস্তার ট্রাফিক আইন বুঝেনা ফলে হরহামেশা দুর্ঘটনা ও যানজট লেগেই থাকে। যানজট কিছুটা লাঘবের জন্য বর্তমানে সাপাহার থানার উদ্যোগে সাময়িকভাবে এই জিরো পয়েন্টে একজন পুলিশ দেয়া হলেও উপজেলার অভিজ্ঞ মহল সহ সর্বস্তরের জনসাধারণ অচিরেই এই গুরুত্বপূর্ণ জিরো পয়েন্টের যানজট নিরসন ও দুর্ঘটনা এড়াতে তড়িৎগতিতে এখানে স্থায়ীভাবে ট্রাফিক সার্জন নিয়োগ অথবা পথচারীদের অবাধে পথ চলাচলের জন্য চার রাস্তায় চারমুখি একটি ওভার ব্রিজ নির্মাণের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করেছেন।