সাফল্যের কৃতিত্ব দলের প্রত্যেককে দিয়েছেন সাকিব

আপডেট: আগস্ট ৩১, ২০১৭, ১:১৭ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


ষষ্ঠবারের মতো টেস্ট ক্রিকেটে সাকিব আল হাসান পেয়েছেন ম্যাচসেরার পুরস্কার। অস্ট্রেলিয়াকে হারানোর ঘোষিত নায়ক বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। ব্যাট-বল হাতে দারুণ পারফরম্যান্স করায় সাকিব যে ম্যাচসেরার পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন তা অনুমিতই ছিল। সাকিব ঘোষিত নায়ক হলে অঘোষিত নায়ক ছিলেন আরও অনেকেই। ম্যাচসেরার পুরস্কার পেয়ে তাদের কথা স্মরণ করিয়ে দিতে ভুল করেননি সাকিব।
হাসিমুখে সংবাদ সম্মেলনে এসে সাকিব বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়াকে হারানোর কাজটা সহজ ছিল না। অনেক কঠিন ছিল। আমি বলব, তামিম অসাধারণ ব্যাটিং করেছে। ছোট ছোট অনেক অবদান ছিল, বিশেষ করে ব্যাটিংয়ে। এই উইকেটে রান করাটা অনেক কঠিন, তাই ব্যাটসম্যানদের কৃতিত্ব দিতেই হবে। দুইটা ইনিংসেই তামিমের এক‘শ হতে পারত, দুর্ভাগ্য ওর। মুশফিক ভাইয়ের অবদান, নাসিরের প্রথম ইনিংস, সাব্বিরের সেকেন্ড ইনিংস, সবগুলোই অনেক গুরুত্বপূর্ণ ছিল।’
‘তাইজুল ও মিরাজের কথাও বলতে হবে। খুব ভালো সাপোর্ট ছিল টেস্ট জেতার জন্য। হয়তো আমি এক প্রান্ত থেকে পাঁচ উইকেট পেয়েছি, কিন্তু অন্যদিক থেকে ওদের উইকেট নিতেই হয়েছে। সেই দিকটাও ওরা কাভার করতে পেরেছে যেটা আমাদের জন্য সমান গুরুত্বপূর্ণ।’-যোগ করেন সাকিব।
দিন শেষে ক্রিকেট দলগত ম্যাচ। তবে সিনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে সবাইকে নিয়ে পারফরম্যান্স করায় সাকিব বেশ উজ্জীবিত, উৎফুল্ল। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার বলেছেন, ‘জয়ের পিছনে সবার অবদান ছিল। ছোট ছোট অবদান অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ। একটা ক্যাচ মিস বা একটা রান বাঁচানো, প্রতিটা জিনিসেরই অবদান আছে। কেউ বেশি করবে, কেউ কম করবে। এভাবেই একটা দল ফল পাবে। সিনিয়র খেলোয়াড় হিসেবে যেটা করতে পেরেছি সেটা করতে পেরে খুবই খুশি।’ রাইজিংবিডি