সামরিক আদালত পুনর্বহাল হচ্ছে পাকিস্তানে

আপডেট: মার্চ ২৩, ২০১৭, ১২:২০ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


গোপন সামরিক আদালত পুনর্বহাল হচ্ছে পাকিস্তানে। সামরিক আদালত পুনর্বহাল-সংক্রান্ত একটি বিল দেশটির নিম্নকক্ষে মঙ্গলবার পাস হয়েছে। এখন সিনেটে পাস হলে এবং তাতে রাষ্ট্রপতি স্বাক্ষর করলে সাংবিধানিক স্বীকৃতি পাবে সামরিক আদালত।
২০১৫ সালে পাকিস্তানের পেশোয়ারে আর্মি পাবলিক স্কুলে তালেবানের হামলায় ১৩৯ শিশু শিক্ষার্থীসহ ১৫০ জন নিহত হওয়ার পর সামরিক আদালত গঠন করে দেশটি। এ আদালতের মেয়াদ গত ৭ জানুয়ারি শেষ হয়।
বেসামরিক সন্ত্রাসীদের সামরিক আদালতে বিচার করা হয়। এ নিয়ে উদ্বেগ জানিয়ে আসছে পাকিস্তান ও আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো। তার পরও সামরিক আদালত পুনর্বহাল রাখার পক্ষে জোরালো পদক্ষেপ নিয়েছে পাকিস্তান সরকার।
প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের সরকার জানুয়ারি মাসে ঘোষণা দেয়, তারা সামরিক আদালত পুনর্বহাল রাখতে চায়। তবে পার্লামেন্টে তখনো দুই-তৃতীয়াংশের সমর্থনের অভাব ছিল। কয়েক মাস অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনার পর বিলের পক্ষে সমর্থন আদায় করতে সক্ষম হয় নওযাজ শরিফ সরকার। মঙ্গলবার বিলটি পাস হয়।
গোপন সামরিক আদালতের মূল বিষয়গুলো হলো-
১। আসামিরা নিজের পছন্দমতো আইনজীবী নিয়োগ দিতে পারে না, সামরিক বাহিনী তার আইনজীবী ঠিক করে দেয়।
২। বিচার প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষণের জন্য কোনো গণমাধ্যমকে অনুমতি দেওয়া হয় না।
৩। বিচারের মেয়াদকাল আগে ঘোষণা করা হয় না। রায়ের পর জানা যায় বিচার হয়েছে।
৪। আপিল করার কোনো সুযোগ নেই।
৫। বিচারকদের আইন ডিগ্রি থাকতে হবে, এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। তা ছাড়া বিচারকরা তাদের রায়ের জন্য কারো কাছে দায়ী নন।- রাইজিংবিডি